• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • FAKE RAIL DRIVER WHO TRAINED THEM RAIL FORMED INVESTIGATING TEAM TO SEARCH HIM AKD

Fake Rail Driver| ভুয়ো ট্রেন চালকের গুরু কই! সন্ধানে বিশেষ তদন্তকারী দল গঠন করল রেল

ভুয়ো ড্রাইভারের প্রশিক্ষককে খুঁজছে রেল।

Fake Rail Driver| শিয়ালদহ ডিভিশনের সমস্ত ক্রু লবির সিসিটিভি ফুটেজ পরীক্ষা করা হচ্ছে। 

  • Share this:

#কলকাতা: দক্ষিণে গ্রেফতার হওয়া দুই ভুয়ো মোটরম্যান কি আদৌ ট্রেন চালাতেন? এই প্রশ্নে জেরবার পূর্ব রেল। দক্ষিণ রেলের তরফে পাওয়া তথ্য খতিয়ে দেখতে বিশেষ টিম গড়ে তোলা হয়েছে। যারা সবটাই নজরদারি করছেন৷ হাওড়া ও শিয়ালদহ ডিভিশনের সমস্ত ক্রু-লবির সিসি ক্যামেরা ফুটেজ খতিয়ে দেখা হচ্ছে। গত দু'মাসের ফুটেজ চেক করতে শুরু করেছে এই বিশেষ দল।

দক্ষিণ রেল সূত্রে খবর, ধৃত দুই জন শিয়ালদহ ডিভিশনের এক লোকো পাইলটের কাছে প্রশিক্ষণ নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন। কে সেই লোকো পাইলট তার সন্ধানেই চলছে জেরা। তদন্তের স্বার্থে পূর্ব রেলের আধিকারিকরা চাইছেন ধৃতদের এই রাজ্যে নিয়ে এসে জেরা করা হোক। ইতিমধ্যই দুই ভুয়ো সহকারী ট্রেন চালককে গ্রেফতার করা হয়েছে৷ পূর্ব রেলের শিয়ালদহ ডিভিশনে রেলের আই কার্ড নিয়ে দিব্যি রেলের চাকরি করছিলেন বলে জানিয়েছেন  দুই যুবক৷ শিয়ালদহ ডিভিশনের আই কার্ড নিয়ে তামিলনাড়ুর যাওয়ার সময় রেলের পাস দেখিয়ে কাটা টিকিট দেখে সন্দেহ হয় টিকিট পরীক্ষকে৷ তামিলনাড়ুর সালেম ডিভিশনের ইরোড স্টেশনে তাদের দু' জনকে আটক করা হয়৷ রেল পুলিশের হাতে ধৃতদের নাম সাহেল সিং ও ইসরাফিল সিং৷

রেলের তরফে জানানো হয়েছে, ধৃতরা নিজেদের নাম ভাঁড়িয়ে চাকরি করছিল৷ এদের আসল নাম গোপন করা হয়েছে | এদের কাছ থেকে উদ্ধার হওয়া কাগজপত্রও বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে ৷ ধৃতদের  কাছ থেকে উদ্ধার হওয়া আই কার্ড ও নিয়োগপত্রে দেখা গিয়েছে, এরা দু' জনই পূর্ব রেলের শিয়ালদহ শাখায় ২০১৬ সালে চাকরিতে যোগ দেন৷ দীর্ঘ পাঁচ বছর ধরে তারা চাকরি করে৷ যদিও রেল কর্তৃপক্ষের দাবি, তাদের চাকরির যে নিয়োগপত্র সেটিও ভুয়ো ৷ প্রশ্ন উঠছে, তাহলে কীভাবে পাঁচ বছর ধরে এই ভুয়ো ট্রেন চালক দিনের পর দিন কাজ করে গেলো?

যদিও শিয়ালদহ ডিভিশনের এক শীর্ষ আধিকারিক জানিয়েছেন, "এই দুই নামে কেউ শিয়ালদহ ডিভিশনের কোথাও কর্মরত ছিলেন না। আর লোকো পাইলট বা সহকারী লোকো পাইলট যেই হোন না কেন তাদেরকে একটা নির্দিষ্ট নিয়মের মধ্যে দিয়ে যেতে হয়। ইঞ্জিন হোক বা মোটরম্যানের কেবিন ক্রু লবি হয়ে মেডিক্যাল টেস্ট করিয়ে তবেই সেখানে ওঠার ছাড়পত্র মেলে। ফলে কেউ মোটরম্যান বা লোকো পাইলট দাবি করলেই তা সত্যি হয় না।" রেলের তরফে জানানো হয়েছে, ধৃতদের নিয়ে কলকাতায় নিয়ে এসে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। কে বা কারা এই জালিয়াতির সঙ্গে যুক্ত তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

সাধারণ যাত্রীদের প্রশ্ন, দিনের পর দিন দু' জন ভুয়ো চালক ট্রেন চালিয়ে গেল,  অথচ কেউ কেন কিছুই বুঝতে পারলেন না? যাত্রীদের প্রশ্ন, রেলে এমন ভুয়ো চালক আরও নেই তো? রেলের চাকরির নামে প্রতারণার জাল যে এখনও সক্রিয় তা এই ঘটনায় প্রমাণিত | এমন কি, রেলের কর্মীদের মধ্যেই রয়েছে এই প্রতারকদের মাথা ৷ এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই নড়েচড়ে বসেছে রেল৷ দক্ষিণ রেলের মুখ্য জনসংযোগ আধিকারিক জানিয়েছেন, "জেরা করে তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। প্রকৃত ঘটনা কি জানা যাবে শীঘ্রই৷ তবে এরা যাত্রীবাহী ট্রেন চালাননি।"

Published by:Arka Deb
First published: