• Home
  • »
  • News
  • »
  • local-18
  • »
  • 'ম্যানগ্রোভ বাঁচান, বাংলা বাঁচান' - স্লোগান নিয়ে মাতলার তীরে ম্যানগ্রোভ রোপন

'ম্যানগ্রোভ বাঁচান, বাংলা বাঁচান' - স্লোগান নিয়ে মাতলার তীরে ম্যানগ্রোভ রোপন

ম্যানগ্রোভ বাঁচানোর ডাক দিয়ে পোস্টার।

ম্যানগ্রোভ বাঁচানোর ডাক দিয়ে পোস্টার।

ম্যানগ্রোভ বাঁচান বাংলা বাঁচান - স্লোগান হাতিয়ার করে সুন্দরবনের পাশে শিল্পাঞ্চলের স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা

  • Share this:

    সুন্দরবনে ম্যানগ্রোভের সংখ্যা কমে যাওয়া নিয়ে উষ্মা প্রকাশ করেছেন বহু পরিবেশবিদ। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সুন্দরবনের বিভিন্ন এলাকায় ম্যানগ্রোভ গাছের সংখ্যা বাড়ানোর জন্য উদ্যোগ নিয়েছেন। আর এবার, ম্যানগ্রোভ বাঁচান বাংলা বাঁচান - স্লোগান হাতিয়ার করে সুন্দরবনের পাশে দাঁড়ালো শিল্পাঞ্চল এর একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা। পাশে দাঁড়ালো ম্যানগ্রোভ রক্ষাকারী প্রমিলা সবুজ বাহিনীর।

    পরপর ঘূর্ণি ঝড়ের দাপটে বিধ্বস্ত হয়েছে সুন্দরবন। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সুন্দরবনে ম্যানগ্রোভ এর সংখ্যা কমে আসায়, বারবার ভয়ানক প্রাকৃতিক তাণ্ডবের মুখোমুখি হতে হচ্ছে সুন্দরবনকে। পরিবেশ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সুন্দরবন রক্ষা করতে প্রয়োজন ম্যানগ্রোভ উদ্ভিদের সংখ্যা বাড়ানো। ইতিমধ্যেই মুখ্যমন্ত্রী প্রতিবছর দু\'কোটি করে ম্যানগ্রোভ গাছ লাগানোর নির্দেশ দিয়েছেন। তার মধ্যেই এবার খোদ শিল্পাঞ্চল এর একটি সংস্থা ম্যানগ্রোভ বাঁচাতে উদ্যোগ নিয়েছে।

    প্রকৃতির তাণ্ডবে সমূহ ক্ষতি হয়েছে সুন্দরবনের। তারপরই ঝড়খালির বেশকিছু মহিলা, নিজেদের উদ্যোগে গঠন করেছেন প্রমিলা সবুজ বাহিনী। তারা সুন্দরবনকে রক্ষা করার কাজে নেমেছেন। প্রমিলা সবুজ বাহিনী সুন্দরবনের বিভিন্ন এলাকায় ম্যানগ্রোভ রক্ষা করার কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। ম্যানগ্রোভ উদ্ভিদের সংখ্যা বাড়ানোর চেষ্টা করছেন তারা। পাশাপাশি এলাকার মানুষের পাশে দাঁড়ানোর প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছেন। তাদের সেই উদ্যোগকে আরও কিছুটা শক্ত করতে বার্নপুরের স্বেচ্ছাসেবী একটি সংস্থা উদ্যোগী হয়েছে। যে সংস্থাকে সক্রিয় ভাবে সাহায্য করেছেন আসানসোল পুরসভার প্রশাসক অমরনাথ চট্টোপাধ্যায়, রানীগঞ্জ বিধানসভার বিধায়ক তাপস বন্দ্যোপাধ্যায় প্রমুখ।

    বার্নপুরের স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের অন্যতম এক সদস্য রূপক সরকার বলেছেন, ঘূর্ণিঝড়গুলির পর বহু মানুষ, বহু স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা ত্রাণ নিয়ে সুন্দরবনের বিভিন্ন এলাকায় পৌঁছে গিয়েছিলেন। কিন্তু কেউ সুন্দরবনের আসল সম্পদ ম্যানগ্রোভ রক্ষা করার ব্যাপারে যথেষ্ট উদ্যোগী হয়ে ওঠেনি। কিন্তু সুন্দরবন, সেখানের মানুষকে রক্ষা করতে হলে সবার আগে প্রয়োজন ম্যানগ্রোভ উদ্ভিদ রক্ষা করা। তাই তারা এবার ম্যানগ্রোভ বাঁচানোর উদ্যোগ নিয়েছেন। ম্যানগ্রোভ বাঁচান, বাংলা বাঁচান - স্লোগান নিয়ে তারা এই যাত্রা শুরু করেছেন। সংস্থার সদস্যরা সুন্দরবনের প্রমিলা বাহিনী সঙ্গে হাত মিলিয়েছেন। শিল্পাঞ্চল থেকে যাওয়া এই স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার সদস্যরা, মাতলা নদীর তীরে ম্যানগ্রোভ বৃক্ষরোপণ করেছেন।

    পাশাপাশি প্রমিলা সবুজ বাহিনীর সদস্য, যারা বর্তমানে ম্যানগ্রোভের রক্ষা করছেন, তাদের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে উপহার। পুজোর আগে তাদের হাতে নতুন শাড়ি তুলে দিয়েছে বার্নপুরের স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাটি।

    এছাড়াও, প্রমিলা সবুজ বাহিনী দ্বারা পরিচালিত স্কুলের পড়ুয়াদের জন্য, ব্যাগ, বই-খাতা সহ বিভিন্ন উপহার নিয়ে যাওয়া হয়েছে। বার্নপুরের সংস্থাটিকে এই কাজে নানাভাবে সাহায্য করেছেন আসানসোল পুরসভার প্রশাসক অমরনাথ চট্টোপাধ্যায় এবং রানীগঞ্জ বিধানসভার বিধায়ক তাপস বন্দ্যোপাধ্যায়। তাই বার্নপুরের সংস্থাটি বিশেষ ভাবে ধন্যবাদ জানিয়েছেন তাদেরও।

    পরিবেশ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শিল্পাঞ্চলের মানুষের ম্যানগ্রোভ রক্ষা করার এই প্রয়াস, অনেক মানুষকে শিক্ষা দেবে। যারা নির্বিচারে ম্যানগ্রোভ বনভূমি ধ্বংস করে যাচ্ছেন, তাদের কাছেও এই উদ্যোগ  বিশেষ বার্তা হিসেবে পৌঁছবে। এবার হয়ত অনেক মানুষই, সুন্দরবনের সম্পদ ম্যানগ্রোভ বাঁচানোর জন্য উদ্যোগী হবেন।

    Published by:Ananya Chakraborty
    First published: