বাঁধে ফাটল, নদীর জল উপচে প্লাবিত আউসগ্রামের বিস্তীর্ণ এলাকা

কয়েকশো বিঘা জমি জলের তলায়। রাস্তা দিয়ে বইছে কুনুরের স্রোত

কয়েকশো বিঘা জমি জলের তলায়। রাস্তা দিয়ে বইছে কুনুরের স্রোত

  • Share this:

#বর্ধমান: এবার বানভাসি আউশগ্রাম। কুনুর নদীর জল উপচে প্লাবিত বিস্তীর্ণ এলাকা। কয়েকশো বিঘা জমি জলের তলায়। রাস্তা দিয়ে বইছে কুনুরের স্রোত। এলাকার বেশ কয়েকটি গ্রামে জল ঢুকতে শুরু করেছে। জল আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। সেক্ষেত্রে গ্রামের ঘরবাড়ি জল বন্দি হয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। প্রয়োজনে সেইসব এলাকার বাসিন্দাদের ত্রাণ শিবিরে নিয়ে যাওয়া হবে বলে জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে।

নিম্নচাপের জেরে প্রবল বৃষ্টি অব্যাহত।তার ওপর ঝাড়খণ্ডের সিকাটিয়া জলাধার থেকে জল ছাড়ায় ফুঁসছে অজয় ও তার শাখানদী কুনুর। কুনুরের জল বাড়ায় আউশগ্রামের শ্মশান মোড় এলাকায় আউশগ্রাম ভেদিয়া রোড জলের তলায়।বিপর্যস্ত যান চলাচল।

ঝাড়খন্ডে বৃষ্টি পরিমাণ বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে  সিকাটিয়া জলাধার থেকে জল ছাড়ার পরিমাণ বাড়লে পরিস্থিতি আরো জটিল হয়ে উঠতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বাসিন্দারা। অন্যদিকে আউশগ্রামে অজয়ের বাঁধে ফাটল দেখা দিয়েছে। তার ফলে উদ্বেগের মধ্যে রয়েছেন বাসিন্দারা।

আউসগ্রামেঅজয় নদের বাঁধের একটা বড় অংশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়েছে। সেখানে ধস দেখা দিয়েছে। ধসের ফলে বিস্তৃর্ণ এলাকা প্লাবিত হবার আশঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্ট এলাকার বাসিন্দারা।

নিম্নচাপের জেরে অতি ভারি বৃষ্টিপাত অব্যাহত।অন্যদিকে ঝাড়খন্ডের সিকাটিয়া জলাধার থেকে জল ছাড়ায় অজয় নদের জল স্তর বেড়েছে অনেকটাই। আউশগ্রামের বুঁধরো গ্রামের কাছে অজয়ের নদী বাঁধের কয়েক ফুট জায়গায় মাটি ধসে গেছে। ফলে ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে পড়েছে অজয়ের  বোল্ডারের দেওয়া বাঁধও।এই ঘটনায় নদীবাঁধ দুর্বল হয়ে পড়েছে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করছেন স্থানীয় গ্রামবাসীরা। তাঁদের দাবি, এব্যাপারে দ্রুত পদক্ষেপ নিক প্রশাসন। তা না হলে অজয়ে জল আরও বাড়লে সেই জায়গায় বাঁধ ভেঙে প্লাবন দেখা দিতে পারে। প্লাবিত হতে পারে বুধরো,সাঁতলা,ভেদিয়া,বাটবাটি, ভাঙ্গাল সহ  বিস্তৃর্ণ এলাকা। অবিলম্বে বাঁধ মেরামতির দাবি জানিয়েছেন তাঁরা।

বাঁধ মেরামতি জন্য ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে জানিয়েছেন বর্ধমান সদর উত্তরের মহকুমাশাসক দীপ্তার্ক বসু। তিনি জানান,বাঁধের মাটি ধসে গেছে বলে স্থানীয় গ্রামবাসীরা প্রশাসনের কাছে খবর দেয়। এরপর সেচ দপ্তরের অফিসার ও এঞ্জিনিয়াররা ঘটনাস্থলে যান। তাঁরা ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা সারাইয়ের  কাজ চালাচ্ছেন।আশা করা হচ্ছে ওই এলাকায় ভবিষ্যতে আর কোনও সমস্যা হবে না।

Published by:Ananya Chakraborty
First published: