Home /News /kolkata /
KK death : কেকে-র মৃত্যু নিয়ে বিজেপি 'শকুনের রাজনীতি' করছে! আক্রমণ তৃণমূল নেত্রী শশী পাঁজার

KK death : কেকে-র মৃত্যু নিয়ে বিজেপি 'শকুনের রাজনীতি' করছে! আক্রমণ তৃণমূল নেত্রী শশী পাঁজার

কেকে-র মৃত্যু নিয়ে বিজেপি 'শকুনের রাজনীতি' করছে! আক্রমণ তৃণমূল নেত্রী শশী পাঁজার

কেকে-র মৃত্যু নিয়ে বিজেপি 'শকুনের রাজনীতি' করছে! আক্রমণ তৃণমূল নেত্রী শশী পাঁজার

KK death : রাজ্যের মহিলা ও শিশু উন্নয়ন মন্ত্রী ডঃ শশী পাঁজা বলেছেন, যখন সমগ্র বাংলা রাজ্য কেকে-র মৃত্যুতে শোকাহত, তখন বঙ্গ বিজেপির নেতারা 'শকুনের রাজনীতিতে লিপ্ত হয়েছেন'।

  • Share this:

    #কলকাতা: মঙ্গলবার রাতে কলকাতায় গায়ক কৃষ্ণকুমার কুন্নাথের (কে.কে) দুর্ভাগ্যজনক মৃত্যু নিয়ে রীতিমতো তোলপাড় সোশ্যাল মিডিয়া থেকে রাজনৈতিক মহলও। এবার এই মৃত্যু নিয়ে রাজনীতি করার অভিযোগে বৃহস্পতিবার বিজেপিকে সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেস আক্রমণ করল। রাজ্যের মহিলা ও শিশু উন্নয়ন মন্ত্রী ডঃ শশী পাঁজা বলেছেন, যখন সমগ্র বাংলা রাজ্য কেকে-র মৃত্যুতে শোকাহত, তখন বঙ্গ বিজেপির নেতারা 'শকুনের রাজনীতিতে লিপ্ত হয়েছেন'।

    শশী পাঁজা “আমাদের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে কে-র পরিবার, আত্মীয়স্বজন, বন্ধুবান্ধব এবং ভক্তদের পাশে আন্তরিকভাবে দাঁড়িয়েছিলেন। পশ্চিমবঙ্গ সরকার রাষ্ট্রীয় গান স্যালুট প্রদান করেছে এবং সারা বিশ্বের কেকে-এর শুভানুধ্যায়ীদের প্রতি তার সহানুভূতি ও সমবেদনা জানিয়েছে।”

    মৃতদেহকে রাজনীতিতে লিপ্ত হওয়ার জন্য বঙ্গ বিজেপির ইউনিটকে নিশানা করে, বাংলার মন্ত্রী দাবি করেছিলেন যে এটা দুর্ভাগ্যজনক যে বিজেপি নেতারা "মৃতদেহকে ঘিরে রাজনীতি" করছেন এবং এমনকি বিশিষ্ট গায়ক কে কে-এর উত্তরাধিকারকেও তারা রেহাই দিচ্ছেন না।

    তিনি আরও বলেছেন, “ডাক্তাররা ময়নাতদন্তে তার মৃত্যুর কারণ স্পষ্টভাবে উল্লেখ করেছেন। এটা দুর্ভাগ্যজনক যে বঙ্গ বিজেপির নেতারা রাজ্যের সম্পর্কে কুৎসা করছে এবং বাংলার সামাজিক ও সাংস্কৃতিক কাঠামোকে আক্রমণ করতে বেরিয়েছে। আমরা এই শকুনের রাজনীতির নিন্দা করি যা বিজেপি করে যাচ্ছে।”

    আরও পড়ুন- গাঁটছড়া-মিঠাই ছাড়া সেরা কারা? লালকুঠি বা বউমা একঘর নতুনদের দেখা নেই প্রথম দশে

    এই প্রথম নয় যে বিজেপি নেতারা নোংরা রাজনীতিতে লিপ্ত হয়েছেন। যখন অর্জুন চৌরাসিয়া, ২৬ বছর বয়সী একজন কর্মী, গত মাসে আত্মহত্যা করেছিলেন, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ কলকাতায় এসে, অর্জুনের মৃত্যুকে "রাজনৈতিক হত্যা" বলে অভিহিত করেছিলেন। পরের দিন, যখন ময়নাতদন্তের রিপোর্ট বেরিয়ে আসে, তখন স্পষ্টভাবে উল্লেখ করা হয় যে অর্জুনের মৃত্যুতে "কোনওরকম আক্রমণ" ছিল না এবং তিনি আত্মহত্যা করে মারা গিয়েছেন।

    আবির ঘোষাল

    Published by:Swaralipi Dasgupta
    First published:

    Tags: KK, KK Death

    পরবর্তী খবর