corona virus btn
corona virus btn
Loading

ঝড়ের তাণ্ডবে ভেঙেছে বহু ট্রাফিক সিগনাল! মুহূর্তের ভুলে মারাত্মক দুর্ঘটনার আশঙ্কা

ঝড়ের তাণ্ডবে ভেঙেছে বহু ট্রাফিক সিগনাল! মুহূর্তের ভুলে মারাত্মক দুর্ঘটনার আশঙ্কা
এভাবেই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে একাধিক ট্রাফিক সিগনাল৷

পুলিশ সূত্রের খবর, শহরের বিভিন্ন জায়গায় ট্রাফিক পুলিশকেই দীর্ঘ সময় দাঁড়িয়ে গাড়ির যাতায়াত নিয়ন্ত্রণ করতে হচ্ছে।

  • Share this:

#কলকাতা: আমফানের প্রভাবে শহরের একাধিক পরিষেবা বন্ধ। ঝড়ের দাপটে কোথায় যেন থমকে গিয়েছে জীবনটাই। উত্তর কলকাতার তুলনায় দক্ষিণ কলকাতা বেশি ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে। শহরে এখনও বেশিভাগ জায়গায় পড়ে আছে আমফানের তাণ্ডবের নমুনা। দেখলেই যেন গা শিউরে উঠছে, অনেকেই বলছেন শহরে কেউ যেন বুলডোজার চালিয়ে দিয়েছে।

হাজারো গাছ আর ভেঙে পড়া বিদ্যুতের খুঁটির মধ্যেই জ্বলছে ট্রাফিক সিগনালের লাল-সবুজ-হলুদ লাইট। শহরের বিভিন্ন জায়গায় যত্রতত্র পড়ে রয়েছে সিগনাল পোস্ট। শহরের পথে গাড়ি নিয়ে বেরিয়ে চালকরা বুঝতেই পারছেন না কীভাবে পথনির্দেশ মেনে গাড়ি চালাবেন। অনেক জায়গায় সিগনাল পোস্ট দাঁড়িয়ে থাকলেও তা বিদ্যুতের অভাবে বন্ধ, আবার কোথাও ঝড়ের দাপটের দমকা হাওয়ায় ঘুরে গিয়েছে গোটা সিগনাল। শুধুই যে সিগনাল তা নয়, অনেক জায়গায় সিসিটিভিও পড়ে আছে রাস্তার উপরে।

পুলিশ সূত্রের খবর, শহরের বিভিন্ন জায়গায় ট্রাফিক পুলিশকেই দীর্ঘ সময় দাঁড়িয়ে গাড়ির যাতায়াত নিয়ন্ত্রণ করতে হচ্ছে। যুগ্ম কমিশনার সন্তোষ পান্ডে জানান, শহরের প্রায় ৩০০টি সিগন্যাল ভেঙে গিয়েছে। বেশ কিছু সিগনাল মেরামত করা হয়েছে, বাকিগুলো খুব তাড়াতাড়ি  মেরামত হবে। লকডাউনের গাড়ির চাপ কম থাকায় অবশ্য পুলিশের পরিস্থিতি সামাল দিতে কিছুটা সুবিধা হয়েছে। যাঁরা লকডাউনের মধ্যেই রাস্তায় বেরোচ্ছেন, সিগনালিং ব্যবস্থা চালু না থাকায় তাঁদের যথেষ্টই সমস্যা হচ্ছে।

বাইক আরোহী গণেশ জানা বললেন, 'খুবই সমস্যা হচ্ছে,  আসলে বুঝতেই পারছি না দাঁড়াব না যাব।ট একই কথা জানালেন গাড়ি চালক নবীন সেন৷ ট্রাফিক পুলিশ থাকলে তাঁর নির্দেশের দিকেই নজর রাখতে হচ্ছে, আর যে মোড়গুলিতে পুলিশকর্মীরা থাকছেন না, সেখানে দুর্ঘটনার ভয়। ই এম বাইপাসের উপরে অভিষিক্তা মোড়, মুচিবাজার, মিল্ক কলোনি,  রেড রোড, পিটিএস সহ বিভিন্ন জায়গায় দেখা যাচ্ছে এমনই ছবি।

SUSOBHAN BHATTACHARYA

Published by: Debamoy Ghosh
First published: May 24, 2020, 10:33 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर