• Home
  • »
  • News
  • »
  • life-style
  • »
  • Father and Daughter Salute Moment: পুলিশ আধিকারিক বাবার পথে পা রেখে মেয়েও একই পেশায়, দু’জনে মুখোমুখি অভিবাদন-পর্বে

Father and Daughter Salute Moment: পুলিশ আধিকারিক বাবার পথে পা রেখে মেয়েও একই পেশায়, দু’জনে মুখোমুখি অভিবাদন-পর্বে

আইটিবিপি ছবির ক্যাপশন দিয়েছে ‘‘গর্বিত বাবা তাঁর গর্বিত মেয়ের কাছ থেকে স্যালুট গ্রহণ করছেন৷’’

আইটিবিপি ছবির ক্যাপশন দিয়েছে ‘‘গর্বিত বাবা তাঁর গর্বিত মেয়ের কাছ থেকে স্যালুট গ্রহণ করছেন৷’’

Father and Daughter Salute Moment: আইটিবিপি ছবির ক্যাপশন দিয়েছে ‘‘গর্বিত বাবা তাঁর গর্বিত মেয়ের কাছ থেকে স্যালুট গ্রহণ করছেন৷’’

  • Share this:

    মুখোমুখি এক প্রৌঢ় এবং এক তরুণী৷ দু’জনের পরনেই পুলিশের উর্দি৷ স্যালুট করছেন একে অপরকে৷ ছবিটি সম্প্রতি পোস্ট করেছে ইন্দো টিবেটান বর্ডার পুলিশ বা আইটিবিপি (ITBP)৷ অল্প কয়েক দিনের মধ্যেই ভাইরাল হয়ে পড়েছে ছবিটি৷ কারণ ছবিতে যাঁদের দেখা যাচ্ছে তাঁরা নিছক ঊর্ধ্বতন নিম্নতন কর্মচারী নন৷ বরং তাঁরা বাবা-মেয়ে৷ আইটিবিপি ছবির ক্যাপশন দিয়েছে ‘‘গর্বিত বাবা তাঁর গর্বিত মেয়ের কাছ থেকে স্যালুট গ্রহণ করছেন৷’’

    আরও পড়ুন : হাঁপানির সমস্যার জেরে কষ্ট হয় আতসবাজির দূষণে? রইল বাঁচার উপায়

    ছবির তরুণী নাম অপেক্ষা নিম্বাডিয়া (Apeksha Nimbadia)৷ তিনি উত্তরপ্রদেশের মোরাদাবাদের ডক্টর বি আর অম্বেডকর পুলিশ অ্যাকাডেমি থেকে স্নাতক হয়েছেন৷ তাঁর বাবা এপিএস নিম্বাদিয়া (APS Nimbadia) আইটিবিপি –র ডেপুটি ইন্সপেক্টর জেনারেল৷ কর্মসূত্রে তাঁর সামনেই প্যারেড করেন তাঁর সুযোগ্য কন্যা ৷

    আরও পড়ুন : অপ্রস্তুত অবস্থা এড়াতে পেটের মেদ কমাতে চান? আজ থেকেই শুরু করুন এই নিয়মগুলি

    অপেক্ষা এ বার ডেপুটি সাব ইনস্পেক্টর পদে যোগ দেবেন উত্তরপ্রদেশ পুলিশে৷ পুলিশবাহিনীতে চাকরি করা তাঁদের পরিবারের কয়েক প্রজন্মের ধারা৷ পরিবারের তৃতীয় প্রজন্মের প্রতিনিধি হিসেবে পুলিশের উর্দি ধারণ করেছেন অপেক্ষা৷

    আরও পড়ুন : আমাদের আনন্দ যেন ওদের কষ্টের কারণ না হয়; দীপাবলিতে পোষ্যকে সুরক্ষিত রাখুন এই উপায়ে!

    বাবার পথ অনুসরণ করা মেয়ের ছবি দেখে নেটিজেনরা উচ্ছ্বসিত৷ কোনও নেটিজেন মন্তব্যে লিখেছেন, ‘আপনাদের দু’জনকেই অভিবাদন৷’ আর এক জন লিখেছেন ‘কী গর্বের মুহূর্ত’৷ আর এক দন লিখেছেন ‘জয় হিন্দ’৷ বাবা-মেয়ের ছবি ইতিমধ্যেই ভেসে গিয়েছে ইমোজিতে৷ লাইক এসেছে ১৬ হাজারের বেশি৷

    Published by:Arpita Roy Chowdhury
    First published: