Home /News /national /
Covid Vaccine: খোলা বাজারে কোভ্যাক্সিন এবং কোভিশিল্ড বিক্রির অনুমোদন, এবার কি ওষুধের দোকানে টিকা?

Covid Vaccine: খোলা বাজারে কোভ্যাক্সিন এবং কোভিশিল্ড বিক্রির অনুমোদন, এবার কি ওষুধের দোকানে টিকা?

কোভিড ভ্যাকসিনে ছাড়পত্র!

কোভিড ভ্যাকসিনে ছাড়পত্র!

Covid Vaccine: বৃহস্পতিবার সেই অনুমোদন দিয়েছে ড্রাগস কন্ট্রোলার জেনারেল অফ ইন্ডিয়া।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: শর্তসাপেক্ষে খোলা বাজারে কোভ্যাক্সিন এবং কোভিশিল্ড বিক্রির অনুমোদন দিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক। প্রাপ্তবয়স্কদের শরীরে প্রয়োগের ক্ষেত্রে সেই অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এমনটাই জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী মনসুখ মাণ্ডবিয়া। বৃহস্পতিবার সেই অনুমোদন দিয়েছে ড্রাগস কন্ট্রোলার জেনারেল অফ ইন্ডিয়া (ডিসিজিআই)।

    খোলাবাজারে করোনা টিকা (Covid Vaccine) বিক্রির ছাড়পত্রের জন্য কেন্দ্রীয় নিয়ামক সংস্থার কাছে আগেই আবেদন করেছিল কোভিশিল্ডি প্রস্তুতকারক সংস্থা সেরাম ইনস্টিটিউট এবং কোভ্যাক্সিন প্রস্তুতকারক সংস্থা ভারত বায়োটেক। কেন্দ্রের সবুজ সঙ্কেত মিললেই ভবিষ্যতে পাড়ার ওষুধের দোকানেই মিলতে পারে করোনা টিকা, এমন আন্দাজ ছিলই। সেটাই ঘটল।

    ২০১৯ সালের ন্যাশনাল ড্রাগস অ্যান্ড ক্নিনিকাল ট্রায়ালস রুলসের আওতায় সেই অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এতদিন যে জরুরি ভিত্তিতে প্রয়োগের অনুমোদন দেওয়া হয়েছিল, তা পালটে টিকাকে সাধারণ 'ড্রাগ' করা হয়েছে। নির্দেশে জানানো হয়েছে, কত টিকা প্রদান করা হচ্ছে এবং ক্নিনিকাল ট্রায়ালে কত টিকা ব্যবহার করা হচ্ছে, সেই সংক্রান্ত তথ্য রাখতে হবে সেরাম ইনস্টিটিউট অফ ইন্ডিয়া (এসআইআই) এবং ভারত বায়োটেককে।

    আরও পড়ুন: করোনা-কালে এই প্রথম, ৩ ফেব্রুয়ারি নিয়ে জরুরি নির্দেশ গেল নবান্ন থেকে! প্রস্তুতি শুরু...

    কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেছেন, কো-উইন প্ল্যাটফর্মে নথিভুক্তকরণ এবং ছ'মাসের ভিত্তিতে সুরক্ষা সংক্রান্ত তথ্য-সহ বিভিন্ন স্বাস্থ্যকেন্দ্রে জোগানের মতো শর্ত রাখা হয়েছে। বিষয় হল, খোলা বাজারে অনুমোদন দেওয়ার অর্থ কী? কোনও টিকা সুরক্ষিত এবং তা অধিকাংশ গ্রহীতাদের ক্ষেত্রে কার্যকরী হয়েছে বলে প্রমাণের জন্য উপযুক্ত তথ্য থাকে, তখন পুরো খোলা বাজারে অনুমোদন দেওয়া হয়। এক্ষেত্রেও তাই হল।

    আরও পড়ুন: কলকাতায় আসছিল একটি কন্টেনার, হঠাৎ গায়েব মাঝপথে! ভিতরে কী ছিল জানেন?

    সরকারি সূত্রকে উদ্ধৃত করে সংবাদ সংস্থা পিটিআই আগেই জানিয়েছিল, খোলা বাজারে টিকার দাম হতে পারে সর্বোচ্চ ২৭৫টাকা। এর সঙ্গে যুক্ত হতে পারে সার্ভিস চার্জ বাবদ আরও ১৫০ টাকা। বর্তমানে কোভ্যাক্সিনের প্রতি টিকার দাম ১২০০ টাকা। কোভিশিল্ডের প্রতি টিকার দাম ৭৮০টাকা। এর মধ্যে সার্ভিস চার্জ বাবদ ১৫০ টাকা অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। কিন্তু খোলা বাজারে টিকার দাম ২৭৫টাকার মধ্যেই রাখার ব্যাপারে প্রাথমিক সিদ্ধান্ত হয়ে গিয়েছে বলে খবর।

    Published by:Suman Biswas
    First published:

    Tags: Coronavirus, Covid vaccine

    পরবর্তী খবর