• Home
  • »
  • News
  • »
  • north-bengal
  • »
  • নিজামুদ্দিন ফেরত ৭ জনকে ভর্তি করা হল মালদা মেডিক্যালে ! নমুনা সংগ্রহ করে পাঠানো হচ্ছে নাইসেডে !

নিজামুদ্দিন ফেরত ৭ জনকে ভর্তি করা হল মালদা মেডিক্যালে ! নমুনা সংগ্রহ করে পাঠানো হচ্ছে নাইসেডে !

নিজামুদ্দিন ফেরত মালদহের চাঁচলের সাতজনকে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হলো মালদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে।

নিজামুদ্দিন ফেরত মালদহের চাঁচলের সাতজনকে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হলো মালদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে।

নিজামুদ্দিন ফেরত মালদহের চাঁচলের সাতজনকে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হলো মালদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে।

  • Share this:

#মালদহ: নিজামুদ্দিন ফেরত মালদহের চাঁচলের সাতজনকে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হলো মালদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। চাঁচলের নুরগঞ্জ এবং কলিগ্রামের সাতজনের দল গত ১৫ তারিখ নিজামুদ্দিনে যান। তবে এদের কেউই জামাতে যোগ দেননি বলে জানিয়েছে পুলিশ। নিজামুদ্দিনে চাঁদর চড়িয়ে গত ১৯ মার্চ মালদায় ফিরেন তাঁরা। লকডাউন এরআগেই ফেরেন মালদহে। এঁদের কারো শরীরে এখনো কোন করনার  উপসর্গ মেলেনি। তবুও ঝুঁকি না নিয়ে আজ সাত জনকে ভর্তি করা হয়েছে মালদা মেডিকেল কলেজের আইসোলেশন বিভাগে। নমুনা সংগ্রহ করে  পরীক্ষার জন্য পাঠানো হবে কলকাতার নাইসেডে । রিপোর্ট পাওয়ার পর পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে জানিয়েছে পুলিশ ও মালদা মেডিকেল কলেজ কর্তৃপক্ষ।

  নিজামুদ্দিন যোগে গোটা রাজ্যে করনা সংক্রমণের আশঙ্কা করা হচ্ছে।এই কারণে নিজামুদ্দিন ফেরত লোকেদের খুঁজে বের করার চেষ্টায় পুলিশ।  জানা গিয়েছে, মালদহ থেকে নিজামুদ্দিনের জামাতে যোগ দিয়েছিলেন মোট ১১ জন। এদের মধ্যে ১০ জন বর্তমানে মহারাষ্ট্র কোয়ারান্টিনে আছেন। বাকি একজন মালদা হয়ে চলে গিয়েছেন ঝাড়খন্ডে। বর্তমানে তিনিও ঝাড়খন্ডে কোয়ারান্টিনে আছেন। নিজামুদ্দিনের আর কেউ মালদহে রয়েছে কিনা তার তদন্তে নেমে পুলিশ ও গোয়েন্দারা প্রথমে চাঁচলের দুজনের নাম পান। এরপর তাঁদের মাধ্যমে বাকি আরো পাঁচজনের খোঁজ মেলে। নিজামুদ্দিন ফেরত এই দলে পাঁচ জন মহিলা এবং দুজন পুরুষ রয়েছেন। তবে নিজামুদ্দিনের জামাতের সঙ্গে এদের কোনো যোগাযোগ নেই বলেই  পুলিশের প্রাথমিক অনুমান। জেলা পুলিশ সুপার অলোক রাজোরিয়া জানিয়েছেন, সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে প্রত্যেককে শারীরিক পরীক্ষার জন্য বলা  হয়েছে। অন্যদিকে মালদা মেডিকেল কলেজের সুপার অমিত কুমার দাঁ জানিয়েছেন, শনিবার ওই সাতজনকে মালদা মেডিকেল কলেজে আইসোলেশনে ভর্তি করা হয়েছে। কারণ সোয়াব বা লালারসের নমুনা সংগ্রহ করার জন্য আইসোলেশন ভর্তি রাখা প্রয়োজন। তবে এঁদের কারো মধ্যেই করোনার  লক্ষণ এখনো মেলেনি। আপাতত লালারসের নমুনা নাইসেডে  পাঠিয়ে দেওয়া হবে। সেখান থেকে পাওয়া রিপোর্ট দেখে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবেন চিকিৎসকরা। তবে এনিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই।

সেবক দেবশর্মা

Published by:Piya Banerjee
First published: