Home /News /life-style /

Adulterated Butter: রোজ যে মাখন খাচ্ছি, তা কি আদৌ খাঁটি? ভেজাল থাকলে বোঝার উপায়ই বা কী?

Adulterated Butter: রোজ যে মাখন খাচ্ছি, তা কি আদৌ খাঁটি? ভেজাল থাকলে বোঝার উপায়ই বা কী?

মাখন কি আদৌ খাঁটি?

মাখন কি আদৌ খাঁটি?

Adulterated Butter: মাখন কি আদৌ খাঁটি? মাখনে কি কোনও রকম ভেজাল থাকে?

  • Share this:

ব্রেকফাস্ট থেকে ডিনার- প্রতিটা খাবারের স্বাদ-গন্ধ কয়েক গুণ বাড়িয়ে দিতে পারে মাখন। সকালে পাউরুটিতে মাখনের স্বাদ, গরম ভাতে হালকা হলুদ গলে যাওয়া মাখন আর পরোটার উপর বেশ খানিকটা মাখন- জিভে জল আসতে বাধ্য! দেশ-বিদেশের প্রতিটা রান্নাঘরের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ হল মাখন। দিন-দিন মাখনের চাহিদা বেড়েছে, যার ফলে বাজারে আজকাল নানা ধরনের মাখন এসে গিয়েছে। তবে প্রশ্নটা হচ্ছে, মাখন কি আদৌ খাঁটি? মাখনে কি কোনও রকম ভেজাল থাকে (adulterated butter)?

গবেষণা বলছে, আমাদের দেশের বহু খাদ্যদ্রব্যের মধ্যে ভেজাল যোগ করা হয়। আর এটা যথেষ্ট উদ্বেগের একটা বিষয়, কারণ অদূর ভবিষ্যতে এর থেকে গুরুতর সমস্যা দেখা দিতে পারে। এই অবস্থা নিয়ন্ত্রণ করতে ফুড সেফটি অ্যান্ড স্ট্যান্ডার্ডস্ অথরিটি অফ ইন্ডিয়া (FSSAI) উদ্যোগ নিয়েছে। তার জন্য ট্যুইটারে (Twitter) #DetectingFoodAdulterants ট্রেন্ড চালু করা হয়েছে। এই সপ্তাহে এই সংক্রান্ত একটি ভিডিও পোস্ট করে মাখনের মধ্যে স্টার্চ আছে কি না, তা বিশ্লেষণ করেছে এফএসএসএআই।

আরও পড়ুন : সদ্য কর্মজীবন থেকে অবসর নিয়েছেন পরিবারের কেউ? স্পর্শকাতর সময়ে এভাবেই তাঁর পাশে থাকুন

মাখনে স্টার্চ থাকাটা কতটা ক্ষতিকর?

যদিও স্টার্চ বা শ্বেতসার যদি নিয়ন্ত্রণ রেখে খাওয়া হয়, তা হলে তা শরীরের জন্য ভালো বলেই মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। কিন্তু অপর দিকে তাঁদের বক্তব্য, মাখনের মধ্যে স্টার্চ থাকলে তা আমাদের শরীরের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। কারণ স্টার্চ ডায়াবেটিস, হৃদরোগের মতো জটিল অসুখের আশঙ্কা অনেকাংশে বাড়িয়ে দিতে পারে। শুধু তা-ই নয়, স্টার্চের কারণে বাড়তে পারে দেহের ওজনও। এর পাশাপাশি, স্টার্চের আর একটা ক্ষতিকর দিক আছে। আর সেটা হল- স্টার্চ আচমকাই ব্লাড সুগার বাড়িয়ে দেয়, আবার সঙ্গে সঙ্গে তা অনেকটা কমিয়েও দিতে পারে।

আরও পড়ুন : স্নান করুন মিটিয়ে আশ, লুফাহ সাফ না করলেই ত্বকের সর্বনাশ

আরও পড়ুন : শীতে উৎসবের মরশুমে নিয়ন্ত্রণে রাখুন রক্তচাপ

মাখনের মধ্যে থাকা স্টার্চ পরীক্ষা করার উপায়:

মাখনের মধ্যে স্টার্চ রয়েছে কি না, তা বাড়িতে বসে সহজেই বোঝা যায়। কিন্তু কী ভাবে? তার জন্য রয়েছে একটি সহজ উপায়। তাই সরাসরি চলে আসা যাক এই আলোচনায়।

প্রথমে একটা স্বচ্ছ বড় বাটিতে খানিকটা জল অথবা তেল নিতে হবে।

এ বার তার মধ্যে আধ চা-চামচ মাখন যোগ করতে হবে।

মাখন দেওয়ার পরে ওই বাটিতে ২-৩ ফোঁটা আয়োডিন সলিউশন যোগ করতে হবে।

এ বার দেখতে হবে, ওই বাটির মিশ্রণের রঙে কোনও বদল আসছে কি না। যদি ওই মিশ্রণের রঙে কোনও রকম বদল না-আসে, তা হলে বুঝতে হবে ওই মাখন খাঁটি। আর যদি মিশ্রণের রঙ নীল হয়ে যায়, তা হলে বুঝে নিতে হবে যে, মাখনে ভেজাল রয়েছে!

Published by:Arpita Roy Chowdhury
First published:

Tags: Butter

পরবর্তী খবর