Home /News /life-style /
আপনার লিভারের পুষ্টির প্রতি কেন আপনার নজর দেওয়া উচিত, তা জেনে নিন

আপনার লিভারের পুষ্টির প্রতি কেন আপনার নজর দেওয়া উচিত, তা জেনে নিন

আপনার লিভার হল সেই অঙ্গ যা আপনার শরীরকে সুস্থ রাখার জন্য প্রতিনিয়ত কাজ করে চলেছে

  • Share this:

    আমরা সব সময়েই বড়দের বলতে শুনেছি- ‘ভালো খেলে শরীর ভালো থাকবে’, তাই না ? আমাদের শরীরে এমন একটি অঙ্গ রয়েছে যার জন্য এই কথা সম্পূর্ণ সত্যি– না, হার্টের কথা বলছি না। আসলে আপনার লিভার হল সেই অঙ্গ যা আপনার শরীরকে সুস্থ রাখার জন্য প্রতিনিয়ত কাজ করে চলেছে। শরীর থেকে সমস্ত বর্জ্য পদার্থ ফিল্টার করা, ভিটামিন ও মিনারেল স্টোর করা এবং হজম ও বৃদ্ধিতে সাহায্য করা আর তার পাশাপাশি শরীরের আরও 500 রকম গুরুত্বপূর্ণ কাজ সামলায়।

    তাই এই গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গের যত্ন নেওয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ!

    বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, প্রতি 5 জন ভারতীয়ের মধ্যে এক জনের লিভারের রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি রয়েছে। তাছাড়া, এই তথ্যে দেখা যাচ্ছে যে শুধুমাত্র ভারতেই প্রতি বছর প্রায় 1 মিলিয়ন রোগীর শরীরে লিভার সিরোসিস রোগ নির্ণয় হয়। বলা যায়, ভারতীয়দের মৃত্যুর অন্যতম সাধারণ কারণ লিভারের রোগ।

    লিভারের ঠিক কী ধরনের পুষ্টি দরকার তা জানা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ সব সময় সচেতন থাকা উচিত এবং প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা উচিত। সুস্থ লিভার পাওয়ার জন্য আপনার যে বিষয়গুলি অবশ্যই জানা উচিত, সেগুলি দেখে নিন।

    লিভারের পুষ্টি এবং কেন তা গুরুত্বপূর্ণ–

    আমাদের নিয়ম না মানা জীবনযাপন এবং তার সাথে নানা রকম প্রসেসড/ফাস্ট ফুড খাওয়ার প্রবণতা আমাদের লিভারকে অতিরিক্ত কাজ করতে বাধ্য করে। সহজে বললে, আমরা না বুঝেই আমাদের লিভারকে শরীর থেকে টক্সিন বের করার জন্য অনেক বেশি পরিশ্রম করতে বাধ্য করি। কিন্তু আমরা সকলেই জানি, একটানা অতিরিক্ত পরিশ্রম করা একদমই উচিত নয়। তাহলে একটা সময়ের পরে কাজ করার ক্ষমতা কমে যায়। অতএব, সঠিক পুষ্টি হল বিভিন্ন গ্যাস্ট্রোইন্টেস্টিনাল (GI) ডিজর্ডার দূরে রাখার মূল চাবিকাঠি, কারণ তা লিভারকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।

    Dr. Sanjay Banerjee, Consultant Gastroenterologist, ILS Hospital, Kolkata

    উপসর্গ এবং লিভারের রোগীদের যত্ন–

    লিভারের রোগের উপসর্গ নানা রকম হতে পারে। তবে লিভারের রোগের সবচেয়ে পরিচিত উপসর্গগুলি হল গা-বমি ভাব, বমি, পেটের উপরের অংশে যন্ত্রণা এবং জন্ডিসের সাথে প্রচন্ড ক্লান্তি, চুলকানি, দুর্বলতা ও ওজন কমে যাওয়া।

