Home /News /international /
বেঁচে আছেন রুশদি, ১০-১৫ বার ছুরি মারা হয় ঘাড়ে, হেলিকপ্টার করে হাসপাতালে লেখক

বেঁচে আছেন রুশদি, ১০-১৫ বার ছুরি মারা হয় ঘাড়ে, হেলিকপ্টার করে হাসপাতালে লেখক

হেলিকপ্টারে নিয়ে যাওয়ার সময়ে তখনও বোঝা যাচ্ছিল না তিনি কেমন আছেন। তবে নিউইয়র্কের গভর্নর কেথি হোচুল জানিয়েছেন, আপাতত তাঁকে নিরাপদে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে ৭৫ বছরের লেখককে। চিকিৎসা চলছে।

  • Share this:

    #নিউইয়র্ক: বেঁচে আছেন সলমন রুশদি। মঞ্চে উঠেছিলেন  ভাষণ দেওয়ার জন্য। কিন্তু আততায়ীর হামলার জেরে হেলিকপ্টার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হল বুকারজয়ী লেখককে।

    তাঁর স্বাস্থ্য সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য এখনও মেলেনি। তবে যতটুকু জানা যাচ্ছে, হেলিকপ্টারে নিয়ে যাওয়ার সময়ে তখনও বোঝা যাচ্ছিল না তিনি কেমন আছেন। তবে নিউইয়র্কের গভর্নর কেথি হোচুল জানিয়েছেন, আপাতত তাঁকে নিরাপদে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে ৭৫ বছরের লেখককে। চিকিৎসা চলছে।

    আরও পড়ুন: মঞ্চে ভাষণ দেওয়ার সময়ে আচমকা ছুরি-হামলা সলমন রুশদির উপর! মাটিতে লুটিয়ে বুকারজয়ী!

    সংবাদমাধ্যমের সূত্রে খবর, শুক্রবার শতকা ইনস্টিটিউশনে ভাষণ দিতে গিয়েছিলেন বুকারজয়ী লেখক। যেই মুহূর্তে তাঁকে মঞ্চে ডেকে এনে শ্রোতাদের সঙ্গে পরিচয় করানো হচ্ছিল, তখনই এক অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তি ছুটে আসে ঝড়ের মতো। ছুরি বসিয়ে দেয় ৭৫ বছরের লেখকের শরীরে। ১০ থেকে ১৫ বার টানা ছুরি দিয়ে আক্রমণ করা হয় তাঁকে। ঘাড়ের কাছে। ঘুষিও মারে সে। সঙ্গে সঙ্গে হামলাকারীকে গ্রেফতার করেছে নিউইয়র্ক পুলিশ।

    পাশাপাশি অনুষ্ঠানের সঞ্চালকের উপরও সেই ব্যক্তি হামলা চালায়। তাঁকে স্থানী হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। হামলার কারণ এখনও স্পষ্ট নয়।

    আরও পড়ুন: বেবি পাউডারে 'ক্যান্সার' বিষ! বিশ্বজুড়ে পণ্য বিক্রি বন্ধের সিদ্ধান্ত ‘জনসন অ্যান্ড জনসন’ সংস্থার

    তবে এর আগেও এর আগেও ভারতীয় বংশোদ্ভূত সলমন রুশদি হত্যার হুমকি পেয়েছিলেন। তাঁর লেখা 'দ্য স্যাটানিক ভার্সেস' (১৯৮০)-এর কারণে। ১৯৮৮ থেকে এই বই ইরানে নিষিদ্ধ। অভিযোগ ছিল, ইসলামকে অপমান করা হয়েছে সেই বইতে। 'ধর্মদ্রোহ'-এর অভিযোগে তাঁর নামে সে দেশে মৃত্যু পরোয়ানাও জারি হয়েছিল। তাঁর মাথার বিনিময়ে ৩০ লক্ষ ডলার ঘোষণা করা হয়। জাপানি ভাষায় এই বই অনুবাদ করেছিলেন হিতোসি ইগারাসি। তাঁকে ছুরি মেরেই হত্যা করা হয়।

    Published by:Teesta Barman
    First published:

    Tags: Salman Rushdie

    পরবর্তী খবর