মাংস খান না? চিন্তা নেই, এই খাবারগুলি খেলেও শরীরে পৌঁছতে পারে পর্যাপ্ত পরিমাণ ভিটামিন!

মাংস খান না? চিন্তা নেই, এই খাবারগুলি খেলেও শরীরে পৌঁছতে পারে পর্যাপ্ত পরিমাণ ভিটামিন!
শরীর গঠনে, পেশি মজবুত করতে ও শরীর সুস্থ রাখতে ভিটামিনের প্রয়োজনীয়তা অনস্বীকার্য। A, C ও E এই তিনটি ভিটামিন শরীরে অ্যান্টি-অক্সিড্যান্টসের কাজ করে ও কোষে প্রোটিন জোগায়।

শরীর গঠনে, পেশি মজবুত করতে ও শরীর সুস্থ রাখতে ভিটামিনের প্রয়োজনীয়তা অনস্বীকার্য। A, C ও E এই তিনটি ভিটামিন শরীরে অ্যান্টি-অক্সিড্যান্টসের কাজ করে ও কোষে প্রোটিন জোগায়।

  • Share this:

#কলকাতা: শরীর গঠনে, পেশি মজবুত করতে ও শরীর সুস্থ রাখতে ভিটামিনের প্রয়োজনীয়তা অনস্বীকার্য। A, C ও E এই তিনটি ভিটামিন শরীরে অ্যান্টি-অক্সিড্যান্টসের কাজ করে ও কোষে প্রোটিন জোগায়।থিয়ামিন (Thiamine বা B1), রাইবোফ্লাভিন (Riboflavin বা B2), নিয়াসিন (Niacin বা B3),  প্যান্টোথেনিক অ্যাসিড (Pantothenic Acid বা B5), পাইরিডক্সিন (Pyridoxine বা B6),  বায়োটিন (Biotin বা B7), ফোলেট (Folate বা B9), কায়ানোকোবালামিন (Cyanocobalamin বা B12)- এই আট ভিটামিন B-র গুরুত্ব অপরিসীম। মস্তিস্কের কর্মক্ষমতা বাড়ায় এই ভিটামিনগুলি। হার্ট ও নার্ভ ভালো রাখে। লোহিত রক্তকণিকা তৈরিতে সাহায্য় করে এবং রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। এ ছাড়াও এই ভিটামিনের পরিমাণ শরীরে ঠিক থাকলে গুড কোলেস্টেরলের মাত্রাও বাড়ে।এর মধ্যে কায়ানোকোবালামিন বা B12 পাওয়া যেতে পারে মাশরুম, সয়াবিন ও ইস্ট থেকে।


ভিটামিন বেশি পরিমাণে পাওয়া যায় মাছ, মাংস থেকে। কিন্তু যাঁরা এই খাবার খান না, তাঁরাও ভিটামিন পেতে পারেন সবজি, ফল ইত্যাদি থেকে।সবজিপালং শাপ বা ডিপ সবুজ রঙের যে কোনও শাকে ভিটামিন A, B ও C থাকে। এ ছাড়াও গাজর, ব্রকোলি, বাঁধাকপি, ফুলকপি, কড়াইশুটি, মিষ্টি আলু, ক্যাপসিকাম, কুমড়োতেও প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন থাকে।ফলকমলালেবু, মুসম্বি লেবু, পাতিলেবু বা আঙুরে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন C থাকে বা অ্যাসকরবিক অ্যাসিড থাকে। যা হাড় ও দাঁত মজবুত করে এবং পাশাপাশি রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। এই ভিটামিন টক ফল ছাড়াও আনারস, পেয়ারা, আম, লিচু ও আপেলেও পাওয়া যায়।শস্যদানাচাল, গম, বার্লি, মিলেট ব্র্যানে এন্ডসপার্ম ও জার্ম ইনট্যাক্ট থাকে। যাতে ভিটামিন B, E, মিনারেলস ও ফাইবার থাকে প্রচুর পরিমাণে। ফলে এগুলি খেলেও শরীরে ভিটামিন সঞ্চার হতে পারে।ডালআমাদের দেশে সবরকম ডিশেই অল্প-বিস্তর ডালের ব্যবহার হয়ে থাকে। ডাল অনেক রাজ্যের মানুষেরই প্রধান খাবার। মুসুর ডাল, অরহর ডাল, বিউলির ডাল, ছোলার ডাল, মুগ ডাল- প্রত্যেকটিতেই ফোলেট, থিয়ামিন ও নাইসিন থাকে।বাদামচিনা বাদাম, কাজু বাদাম, আখরোট, আমন্ড, পেস্তা-সহ প্রায় সব বাদামেই ভিটামিন থাকে। এর মধ্যে বেশ কয়েকটি ভিটামিন E ও ভিটামিন B-র প্রধান উৎসও।

Published by:Akash Misra
First published: