সফল অস্ত্রপচার, উত্তরবঙ্গ মেডিক্যালে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত মহিলা এখন স্থিতিশীল, জানালেন চিকিৎসকরা

শিলিগুড়ির বাড়িতেই চলেছিল তাঁর কোভিড চিকিৎসা। সুস্থও হয়ে ওঠেন। তারপরই নেমে আসে বিপত্তি। ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের উপসর্গ দেখা যায় তাঁর শরীরে।

শিলিগুড়ির বাড়িতেই চলেছিল তাঁর কোভিড চিকিৎসা। সুস্থও হয়ে ওঠেন। তারপরই নেমে আসে বিপত্তি। ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের উপসর্গ দেখা যায় তাঁর শরীরে।

  • Share this:

Partha Sarkar

#শিলিগুড়ি: সফল অস্ত্রপচার! হ্যাঁ, উত্তরবঙ্গেও সম্ভব! আজ তা করে দেখালেন উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসকেরা। উত্তরের প্রথম ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্তের সফল অস্ত্রপচার। প্রায় সাড়ে ৬ ঘন্টা ধরে হল অস্ত্রপচার। ছিলেন বিভিন্ন বিভাগের ৬ জন বিশেষজ্ঞ শল্য চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্য কর্মী। আপাতত আইসিইউতে ৪৮ থেকে ৭২ ঘন্টা অবজার্ভেশনে থাকবেন আক্রান্ত রোগী।

মাস খানেক আগে কোভিডে আক্রান্ত হন ৫০ বছর বয়সী ওই মহিলা। শিলিগুড়ির বাড়িতেই চলেছিল তাঁর কোভিড চিকিৎসা। সুস্থও হয়ে ওঠেন। তারপরই নেমে আসে বিপত্তি। ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের উপসর্গ দেখা যায় তাঁর শরীরে। গত শুক্রবার শিলিগুড়ি জেলা হাসপাতাল হয়ে ভর্তি করা হয় উত্তরবঙ্গ মেডিকেলে। তাঁর শারিরীক উপসর্গ দেখে চিকিৎসকদেরও মনে হয় সন্দেহভাজন ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত ওই মহিলা। সেই মতো লালা রসের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। গতকাল রবিবার হলেও মাইক্রো বায়োলজি বিভাগের টেকনিশিয়ানরা নমুনা পরীক্ষা করেন। এবং রাতেই জানিয়ে দেন, মহিলার রিপোর্ট পজিটিভ। অর্থাৎ ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত মহিলা। শিলিগুড়ি তো বটেই উত্তরবঙ্গে প্রথম!

ইতিমধ্যেই কলকাতায় এক আক্রান্তের মৃত্যু হয়েছে। তাই গতকাল রাতেই এখানকার চিকিৎসকেরা ভিডিও কনফারেন্সে স্বাস্থ্য ভবনের কর্তাদের সঙ্গে কথা বলে নেন। ঝুঁকি নেননি। আজই অস্ত্রপচার করবেন বলে ঠিক হয়। সেই মতো আজ সকালে ওটিতে নিয়ে যাওয়া হয়। অত্যন্ত জটিল অস্ত্রপচার। জানতেন চিকিৎসকেরা। উপসর্গ পজিটিভ হওয়ায় সেই মতো অস্ত্রপচার শুরু হয়। প্রায় সাড়ে ৬ ঘন্টা চলে অস্ত্রপচার। ওটি থেকে হাসি মুখে বেড়িয়ে চিকিৎসকেরা জানিয়ে দেন, অস্ত্রপচার সফল হয়েছে।

দিনভর বাইরে অপেক্ষমান তাঁর ছেলে, মেয়েরা কিছুটা স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেন! অস্ত্রপচারে মহিলার মুখের ডানদিকের ওপরের চোয়াল, ডান চোখ বাদ দেওয়া হয়েছে। বাদ গিয়েছে ডানদিকের মুখের অনেকটা অংশও। চিকিৎসক সঙ্গীতা পাল জানান, "আপাতত উনি স্থিতিশীল। অস্ত্রপচার সফল হয়েছে।" মেডিক্যাল সুপার সঞ্জয় মল্লিক জানান, "উত্তরবঙ্গ মেডিক্যালে ভর্তি মানেই যে মৃত্যু নয়, তা আজ আরও একবার প্রমাণিত হল। একটি বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের টিম প্রথম এই ধরনের অস্ত্রপচারে সাফল্য পেল।" আপাতত স্বস্তি আক্রান্তের ছেলে রাজু পাশওয়ান, মেয়ে সোনু পাশওয়ানেরাও।

Published by:Simli Raha
First published: