নৃত্যকলা ও রবীন্দ্রনাথ ! তাঁর হাত ধরেই নতুন যুগের সূচনা হয়েছিল

photo source collected

ঠাকুর নিজের চেতনা দিয়ে নৃত্য শিল্পকে অনুভব করেছিলেন, মর্যাদা দিয়েছিলেন। সেকথা অস্বীকার করার উপায় নেই।

  • Share this:

    #কলকাতা:  নাচ আর রবীন্দ্রনাথ, জড়িয়ে রয়েছে অঙ্গাঙ্গীভাবে ৷  বঙ্গদেশে নৃত্যের জগতে তাঁর অবদান অস্বীকার করার উপায় নেই। কলকাতায় সে সময় বাবুদের রাজত্ব ৷ বাবু সংস্কৃতি ভাবাপন্ন মানুষেরা ক্রমশই দেশীয় সংস্কৃতি-ঐতিহ্যকে ছোট নজরে দেখতে শুরু করেন ৷ আর এর ফলস্বরূপ নৈতিকতার অবনমন ঘটেছিল অনেক ক্ষেত্রেই ৷ মধ্যবিত্ত অভিজাত সমাজ থেকে সুচারুরূপে নৃত্যকলার সমাদর বর্জিত হল ৷ অবশ্য এ শুধু বাংলারই ছবি নয়, প্রায় গোটা ভারতবর্ষের ছবি ছিল এটাই ৷ সে সময়ে রবীন্দ্রনাথের আবির্ভাব ও প্রচেষ্টার আগে পর্যন্ত শিক্ষিত সমাজে নৃত্যকলার কোনও শ্রদ্ধার আসন ছিল না ৷ স্বভাবই নৃত্যশিল্পের মান ক্রমশই তলানিতে গিয়ে ঠেকে ৷

    সে জায়গাতে দাঁড়িয়ে রবি ঠাকুর শিক্ষার অন্যতম বাহনরূপে নৃত্যশিল্পের প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করেছিলেন ৷ তিনি বিশ্বভারতীর প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্য ব্যক্ত করে লিখেছিলেন-‘ ব্যাপকভাবে এই সংস্কৃতি অনুশীলনের কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করে দেব, শান্তিনিকেতন আশ্রমে এই আমার অভিপ্রায় ছিল ৷ আমাদের দেশের বিদ্যালয় পাঠ্যপুস্তকের পরিধির মধ্যে জ্ঞানচর্চার যে সংকীর্ণসীমা নির্দিষ্ট আছে কেবলমাত্র তাই নয়, সকলরকম কারুকার্য, শিল্পকলা, নৃত্যগীতবাদ্য, নাট্যাভিনয় এবং পল্লীহিত সাধনের জন্যে যে সকল শিক্ষা ও চর্চার প্রয়োজন সমস্তই সংস্কৃতির অন্তর্গত বলে স্বীকার করব ৷’ তৎকালীন সমাজে রবীন্দ্রনাথের হাত ধরেই শিক্ষার অঙ্গ হিসেবে নৃত্যকলার স্বীকৃতি। এবং এই প্রয়াসই আজকের নৃত্যকলার অনুশীলন ও প্রসারের মূল কারণ ৷

    ‘জাভা যাত্রীর পত্র’তে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর লিখেছেন-‘মানুষের জীবন বিপদ-সম্পদ-সখ-দুঃখের আবেগে নানাপ্রকার রূপে ধ্বনিতে-স্পর্শে লীলায়িত হয়ে চলেছ, তার সমস্তটা যদি কেবল ধ্বনিতে প্রকাশ করতে হয় তাহলে সে একটা বিচিত্র সঙ্গীত হয়ে ওঠে, তেমনি আর সমস্ত ছেড়ে দিয়ে সেটাকে কেবলমাত্র যদি গতি দিয়ে প্রকাশ করতে হয় তাহলে সেটা হয় নাচ ৷ ছন্দোময় সুরই হোক আর নৃত্যই হোক তার একটা গতিবেগ আছে, সেই বেগ আমাদের চৈতন্যে রসচাঞ্চল্য সঞ্চার করে তাকে প্রবলভাবে জাগিয়ে রাখে ৷ "  এই চৈতন্যকে গতিশীল করার সাধনায় ছন্দ প্রয়োগের প্রথম প্রয়াসেই যে নৃত্যের উৎস তাও রবি ঠাকুর সুন্দরভাবে ব্যাখ্যা করে গিয়েছেন ৷ কোথাও তিনি বলেছেন, ‘‘মানুষ তার প্রথম ছন্দের সৃষ্টিকে জাগিয়েছে আপন দেহে ৷ কেননা তার দেহ ছন্দ রচনার উপযোগী ৷ আবার নৃত্যকলার প্রথম ভূমিকা দেহসঞ্চালনে অর্থহীন সুষমায় ৷ তাতে শুধুমাত্র ছন্দের আনন্দ ৷’

    অর্থাৎ গুরুদেব এই ধরনের নান উদ্ধৃতির মধ্য দিয়ে নৃত্যকলার প্রতি তাঁর প্রগাঢ় অনুরাগ ও শ্রদ্ধা প্রকাশ পায় ৷ এই কারণে কবিগুরুর কাছে নৃত্যকলা মর্যাদা পেয়েছিল দেহের চলমান শিল্পরূপে ৷ তাঁর মনকে অনাবিল আনন্দে আমোদিত করেছে এর ছন্দের আনন্দে ৷ আর সেই কারণে তিনিই আধুনিক ভারতে প্রথম গড়ে তুলেছিলেন শান্তিনিকেতনে নাচের একটি প্রাণবান আন্দোলন ৷

    শান্তিনিকেতনে বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯০১ সালের ডিসেম্বর মাসের শেষ দিকে ৷ ভারতবর্ষের বিভিন্ন জায়গা থেকে নৃত্য শিক্ষাগুরু আনিয়ে রবীন্দ্রনাথ শান্তিনিকেতনে নৃত্যশিক্ষা ও চর্চার উন্মুক্ত পরিবেশ গড়ে তোলেন ৷ শোনা যায় তৎকালীন কোচিন রাজ্যের রাজা গুরুদেবের অনুরোধে কল্যাণী আম্মা নামে একজন ‘নর্তকী’কে শান্তিনিকেতনে পাঠান ৷ তাঁর খরচ বহন করতেন কোচিনের রাজাই ৷ কল্যাণী আম্মা তখন মধ্যবয়সী ৷ কোচিনে দেবদাসী নৃত্যে এক সময় তিনি বেশ নামী শিল্পী হিসেবে পরিচিত ছিলেন ৷ তিনি এসে শান্তিনিকেতনে শিখিয়েছিলেন স্বরম, কইকুট্টিকলি ও কলামুল্লি নামে কয়েকটি নাচ ৷ কথাকলির নৃত্যগুরুও এসেছিলেন কেরালা থেকে ৷ কল্যাণী আম্মা কেরলে ফিরে যাওয়ার পর কোচিনের রাজা ভেলায়ুম মেনন নামে একজন নৃত্যশিল্পীকে পাঠিয়েছিলেন ৷

    শাস্ত্রীয় নৃত্যের পাশাপাশি লোকানৃত্যের ধারাকে গুরুদেব সম মর্যাদার আসনে বসিয়েছিলেন ৷ তিনি শান্তিনিকেতনের ছাত্র-ছাত্রীদের ময়ূরভঙ্গ ছৌ শেখানোর জন্য বারিপদা থেকে শিক্ষক আনাবার উদ্যোগ নিয়েছিলেন ৷ কিন্তু শেষ পর্যন্ত তা কার্যকর হয়নি ৷ ১৯২৪ সালে শান্তিনিকেতনের অধ্যাপক জাহাঙ্গীর ভকিলের স্ত্রী বিশ্বভারতীর মেয়েদের গুজরাতি গরবা শেখান ৷ গুরুদেবের অনুরোধে গুরুসদয় দত্ত সিউড়ি থেকে রায়বেঁশে নাচের শিক্ষক পাঠান ৷ নানা প্রচেষ্টায় গুরুদেব শান্তিনিকেতনে গড়ে তুলতে পেরেছিলেন নাচের একটি প্রাণবন্ত আন্দোলন ৷

    ১৯১১ সালের বৈশাখে ‘রাজা’ নাটক হয় বিদ্যালয়ের ছাত্র-অধ্যাপকদের সহযোগ ৷ তাদের মধ্যবর্তী ঠাকুরদারূপী কবিগুরুর নৃত্য সবাইকে মুগ্ধ করেছিল ৷ ১৯১৪ সালের বৈশাখে ‘অচলায়তন’-এর অভিনয় হয় ৷ ১৯১৫ খ্রিস্টাব্দে শান্তিনিকেতনে এবং ১৯১৬ সালে কলকাতায় ‘ফাল্গুনী’ নাটকে অভিনয়ে অন্ধ বাউলের ভূমিকায় গুরুদেব খুবই দক্ষতার সঙ্গে নাচ করেছিলেন ৷ তবে এটাই প্রথম নয় বিভিন্ন লেখালেখি থেকে জানা যায়, ১৯ বছর বয়সে রবি ঠাকুর প্রথমবার ইংল্যান্ডে যান ৷ সে দেশে তিনি ছিলেন প্রায় দেড় বছর ৷ সে সময় তাঁকে ইংল্যান্ডের সামাজিক নৃত্য শিখতে হয়েছিল ৷ পার্টিতে সেই ধরনের নৃত্যে অংশগ্রহণ করতে হয়েছিল ৷ পরবর্তীকালে এই নাচের আঙ্গিকেই ‘আয় তব সহচরী হাতে হাতে ধরি ধরি’ নৃত্যটি তৈরি হয়েছিল ৷ এমন হাজারো উদাহরণ র‍য়েছে। ঠাকুর নিজের চেতনা দিয়ে নৃত্য শিল্পকে অনুভব করেছিলেন, মর্যাদা দিয়েছিলেন। সেকথা অস্বীকার করার উপায় নেই। তাই বাংলা সাহিত্যের সঙ্গে নৃত্যশিল্পেও ছড়িয়ে আছেন রবীন্দ্রনাথ।

    Published by:Piya Banerjee
    First published: