Union
Budget 2023

Highlights

হোম /খবর /লাইফস্টাইল /
আয়ুর্বেদের তৈল পাক বিধিই আজকের প্রোটিন অয়েল! চুলের সব সমস্যা দূর এই তেলেই

আয়ুর্বেদের তৈল পাক বিধিই আজকের প্রোটিন অয়েল! চুলের সব সমস্যা দূর এই তেলেই

চুলের সমস্যার একমাত্র সমাধান প্রোটিন অয়েল

চুলের সমস্যার একমাত্র সমাধান প্রোটিন অয়েল

Hair Care: দুর্গাপুজো দিয়ে শুরু, কালীপুজো-দীপাবলি পর্যন্ত নানা স্টাইলে চুলের অযত্ন হবেই। তাহলে উপায়?

  • Share this:

মাথার চুলই যেন মাথাব্যথার কারণ। চুল পড়া, গোড়া ভেঙে যাওয়া, রুক্ষ-শুষ্ক চুলের ঠেলায় দুর্বিষহ জীবন। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, অলস জীবনযাপন এবং পরিবেশ দূষণই এর প্রধান কারণ। এছাড়া চুলের যত্ন না নেওয়া, ভুল খাদ্যাভ্যাস, অতিরিক্ত স্টাইলিং সরঞ্জামের ব্যবহার, রাসায়নিক পণ্যের ক্ষতিকর প্রভাব, সূর্যের অতিরিক্ত এক্সপোজার তো রয়েছেই। তার সঙ্গে রয়েছে এই উৎসবের মরশুম। দুর্গাপুজো দিয়ে শুরু, কালীপুজো-দীপাবলি পর্যন্ত নানা স্টাইলে চুলের অযত্ন হবেই। তাহলে উপায়?

চুলের এই সব সমস্যার একমাত্র সমাধান প্রোটিন অয়েল। এতেই মিলবে একঢাল ঘন কালো এবং উজ্জ্বল চুল। প্রোটিন যেমন শরীরের অভ্যন্তরীণ স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটায় তেমনই চুলের যত্নের ক্ষেত্রেও এর ভূমিকা অনস্বীকার্য। প্রোটিন আদতে শরীরের রাসায়নিক বিল্ডিং ব্লক, যাকে বলা হয় 'অ্যামিনো অ্যাসিড যা পেশির হাড় তৈরি ও মেরামত করতে সাহায্য করে। একইভাবে চুলে রয়েছে ‘কেরাটিন’ নামক বিশেষ প্রোটিন। সময়ে সময়ে এটারও ঘষামাজা প্রয়োজন। এজন্যই চুলের যত্নে প্রোটিন যোগ করতে বলা হয়। এটা চুলকে পর্যাপ্ত পুষ্টি যোগায়।

প্রোটিন অয়েল কী: প্রোটিন অয়েল খাঁটি আয়ুর্বেদিক জিনিস। বিভিন্ন উদ্ভিদের নির্যাস এবং ভৃঙ্গরাজ, আমড়া, পেঁয়াজ, কারি পাতা, কালো জিরে ইত্যাদির ভেষজ পেস্ট দিয়ে তৈরি পুষ্টিকর তেলের শক্তিশালী মিশ্রণ। আয়ুর্বেদে একে বলা হয়, ‘তৈল পাক বিধি’। তাই প্রোটিন অয়েল কিনতে চাইলে আয়ুর্বেদিক পণ্যের দোকান থেকেই কেনা উচিত।

আরও পড়ুন : কলম না উত্তরাবলী! ১১ টি কলমের গায়ে সিলেবাস খোদাই করে পরীক্ষায় নকল ছাত্রের, ভাইরাল নিমেষে

চুল ভাঙা রোধ করে, খুশকির বিরুদ্ধে লড়ে: শুষ্ক মাথার ত্বক এই সমস্যার জন্য দায়ী। চুলে নিয়মিত প্রোটিন অয়েল ব্যবহার করলে চুল ভাঙার সমস্যা কমে যায়। খুশকি থেকে মুক্তি মেলে। সাধারণত সপ্তাহে তিন বার চুলে প্রোটিন অয়েল দেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়।

পুষ্টি যোগায়: প্রোটিন অয়েল প্রয়োজনীয় মাইক্রোনিউট্রিয়েন্টস, ভিটামিন, খনিজ পদার্থ ইত্যাদিতে ভরপুর। মাথার ত্বকের গভীরে যায় এবং চুলকে পুষ্ট করে। সারা দিনের ব্যস্ততার পর, পুষ্টিকর তেল (যেমন বাদাম, তিল, নারকেল, রোজমেরি, ইত্যাদি) সমন্বিত প্রোটিন অয়েল ডিহাইড্রেটেড স্ক্যাল্পকে পুষ্ট করতে সাহায্য করে।

আরও পড়ুন :  প্রতি মাসে ঋতুস্রাবের ঠিক আগেই পেটখারাপ, জানুন প্রতিকারের পথ

রক্ত সঞ্চালন বাড়িয়ে চুলের বৃদ্ধি: আদর্শ প্রোটিন-ভিত্তিক চুলের তেলের একটি গুরুত্বপূর্ণ সুবিধা হল যে এটি চুল পড়ার সমস্যাকে অনেকাংশে কমাতে সাহায্য করে। এর সঙ্গে সঠিক পদ্ধতিতে মাসাজ করলে রক্ত সঞ্চালন বাড়ে। ফলে নতুন চুল গজায়।

মজবুত চুল: ভেঙ্গে যাওয়া এবং চুল পড়ার সমস্যা রোধ করার পাশাপাশি, প্রোটিন হেয়ার অয়েল প্রয়োজনীয় খনিজ ও পুষ্টির মাধ্যমে চুলকে মজবুত করে। গুরুত্বপূর্ণ ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড, ভিটামিন ই এবং প্রাকৃতিক প্রোটিনগুলি তাপ থেকে বাহ্যিক ক্ষতি প্রতিরোধ করতে এবং চুলের গোড়াকে মজবুত করতে সহায়তা করে।

Published by:Arpita Roy Chowdhury
First published:

Tags: Hair Care, Protein