• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • ILLEGAL IVORY COAST CITIZEN ARRESTED FROM NEW TOWN BY KOLKATA POLICE SB

Bangla News: নিউটাউনে গ্রেফতার আইভরি কোস্টের বাসিন্দা! ফুটবলের আড়ালে কী রহস্য, খুঁজছে পুলিশ

প্রতীকী চিত্র

Bangla News: ধৃতের নাম কেইতা ফাওসেনী, তিনি আইভরি কোস্ট দেশের বাসিন্দা বলে জানা গিয়েছে।

  • Share this:
    #কলকাতা: ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ার পরেও অবৈধভাবে ভারতে বসবাস করার অপরাধে গ্রেফতার এক ভিনদেশি। তাঁকে যৌথভাবে গ্রেফতার করেছে কলকাতা পুলিশ ও নিউটাউন থানার পুলিশ। ধৃতের নাম কেইতা ফাওসেনী, আইভরি কোস্ট দেশের বাসিন্দা। গত কাল রাতে কলকাতা পুলিশের নিরাপত্তা নিয়ন্ত্রণ সংস্থা এবং নিউটাউন থানার পুলিশ গোপন সূত্রে খবর পেয়ে হানা দেয় নিউ টাউনের চন্ডীবেড়িয়ার রামকৃষ্ণ পল্লীর একটি বাড়িতে। সেখান থেকে একজন বিদেশি নাগরিককে গ্রেফতার করা হয়। ধৃত ব্যক্তির নাম কেইতা ফাওসেনী। পুলিশ সূত্রে খবর, ২০১৬ সালের ২৩ মার্চ ধৃত ব্যক্তির ভিসার মেয়াদ শেষ হওয়ার পরেও অবৈধভাবে এদেশে বসবাস করছিলেন তিনি। ধৃতকে আজ বারাসাত আদালতে তোলা হবে এবং তাঁকে নিজেদের হেফাজতে নেওয়ার আবেদন জানাবে পুলিশ। ওই ব্যক্তি কী কারনে অবৈধভাবে এতদিন বসবাস করছিল এদেশে, কোনও নাশকতার উদ্দেশ্য ছিল কিনা বা তাঁর সঙ্গে আরও কেউ জড়িত আছে নাকি, সেই সমস্ত বিষয় তদন্ত করে দেখছে পুলিশ। একইসঙ্গে নিউটাউনের যে বাড়িতে ভাড়া থাকত সে, সেই বাড়ির মালিককেও জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ। যদিও পুলিশ প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানতে পেরেছে, ধৃত ব্যক্তি পেশায় একজন ফুটবলার। আরও পড়ুন:  'মানুষ ভোট দিতে পারলে আমিই জিতব', 'নানীবাড়ি' থেকে যুদ্ধে নামছেন প্রিয়াঙ্কা টিবরেওয়াল! প্রসঙ্গত, দিনকয়েক আগেই অবৈধভাবে সীমান্ত পার করার অভিযোগে ঢাকার এক পুলিশ আধিকারিককে গ্রেফতার করেছিল বিএসএফ। সোহেল রানা নামে ওই পুলিশ আধিকারিক ঢাকার বনানী থানায় ইন্সপেক্টর পদমর্যাদায় কর্মরত বলে জানা গিয়েছে। গত শুক্রবার তাঁকে চ্যাংরাবান্ধা থেকে গ্রেফতার করে বিএসএফ। বিএসএফের সূত্রে জানা গিয়েছে, গত শুক্রবার চ্যাংরাবান্ধা সীমান্ত দিয়ে ভারতে প্রবেশ করেন বাংলাদেশে ইন্সপেক্টর পদমর্যাদায় কর্মরত সোহেল রানা। তাঁর কাছে সীমান্ত পারাপারের কোনওরকম বৈধ নথিপত্র ছিল না। নিজেকে বাংলাদেশের পুলিশ আধিকারিক বলে পরিচয় দিয়েছিলেন তিনি। তাঁর বিরুদ্ধে ফরেনার্স অ্যাক্ট ও অবৈধ অনুপ্রবেশ রোধী আইনে অভিযোগ দায়ের হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।
    Published by:Suman Biswas
    First published: