Hilsa Price : আকাশছোঁয়া দামে অধরা রুপোলি ইলিশ, অসম্পূর্ণ বর্ষামঙ্গলে মনমরা বাঙালি

ইলিশের এ বার যোগান কম

ইলিশের (Hilsa) এ বার যোগান কম। বাজারে যা এসেছে তার দাম আকাশছোঁয়া। ফলে মন খারাপ বাঙালির।

  • Share this:

বর্ধমান : ইলিশ ছাড়া বর্ষাবরণের কথা ভাবতেই পারে না বাঙালি ৷ ইলশেগুঁড়ি বৃষ্টির সঙ্গে খিচুড়ি আর ইলিশমাছ ভাজা কথা ভাবলেই জিভে জল আসে। ইলিশ ভাপা থেকে শুরু করে ইলিশ পাতুরি কিংবা বেগুন-কালোজিরে দিয়ে হালকা করে ইলিশের ঝোল থাকলে বাঙালির আর ভাতের সঙ্গে আলাদা করে বাড়তি পদের প্রয়োজন হয় না। ইলিশ মাছের তেল ভাজা দিয়ে গরম ভাত সাবাড় হতে বেশি সময় নেয় না। ইলিশের পেটে ডিম থাকলে তো সোনায় সোহাগা। কিন্তু  সেই ইলিশের এ বার যোগান কম। বাজারে যা এসেছে তার দাম আকাশছোঁয়া। ফলে মন খারাপ বাঙালির।

সমুদ্রে এ বার সেভাবে ইলিশের ঝাঁকের দেখা মেলেনি । তাই বাজারে বড় ইলিশের আমদানিও অন্যান্য বছরের তুলনায় কম । ফলে বাঙালির ইলিশ উৎসবে বাধ সেধেছে তার আকাশছোঁয়া দাম । দেড় কেজি ওজনের ইলিশের কেজি প্রতি দাম দেড় হাজার টাকা । আর এখানেই ইলিশ পশরার দিকে এগিয়েও দাম শুনে ঠিকরে বেরিয়ে যেতে হচ্ছে অনেককেই । ইলিশ কেনার ইচ্ছে নিয়ে বাজারে এসেও অনেকে দামের সঙ্গে পাল্লা দিতে না পেরে অন্য মাছ কিনে বাড়ি ফিরছেন । বিক্রেতারা বলছেন, আমদানি তেমন না হওয়ার জন্যই দাম অনেকটাই বেশি । লোকাল ট্রেন বন্ধ থাকা দাম বেশি হওয়ার অন্য একটা কারণ। ট্রেন বন্ধ থাকায় মাছ আসছে সড়কপথে । তাতে পরিবহণ খরচ অনেকটাই বেশি হচ্ছে । সেই খরচ যোগ হচ্ছে ইলিশের দামে । বর্ধমানের বাজারে এখন দিঘা, ডায়মন্ড হারবারের ইলিশের যোগানই বেশি।

ক্রেতারা বলছেন, আগে গঙ্গার ইলিশ পাওয়া যেত । তার স্বাদও ছিল অনেক বেশি । তবে সেই ইলিশের এখন আর দেখাই পাওয়া যায় না । তাই এই ইলিশ খেয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয় । কিন্তু ইলিশের যা দাম তাতে স্বাদগ্রহণের শখ থাকলেও সাধ্যে কুলোচ্ছে না অনেকেরই। তাই নিয়মরক্ষার মতো মরশুমে একবার ইলিশ কিনে ইচ্ছে পূরণ করতে হচ্ছে অনেক মাছবিলাসীকেই ৷

Published by:Arpita Roy Chowdhury
First published: