Home /News /life-style /

Hair Care Tips|| ঘরোয়া পদ্ধতিতে এ ভাবে যত্ন করুন রুক্ষ-শুষ্ক চুলের, সুন্দর-উজ্জ্বলতা আসবে দিন কয়েকেই

Hair Care Tips|| ঘরোয়া পদ্ধতিতে এ ভাবে যত্ন করুন রুক্ষ-শুষ্ক চুলের, সুন্দর-উজ্জ্বলতা আসবে দিন কয়েকেই

Best Ayurvedic hair care tips: আয়ুর্বেদ অনুযায়ী কয়েকটি নিয়ম মানলে চুলের অনেক সমস্যাই দূর হবে অতি সহজে।

  • Share this:

#কলকাতা: চুল পড়া, খুশকি, চুলের ডগা ফেটে যাওয়া, চুল শুষ্ক হয়ে যাওয়া, এবং টাক পড়া কয়েকটি সাধারণ সমস্যা। কিন্তু এই সমস্যাগুলো নিয়েই জেরবার হয়ে যায় মানুষ। অনেকেই জানেন না যে আয়ুর্বেদে এই সমস্ত সমস্যার সমাধান রয়েছে। নিশ্চিন্ত হওয়ার মতো বিষয় হল এই যে আয়ুর্বেদের কোনও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। বরং আয়ুর্বেদ চুলের ক্ষতি সারিয়ে চুল আরও সুন্দর করে তুলতে সক্ষম। আয়ুর্বেদ অনুযায়ী কয়েকটি নিয়ম মানলে চুলের অনেক সমস্যাই দূর হবে অতি সহজে।

কী ভাবে চুলের যত্ন নেয় আয়ুর্বেদ:

আয়ুর্বেদ চিকিৎসায় সবার সমস্যায় এক সমাধান হয় না। আয়ুর্বেদ মতে বলা হয় যে বিভিন্ন লোকের বিভিন্ন সমস্যা থাকে এবং ফলস্বরূপ, প্রত্যেকের ব্যক্তিগত চিকিৎসা পদ্ধতি প্রয়োজন। যাই হোক, কিছু মৌলিক নীতিও আছে যা অনুসরণ করা উচিত। সেগুলো হল-

*মন সুস্থ রাখা

*ইতিবাচক চিন্তা করা

*স্বাস্থ্যকর খাওয়া

*নিয়মিত চুল ধুয়ে তেল মাখা

*স্কাল্প ম্যাসেজ

*ভেষজ চিকিৎসা

*মনকে সুস্থ রাখা এবং ইতিবাচক চিন্তা করা

আয়ুর্বেদ অনুমান করে যে সমস্ত রোগের উৎপত্তি মনের ভিতরে। এর মানে হল যে মানসিক অবস্থা এবং আবেগের ভারসাম্যহীনতার কারণে সমস্যার সৃষ্টি হয়। অনেক গবেষণা এই অনুমানকে সত্য বলে প্রমাণ করেছে। মানসিক স্বাস্থ্যের যত্ন নেওয়া স্বাস্থ্যকর হওয়ার প্রথম ধাপ, এমনকী চুলের বৃদ্ধির ক্ষেত্রেও।

আরও পড়ুন: শীতকালে সব পদেই দেদার খাচ্ছেন ধনেপাতা? এর ফলে কি হচ্ছে জানেন?

স্বাস্থ্যকর খাওয়া:

চুলকে মজবুত ও দীর্ঘস্থায়ী করতে চাইলে স্বাস্থ্যকর খাওয়া প্রয়োজন। স্বাস্থ্যকর খাবার লোমকূপকে ভেতর থেকে পুষ্ট করে এবং তাদের আরও স্থিতিস্থাপক করে তোলে। এর জন্য শরীরের সমস্যা অনুযায়ী ফল ও সবজি খেতে হবে। খাদ্যতালিকায় স্বাস্থ্যকর চর্বি যেমন ঘি বা বাদাম রাখতে হবে। হজমে সাহায্য করে এমন খাবার যেমন জিরা, হলুদ, আদা এবং মধু খেতে হবে।

চুলে তেল দেওয়া এবং ধোয়া:

চুলের তেল ফলিকল এবং মাথার ত্বকে পুষ্টি যোগায় এবং আর্দ্রতা ধরে রাখতে সাহায্য করে, যা চুল পড়া রোধে অপরিহার্য। চুল ধোয়ার পর সবসময় ভালোভাবে তেল দিতে হবে। নারকেল বা তিলের তেল ব্যবহার করা যায় বা আমলা, গোলাপের পাপড়ি, রিঠা মেশানো তেল কেনা যায়। সপ্তাহে দু'বার চুল ধুয়ে তার পর তেল দেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়৷ এর চেয়ে বেশি চুল ধোয়ার ফলে মাথার ত্বকের প্রাকৃতিক তেল নষ্ট হয়ে যেতে পারে।

আরও পড়ুন: শীত এবং কোভিড আবহে সুস্থতা জরুরি! এই ৩ ওষধি উপাদানে ভরসা থাক

স্কাল্প মাসাজ:

আয়ুর্বেদ সুপারিশ করে যে চুল ধোয়ার আগে স্কাল্পে সবসময় গরম তেল দিয়ে মাসাজ করা উচিত। ভেষজ তেল দিয়ে মাথার ত্বকে আলতোভাবে মাসাজ করলে চুলের বৃদ্ধি হয় এবং চুলের গোড়া থেকে আগা পর্যন্ত মজবুত হয়।

ভেষজ চুলের যত্ন:

রিঠা এবং শিকাকাই চুলের বৃদ্ধি করে চুল পড়া রোধ করে।

Published by:Shubhagata Dey
First published:

Tags: Ayurveda, Hair Care

পরবর্তী খবর