    লিভারের রোগ যখন একদম শেষ পর্যায়ে পৌঁছয়, তখন তার ফলাফলকে লিভার সিরোসিস বলা হয়। প্রথম দিকে অনেকের শরীরে এই রোগের উপসর্গগুলি দেখা না-ও দিতে পারে, তবে রোগ যত খারাপ দিকে যেতে থাকবে, তত বেশি ক্লান্তি, ত্বকে চুলকানি, ভ্রান্তি এবং অবসন্ন ভাবের মতো সমস্যা দেখা দেয়।

    লিভার সুস্থ রাখার জন্য, ব্যালেন্সড ডায়েট এবং ব্যায়াম করা জরুরি, বিশেষ করে ওজন নিয়ন্ত্রণ/কমানোর মতো ব্যায়ামগুলি অত্যন্ত কার্যকর, কারণ এগুলি পেশীর ক্ষমতা পুনরুদ্ধারে সহায়তা করে। যেহেতু পেশী কর্মক্ষমতা ফিরে পেলে লিভারের রোগ বাধাপ্রাপ্ত হয়, তাই দ্রুত এই রোগ নির্ণয় হওয়া এবং সময়মতো চিকিৎসা শুরু করা জরুরি।(4)

    এছাড়াও, খাবার এবং জীবনযাপনের অভ্যাস সম্পর্কে সচেতন থাকা এবং অ্যালকোহল সেবন ও ধূমপান না করার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

    সুস্থ লিভারের জন্য টিপস–

    লিভারের রোগ এড়ানোর সবচেয়ে কার্যকর উপায় হল স্বাস্থ্যসম্মত পদ্ধতিতে জীবনযাপন করা।

    নিয়মিত ব্যায়াম করার পাশাপাশি, শারীরিক ভাবে সক্রিয় লাইফস্টাইল, মদ্যপানের পরিমাণ কমানো এবং ধূমপান বর্জন করা খুবই জরুরি। খাবারের মধ্যে ফ্যাটের পরিমাণ কম এবং অনেক বেশি ফাইবার থাকা প্রয়োজন।(3)

    এছাড়াও বয়স এবং লিঙ্গ অনুযায়ী আপনার যে আদর্শ বডি-মাস ইন্ডেক্স থাকা উচিত, তা অর্জন করার জন্য ক্রমাগত চেষ্টা করতে হবে। এই কারণে সঠিক ওজন ধরে রাখা গুরুত্বপূর্ণ। তার পাশাপাশি হেপাটাইটিস বা ভাইরাল ইনফেকশনের মতো লিভার-সম্পর্কিত রোগ ঠেকানোর জন্য প্রতিরোধক টিকা গ্রহণ করুন। তার পাশাপাশি ডায়াবিটিস, উচ্চ রক্তচাপ এবং উচ্চ কোলেস্টেরলের মতো সমস্যাগুলিকেও নিয়মিত ডায়েট, ব্যায়াম এবং/বা ওষুধের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে, যাতে লিভারের ক্ষতি নিয়ন্ত্রণ এবং এড়ানো যেতে পারে।

    References –

    1. GE Port J Gastroenterol. 2015;22(6):268---276

    2. Bemeur C, et al. J NutrMetab. 2010;2010:1-12

    3. J. Clin. Med. 2019, 8, 1065

    4. Plauth M, et al. ClinNutr. 2019;38(2):485-521 (ESPEN/international guidelines for nutritional recommendation)

    5. EASL Clinical Practice Guidelines on nutrition in chronic liver disease. J Hepatol. 2019;70(1):172-193. (EASL/international guidelines for nutritional recommendation)

    6. Gottschlich MM, et al. The A.S.P.E.N. NUTRITION SUPPORT CORE CURRICULUM: A CASE-BASED APPROACH—THE ADULT PATIENT. United States of America. ASPEN. 2007 (ASPEN/international guidelines for nutritional recommendation))

    IND2214612 (v1.2)

    The information provided in this article is meant for the awareness only and this article should not be considered as a substitute for doctor’s advice. Please consult your doctor for more details. Abbott India Limited shall not be liable in any manner whatsoever for any action based on the information provided in this article and does not hold itself liable for any consequences, legal or otherwise, arising out of information in this article. This article has been produced on behalf of Abbott India’s #ULivStrong initiative, by Network18 team.

    Published by:Ananya Chakraborty
    First published:

    Tags: Liver, Nutrition

    পরবর্তী খবর