• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • কলেজ বা রাজভবন নয়,নন্দনে হবে প্রেসিডেন্সির সমাবর্তন

কলেজ বা রাজভবন নয়,নন্দনে হবে প্রেসিডেন্সির সমাবর্তন

File Photo

File Photo

কার্যত এঘটনা নজিরবিহীন ৷ ক্যাম্পাসে নয়, সমাবর্তন এবার নন্দনে ৷

  • Share this:

    #কলকাতা: কার্যত এঘটনা নজিরবিহীন ৷ ক্যাম্পাসে নয়, সমাবর্তন এবার নন্দনে ৷ সোমবার প্রেসিডেন্সির সমাবর্তন অনুষ্ঠান নিয়ে দিনভর নাটকের শেষে এটাই হল কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত।

    ছাত্র বিক্ষোভের জেরে প্রথমে মঙ্গলবার ক্যাম্পাসের সমাবর্তন অনুষ্ঠান বাতিল হয়ে যায়। ঠিক হয়, রাজভবনে প্রতীকী সমাবর্তন অনুষ্ঠান হবে। কিন্তু উপাচার্যকেই জায়গা ঠিক করার দায়িত্ব দেন আচার্য। এরপর কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত নেয়, নন্দন-থ্রিতে হবে সমাবর্তন অনুষ্ঠান। প্রথমবার কোনও বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হতে চলেছে নন্দনে ৷

    চূড়ান্ত টানাপোড়েনের পর অবশেষে সমাবর্তন অনুষ্ঠানের জায়গা ঠিক হয়। মঙ্গলবার নন্দন থ্রি-তে হবে বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন অনুষ্ঠান। একমাস হল হিন্দু হস্টেল ফেরানোর দাবিতে পড়ুয়ারা আন্দোলন করছেন। সোমবার সকাল থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে ঢোকার দু’টি গেট আটকে চলে বিক্ষোভ। মঙ্গলবারের অনুষ্ঠান নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে গভর্নিং বডির বৈঠকও ছিল। কিন্তু বিক্ষোভের জেরে বিশ্ববিদ্যালয়ের গেট থেকেই ফিরে যান উপাচার্য-রেজিস্ট্রার-সহ অধ্যাপকরা। ফলে বাতিল হয়ে যায় বৈঠক। এর পরেই বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত নেয়, প্রেসিডেন্সির ক্যাম্পাসে সমাবর্তন হবে না ৷ তার বদলে রাজভবনে হবে প্রতীকী সমাবর্তন ৷ কিন্তু রাজভবনে সমাবর্তন অনুষ্ঠান হওয়ার সিদ্ধান্তের পর শুরু হয় আবার অন্য নাটক।

    আরও পড়ুন 

    কলকাতা ও গ্রামের ২৮ হাজার পুজোকে ১০,০০০ টাকা করে অনুদানের ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর

    আচার্য কেশরীনাথ ত্রিপাঠী জানিয়ে দেন, ‘প্রেসিডেন্সির সমাবর্তন অনুষ্ঠানের জায়গা ঠিক করার ভার উপাচার্যেরই ৷’ এরপরই তড়িঘড়ি উপাচার্য অনুরাধা লোহিয়া সিদ্ধান্ত নেন, নন্দন থ্রি-তে হবে সমাবর্তন অনুষ্ঠান। যদিও সেখানে কোনও ডিগ্রি প্রদান করা হবে না বলে জানা গিয়েছে ৷ মঙ্গলবার থেকে সকাল ১১ টা থেকে ১ ঘণ্টার অনুষ্ঠানেই শেষ হয়ে যাবে এবছরের সমাবর্তন ৷

    আরও পড়ুন  বেতন ৭৩ হাজার, মেট্রো রেলে আকর্ষণীয় চাকরির সুযোগ

    অন্যদিকে, হস্টেল ফেরানোর দাবিতে বিক্ষোভ দেখালে প্রথম থেকেই সমাবর্তন অনুষ্ঠান বয়কট করার বিরুদ্ধে ছিলেন পড়ুয়ারা। তাই বারবার সমাবর্তন অনুষ্ঠানের জায়গা বদল হওয়া নিয়ে অখুশি তাঁরাও। এদিকে পড়ুয়াদের আন্দোলনে ক্ষুব্ধ শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ও। কিন্তু কর্তৃপক্ষকেও মানবিক হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

    আরও পড়ুন 

    ভুয়ো সার্টিফিকেট জমা দিয়ে শিক্ষকের চাকরি, পুলিশের জালে ২৫০০

    সূত্রের খবর, উপাচার্যের ভূমিকায় অসন্তুষ্ট আচার্য কেশরীনাথ ত্রিপাঠীও। সেকারণেই সমাবর্তন অনুষ্ঠানের সিদ্ধান্ত থেকে সরে দাঁড়ালেন তিনি। তবে পড়ুয়াদের আন্দোলনের চাপে কর্তৃপক্ষ যে অবস্থান থেকে সরছে না, তাও একপ্রকার স্পষ্ট।

    First published: