'টেগোর ক্যাসল', কলকাতায় বিলেতের হাইল্যান্ড ক্যাসল-এর ধাঁচে তৈরি একমাত্র বাড়ি

'টেগোর ক্যাসল', কলকাতায় বিলেতের হাইল্যান্ড ক্যাসল-এর ধাঁচে তৈরি একমাত্র বাড়ি

টেগোর ক্যাসল-এর সিঁড়ি

'টেগোর ক্যাসল', কলকাতায় বিলেতের হাইল্যান্ড ক্যাসেলের ধাঁচে তৈরি একমাত্র বাড়ি

  • Share this:

    #কলকাতা: আজকের ২৬ প্রসন্ন কুমার স্ট্রিটের 'টেগোর ক্যাসল'! তা ক্যাসল-ই বটে!  বিলেতের হাইল্যান্ড ক্যাসেলের ধাঁচে তৈরি বসতবাড়ি কলকাতায় এখনও পর্যন্ত আর একটিও নেই!

    কিন্তু কীভাবে কলকাতার বুকে গড়ে উঠল এই ক্যাসল? তা হলে গোড়া থেকেই শুরু করা যাক। যতীন্দ্রমোহন ঠাকুর পারিবারিক সূত্রে একটি সাধারণ তিনতলা বাড়ির উত্তরাধিকার হন। কিন্তু পাশ্চাত্য ভাবধারায় উদ্বুদ্ধ যতীন্দ্রমোহন বাড়ির নকশা পুরো বদলিয়ে ফেললেন। সাধারণ বাড়িকে করে তুললেন 'ক্যাসল'!

    ১৮৯৫ সালের অক্টোবর নাগাদ পুরনো বাড়িটি ভেঙে আবার নতুন করে বাড়ি তৈরির কাজ শুরু হয়। ইংল্যান্ড থেকে বাড়ির প্ল্যান করে এনেছিল ম্যাকিনটশ বার্ন অ্যান্ড কোম্পানি। উইন্ডসর ক্যাসেলের অনুকরণে, ১০০ ফুটের একটি সেন্টার টাওয়ারও তৈরি করা হয়। টাওয়ারের ওপরে ছিল ফ্ল্যাগ স্টাফ। বাড়িতে ঢোকার মুখে ছিল ক্লক টাওয়ার। সেই ঘড়িটিও এসেছিল ইংল্যান্ড থেকে। ওয়েস্টমিনস্টারের বিগ বেন-এর সঙ্গে একই তালে চলত সেই টাওয়ার ক্লক। টেগোর ক্যাসেলের শীর্ষে ইউনিয়ন জ্যাক ওড়ানোর বিশেষ অনুমতিও দিয়েছিল ব্রিটিশ সরকার।

    তখনকার বাংলা থিয়েটারের অন্যতম কাণ্ডারি ছিলেন যতীন্দ্রমোহন। টেগোর ক্যাসেলের তিনতলায় একটি অডিটোরিয়াম তৈরি করেছিলেন। বাড়িতে ছিল বড় বড় হলঘর। পেছনের মাঠটিও ছিল র‍্যামপার্টের মতো। ডিউক ও ব্যারনদের বাড়ির মতোই ছিল এই বাড়ির প্ল্যান। শুধু নাটক নয়, বাংলার সাহিত্য, শিক্ষা, রাজনীতেও যতীন্দ্রমোহনের বিশাল অবদান ছিল। তাঁরই অনুপ্রেরণায় কবি মধুসূদন 'তিলোত্তমাসম্ভব কাব্য' রচনা করেছিলেন, এবং যতীন্দ্রমোহন নিজের খরচায় তা প্রকাশ করেন।

    বারবার রূপ বদলিয়েছে 'টেগোর ক্যাসল'। ১৯৫৪ সালে ৯১ বছরের জন্য বাড়িটি লিজ নেয় এস বি হাউজ অ্যান্ড ল্যান্ড প্রাইভেট লিমিটেড। লিজ নেওয়ার পর, তারা বাড়ির চেহাড়া বদলাতে শুরু করেন।

    কলকাতার অন্যতম 'শো-প্লেস' হিসেবে যে বাড়িটি গণ্য হত, সেই টেগোর ক্যাসলকে আজ চেনা দায়! ক্লক টাওয়ার ও মিনারেটের সামান্য কিছু অংশ শুধু অবশিষ্ট রয়েছে। বাকি সবটাই মলিন স্মৃতি!

    আরও পড়ুন-সন্দেশের উপর নৃত্যরতা নর্তকী,সন্দেশ এতটুকু ভাঙছে না! এমন দৃশ্যর দেখা মিলত কলকাতাতেই

    First published: