ভরদুপুরে শিলিগুড়ির এক বাগানে ফুটফুটে লেপার্ড শাবক মত্ত খুনসুঁটিতে, বন দফতর নয়, উদ্ধার করল মা লেপার্ড! 

উত্তরের চা বলয় কার্যত লেপার্ডের আস্তানা। বহু বাগানেই খাঁচা পেতে এর আগে উদ্ধার করা হয়েছে লেপার্ড।

উত্তরের চা বলয় কার্যত লেপার্ডের আস্তানা। বহু বাগানেই খাঁচা পেতে এর আগে উদ্ধার করা হয়েছে লেপার্ড।

  • Share this:

শিলিগুড়ি: উত্তরবঙ্গের চা বাগানে লেপার্ডের আনাগোনা নতুন নয়। একাধিক চা বাগানে রয়েছে লেপার্ডের আনাগোনা। লেপার্ডের দাপাদাপিতে বাগানের শ্রমিক আবাসন প্রায়ই আতঙ্কিত থাকে। লেপার্ডের হানায় জখমের ঘটনাও নতুন নয়। আবার উল্টোটাও হয়েছে। স্থানীয়রা পিটিয়ে চিতাবাঘকে মেরে ফেলার মতো ঘটনাও ঘটেছে। উত্তরের চা বলয় কার্যত লেপার্ডের আস্তানা। বহু বাগানেই খাঁচা পেতে এর আগে উদ্ধার করা হয়েছে লেপার্ড। শুধু চা বাগানই নয়, জঙ্গল লাগোয়া বনবস্তি এবং লোকালয়ে চিতার আনাগোনা মাঝেমধ্যেই চলে আসে শিরোনামে।

কিন্তু শুক্রবার এক অন্য ঘটনার সাক্ষী রইল শিলিগুড়ি লাগোয়া পাহাড়গুমিয়া চা বাগানের শ্রমিকেরা। বাগানে পাতা তোলার সময়ে নজরে আসে বাগান লাইনে আপন খেয়ালে ছটফট করছে এক লেপার্ড ছানা। ফুটফুটে শাবক দেখতে কার্যত ভিড় জমে যায়। অনেকেই মোবাইলবন্দি করতেও ব্যস্ত হয়ে পড়ে।

বয়স মেরেকেটে ৩ থেকে ৪ মাস! কিন্তু ওর ছটফটানি দেখে তা বোঝার উপায় নেই! বাগান লাইনে শরীরকে ছড়িয়ে তখন ও খেলায় মত্ত! ওর চাহনি দেখে বয়স ধরার উপায় নেই। খবর দেওয়া হয় বন দফতরে। ঘটনাস্থলে পৌঁছয় বাগডোগরা রেঞ্জের বন কর্মীরা। তার আগেই উধাও শাবক চিতা। কারণ মূহূর্তের মধ্যেই মা চিতা এসে মুখে তুলে নিয়ে তার ফুটফুটে ছানাকে। সম্ভবত মায়ের সঙ্গেই এলাকায় এসেছিল শাবকটি। কোনও কারণে ওকে ফেলেই ছুট দেয় মা। তারপর আবারও ফিরে আসে। চোখের সামনে সব দেখে অবাক হয়ে যান স্থানীয়রা। ভর দুপুরে এলাকায় চিতার উপদ্রবে ছড়িয়ে পড়ে আতঙ্ক।

কোথা থেকে এল লেপার্ড শাবকটি? লাগোয়া অটল চা বাগানে লেপার্ড প্রায়শই দেখা যায়। আশপাশের এলাকা জঙ্গলে ঘেরা। সম্ভবত রসদের সন্ধানেই পাহাড়গুমিয়ায় চলে আসে শাবক-সহ চিতাবাঘ বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা বনকর্মীদের। দিন কয়েক আগেই বাগডোগরা বায়ুসেনা ছাউনিতে চিতাবাঘের হানায় এক বন কর্মী-সহ ২ জন জখম হন। এখনও সেই চিতাকে খাঁচা বন্দি করতে পারেনি বন দফতর। সেখানে খাঁচাও পাতা রয়েছে। তবে সাম্প্রতিক সব ঘটনাকেই পিছনে ফেলে দিয়েছে এদিনের ফুটফুটে লেপার্ড ছানার খুনসুঁটি!

পার্থপ্রতিম সরকার

Published by:Siddhartha Sarkar
First published: