• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • FORMER EXTERNAL AFFAIR MINISTER YASHWANT SINHA SPEAKS ON AFGHANISTAN ISSUE SDG

Yashwant Sinha|| তালিবানের দখলে আফগানিস্তান, কী পদক্ষেপ নেওয়া উচিত ভারতের? যা বললেন প্রাক্তন বিদেশ মন্ত্রী...

যশবন্ত সিনহা।

Yashwant Sinha on Afghanistan Issue: কাবুলে দূতাবাস বন্ধ করা উচিত হয়নি ভারতের। নিউজ এইট্টিন বাংলা কে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে এমনটাই জানালেন অটলবিহারী বাজপেয়ী জমানার মন্ত্রী যশবন্ত সিনহা।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: আফগানিস্তানের (Afghanistan) তালিবান-রাজ (Taliban) নিয়ে গোটা বিশ্ব যখন উত্তাল, তখন সে দেশে আটকে রয়েছেন বহু ভারতীয় নাগরিক (Indian Citizen)। ভারত সরকার (Government of India) জানিয়েছে তাদের দেশে ফিরিয়ে আনাই প্রথম এবং প্রধান কর্তব্য। কিন্তু, কীভাবে ? দিল্লিতে (Delhi) খোলা হয়েছে বিশেষ সেল। বিদেশ মন্ত্রকের অধীনে ২০ আধিকারিক দিন-রাত কাজ করছেন। আফগানিস্থানে আটকে পড়া মানুষের ফোন ধরছেন হোয়াটসঅ্যাপে জবাব দিচ্ছেন ই-মেইলের জবাব দিচ্ছেন। সর্বোপরি তাঁদের দেশে ফিরিয়ে আনার জন্য তৎপর বিদেশমন্ত্রক।

কিন্তু, দিন তিনেক আগে কাবুলে ভারতীয় দূতাবাসে (Indian Embassy) কার্যত তালা লাগিয়ে সে দেশে ভারতীয় রাষ্ট্রদূত রুদ্রেন্দ্র ট্যান্ডন-সহ দূতাবাস এবং কনস্যুলেটের যাবতীয় আধিকারিক ও কর্মীদের ভারতে ফিরিয়ে আনা হয়েছে। এই সিদ্ধান্তের সঙ্গে সহমত পোষণ করতে পারছেন না দেশের প্রাক্তন বিদেশ মন্ত্রী তথা তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি যশবন্ত সিনহা।বৃহস্পতিবার নিউজ 18 বাংলাকে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, "কাবুলে ভারতীয় দূতাবাস বন্ধ করে দেওয়া ঠিক হয়নি। আফগানিস্তানে এখনও প্রচুর ভারতীয় নাগরিক আটকে রয়েছেন। তাঁদের এ দেশে ফেরত আনার জন্য দূতাবাস খোলা রাখা অত্যন্ত জরুরি ছিল। বিশ্বের আরও অনেক দেশ এখনও তাদের দূতাবাস খোলা রেখেছে। আফগানিস্তানে বিপন্ন মানুষ দূতাবাসে এসে আশ্রয় নিতে পারত।"

তাঁর মতে, অতীতে তালিবানদের সঙ্গে বৈঠক করেছে ভারত। অতএব দেশের মঙ্গলের জন্য তাদের সঙ্গে কথা বলা যেতেই পারে। তাহলে ভারতের করণীয় কী? এ প্রশ্নের জবাবে প্রাক্তন বিদেশমন্ত্রী বলেন, "এখন আফগানিস্তানের যা পরিস্থিতি তাতে ভারতের পক্ষে তিনটি করণীয়। এক, প্রকাশ্যে তালিবানদের নিন্দা করা। দুই, তালিবানদের সমর্থন করা।  তিন, একেবারে চুপ থাকা। কিন্তু বেশিদিন চুপ করে থাকাও সম্ভব নয়, কারণ সে দেশে আমাদের নাগরিকরা আটকে রয়েছেন।"

ভারত আফগানিস্তান সম্পর্ক নিয়েও উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন অটলবিহারী বাজপেয়ী জমানার এই প্রাক্তন মন্ত্রী। তাঁর কথায়, "যে কোনও পদক্ষেপ করার আগে ভাবতে হবে তালিবানরা ভারত সম্পর্কে এখনও কোনও মন্তব্য করেনি। ভারতের প্রতিবেশী দেশ চিন, পাকিস্তান ছাড়াও রাশিয়া ইতিমধ্যেই তালিবানদের সমর্থন করেছে। যা অত্যন্ত চিন্তার বিষয়। এখন সময় অত্যন্ত বিচক্ষণতার সঙ্গে পদক্ষেপ করা। মনে রাখতে হবে, ভারতের কাছে আফগানের সাধারণ মানুষ কৃতজ্ঞ। ভারত সে দেশে অনেক উন্নয়ন মূলক কাজ করেছে। আমি ২০০২ সালে আফগানিস্তানে গিয়ে উষ্ণ অভ্যর্থনা পেয়েছি।" আফগানিস্তানের সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে তিনি কী মোদি সরকারকে কোন পরামর্শ দিতে চান? এ প্রসঙ্গে প্রবীণ নেতা বলেন, "ভারতে খুব কম রাজনীতিক আছেন যারা কাবুল, মাজার-এ-শরীফ-সহ আফগানিস্তানে বিভিন্ন শহর ঘুরে দেখেছেন। সৌভাগ্যবশত আমি তাঁদের মধ্যে একজন। মোদি সরকার কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে আমাদের পরামর্শ নেবেন কিনা সেটা তাদের বিষয়।"

এ দিকে, পশ্চিমবঙ্গের প্রায় ২০০ জন মানুষ আফগানিস্থানে আটকে রয়েছেন বলে গতকাল জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এ প্রসঙ্গে যশবন্ত সিনহা বলেন, "মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঠিকই বলেছেন। বাংলার মানুষদের ফেরানোর উদ্যোগ নেওয়া উচিত। কেন্দ্রীয় সরকারের বিদেশমন্ত্রকের কাছে নিশ্চিতভাবে আফগানিস্তানে যাওয়া মানুষের তালিকা রয়েছে। সেই তালিকা অনুযায়ী আটকে থাকা ভারতীয়দের অবিলম্বে এ দেশে ফিরিয়ে আনার ব্যবস্থা করা উচিত।"

R A J I B   C H A K R A B O R T Y

Published by:Shubhagata Dey
First published: