• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • PRIVATE BUS SERVICE STARTED BUT ARE ALLEGEDLY TAKING MORE FARE DC

অবশেষে রাস্তায় বেসরকারি বাস, কমল ভোগান্তি! অভিযোগ বাড়তি ভাড়া আদায়ের

অভিযোগ বেশ কয়েকটি রুটে লাগামছাড়া বাস ভাড়া আদায়ের।

অভিযোগ বেশ কয়েকটি রুটে লাগামছাড়া বাস ভাড়া আদায়ের।

  • Share this:

#কলকাতা:  সপ্তাহ শেষে এসে অবশেষে বাস ভোগান্তির অবসান। কলকাতা ও শহরতলীর রাস্তায় শুক্রবার বাড়ল বেসরকারি বাসের সংখ্যা। ফলে দিনের ব্যস্ত সময়ে বাস ভোগান্তির যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পেল শহরবাসী। একইসঙ্গে অবশ্য অভিযোগ উঠল সরকার অনুমোদিত ভাড়ার তালিকা ছাড়াই অধিকাংশ বাস রুটে যাত্রীদের থেকে বাড়তি ভাড়া আদায়ের।

১৮, ১৮এ, ১২সি, ১২সি/১, এয়ারপোর্ট বিবাদী বাগ সহ শহরের ততোধিক বাস রুটে সরকার অনুমোদিত কোনও তালিকা ছাড়াই বেশি ভাড়া আদায় করা হল যাত্রীদের থেকে। শহরের ততোধিক রুটে এইভাবে যথেচ্ছ ভাড়া নেওয়ার অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করে নেন অল বেঙ্গল বাস মিনিবাস সমন্বয় সমিতির সাধারণ সম্পাদক রাহুল চট্টোপাধ্যায়। তিনি বলেন,"এমন অভিযোগ আমাদের কাছে এসেছে। বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখতে হবে। বাস মালিক সংগঠন এই প্রক্রিয়ায় বাড়তি ভাড়া আদায়ে অনুমোদন করে না।"

সিটি সুবার্বান বাস সার্ভিসেসের পক্ষ থেকে সাধারণ সম্পাদক টিটু সাহা বলেন,"বাড়তি ভাড়া আদায়ের নির্দিষ্ট অভিযোগ এলে সেই অভিযোগ খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।" তবে অনেক ক্ষেত্রে যাত্রীদের থেকে আবেদনের মাধ্যমে বেশি ভাড়া নেওয়ার ঘটনা ঘটেছে তা প্রকারান্তরে মেনে নেন টিটু সাহা।

শহরের যাত্রীদের একাংশের মতে জ্বালানি তেলের আকাশ ছোঁয়া দামের পরিপ্রেক্ষিতে অল্প-বিস্তর বেশি ভাড়া দিতে অসুবিধা নেই। কিন্তু অভিযোগ বেশ কয়েকটি রুটে লাগামছাড়া বাস ভাড়া আদায়ের। মিনিবাস অপারেটের্স সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক স্বপন ঘোষ বলেন," দু-একটি রুটে বাড়তি ভাড়া নেওয়া হয়েছে। তবে সেটা যাত্রীদের কাছে আবেদনের ভিত্তিতে। কোথাও যাত্রীদের থেকে জোর করে বাড়তি ভাড়া আদায়ের কোন অভিযোগ নেই।"

অন্যদিকে শুক্রবার নিজেদের মধ্যে আলোচনায় বসেন জয়েন্ট কাউন্সিল অফ বাস সিন্ডিকেটের সদস্যরা। সংগঠনের পক্ষ থেকে সাধারণ সম্পাদক তপন বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন,"বাস ভাড়া বাড়ানো ছাড়া বিকল্প উপায় নেই। তাই বাস ভাড়া বাড়ানোর জন্য সরকারের কাছে সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার আবেদন জানানো হবে।" একইসঙ্গে সমবায় ব্যাংক থেকে স্বল্প সুদে বাস মালিকদের ঋণ দেওয়ার আর্জি জানান তপন বন্দ্যোপাধ্যায়।

Published by:Dolon Chattopadhyay
First published: