• Home
  • »
  • News
  • »
  • explained
  • »
  • Explained : শরীরচর্চা বন্ধ করে দিলে কী কী সমস্যা হতে পারে? জেনে নিয়ে সতর্ক হন এখনই!

Explained : শরীরচর্চা বন্ধ করে দিলে কী কী সমস্যা হতে পারে? জেনে নিয়ে সতর্ক হন এখনই!

নিয়মিত ব্যায়াম এবং সুষম আহার শরীরকে একাধিক রোগের আক্রমণ থেকে রক্ষা করে

নিয়মিত ব্যায়াম এবং সুষম আহার শরীরকে একাধিক রোগের আক্রমণ থেকে রক্ষা করে

Work Out : শরীরচর্চা বন্ধ করলে কী কী সমস্যা তৈরি হতে পারে? জেনে নেওয়া যাক এক এক করে!

  • Share this:

#কলকাতা: শরীর সুস্থ রাখতে প্রয়োজন নিয়মিত শরীরচর্চা (physical exercise) । নিয়মিত ব্যায়াম এবং সুষম আহার শরীরকে একাধিক রোগের আক্রমণ থেকে রক্ষা করে। বিশেষজ্ঞরা তাই নিয়মিত ব্যায়াম (exercise) করার পরামর্শ দেন। নিয়মিত শরীরচর্চা (work out) করলে শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ যেমন সুস্থ থাকে তেমনই তা শরীরে মেদের আধিক্য কমায়। পাশাপাশি হাড়ের কোনও সমস্যা হলে তা-ও সারিয়ে তুলতে সাহায্য করে। কিন্তু কোনও কারণে শরীরচর্চা বন্ধ করলে কী কী সমস্যা তৈরি হতে পারে? জেনে নেওয়া যাক এক এক করে!

আমরা প্রত্যেকেই জানি নিয়মিত শরীরচর্চা করলে শরীরের সমস্ত কাজকর্ম সঠিক ভাবে সম্পন্ন হয় এবং সমস্ত অঙ্গপ্রত্যঙ্গ ভাল থাকে। তাই বিশেষজ্ঞরা পরামর্শ দেন প্রতিনিয়ত ৪০ থেকে ৫০ মিনিট শরীরচর্চা করা প্রয়োজন। কিন্তু অনেকেই আছেন যাঁরা কোনও দিন শরীরচর্চা বা ব্যায়াম করেন না। এমনকী, অনেকের ক্ষেত্রে দেখা যায় প্রথমের দিকে শরীরচর্চা শুরু করলেও তা নিয়মিত না করে মাঝপথে বন্ধ করে দেন। কিন্তু এতে কী প্রভাব পড়তে পারে?

যে সব প্রভাব পড়ার সম্ভাবনা থাকে-

আমরা প্রত্যেকেই এই বিষয়ে নিশ্চিত যে বর্তমানে সময়ে আমরা যে ধরনের জীবনধারণ করি তাতে শরীরে অনেক খারাপ প্রভাব পড়ে। অত্যধিক বাইরের খাবার খাওয়া, অধিক রাত পর্যন্ত জেগে থাকা, স্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহণ না করা, মদ্যপান, ধূমপান ইত্যাদি সব কিছুই প্রভাব ফেলে শরীরে। তাই যদি এর সঙ্গে শরীরচর্চা না করা হয় তাতে শরীর আরও খারাপ হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। বিশেষজ্ঞরা নিয়মিত শরীরচর্চার পরামর্শ দিলেও অনেকে তা মানেন না, এমনকী অনেকে একদমই শরীরচর্চা করেন না।

বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, নিয়মিত শরীরচর্চা করলে প্রতিটি মানুষকে অত্যন্ত সবল দেখায় এবং বয়স বৃদ্ধির প্রভাব পড়ে না। ল্যানসেটের একটি সমীক্ষায় জানা গিয়েছে, নিয়মিত শরীরচর্চা যাঁরা করেন না তাঁদের আয়ু তুলনামূলক কম হয়। এবং বিশ্বের পরিসংখ্যানে যাঁরা শরীরচর্চা করেন না তাঁদের মৃত্যুর সংখ্যা বেশি। নিয়মিত শরীরচর্চা না করলে কী কী সমস্যা দেখা দিতে পারে তার কয়েকটি উদাহরণ-

হার্টের কার্যক্ষমতা কমে যায়- নিয়মিত শরীরচর্চার ফলে হার্ট অত্যন্ত সুস্থ থাকে। কিন্তু শরীরচর্চা বন্ধ করে দিলে হৃদযন্ত্রের কার্যক্ষমতা কমে যায়। যদি নিয়মিত অ্যারোবিক এবং কার্ডিও ব্যায়াম করা যায় তাহলে হার্টের সমস্ত কাজকর্ম সঠিকভাবে সম্পন্ন হয়। এছাড়াও হার্ট সুস্থ রাখার যে উপাদানগুলি প্রয়োজন হয় সেগুলি সঠিক মাত্রায় থাকে। যদি কেউ নিয়মিত শরীরচর্চা বা ব্যায়াম না করে তাহলে তিনি লক্ষ করবেন তাঁর হৃদযন্ত্র সঠিকভাবে কাজ করছে না। এবং বেশ কিছু সমস্যার সম্মুখীন হবেন। যা দৈনন্দিন কাজের ক্ষেত্রেও ব্যাপক প্রভাব পড়বে। হার্টরেটের ক্ষেত্রেও এর প্রভাব পড়ার সম্ভাবনা থাকে। শ্বাসপ্রশ্বাসের সমস্যা দেখা দেওয়ার পাশাপাশি কোলেস্টেরল লেভেল বেড়ে যেতে পারে।

আরও পড়ুন : কোভিড সংক্রমণ থেকে সেরে ওঠার পরও নানা উপসর্গ? কী ভাবে কাটিয়ে উঠবেন জটিলতা?

পেশি দুর্বল হতে পারে-

নিয়মিত শরীরচর্চা না করলে শরীরের বিভিন্ন মাসল দুর্বল হয়ে যেতে পারে। কারণ পেশি সতেজ রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে দৈনন্দিন শরীরচর্চা। নিয়মিত শরীরচর্চা না করলে পেশি যে শুধু শিথিল হয়ে পড়ে তা নয়, পেশির ক্ষমতা ধীরে ধীরে কমতে থাকে। শরীর দুর্বল হতে থাকে। এক্ষেত্রে দেখা যায় অনেক সময় সামান্য ওজন তোলার ক্ষেত্রেও সমস্যা তৈরি হয়। পেশির কাজকর্মের ক্ষেত্রেও সমস্যা দেখা দেয়। তাই বিশেষজ্ঞরা পরামর্শ দেন, যত কাজের চাপ থাকুক না কেন, নিয়মিত শরীরচর্চা করা প্রয়োজন। এতে শরীরের পেশি সুস্থ থাকে।

ঘুমোতে সমস্যা-

অনেকের ঘুমের ক্ষেত্রে একাধিক সমস্যা দেখা দেয়। সারাদিন কাজ কর্ম করার পরেও রাতে ঘুম আসে না অনেকের। এই সমস্যা মেটাতে পারে শরীরচর্চা। অন্য দিকে, ঘুমের সঙ্গে শরীর সুস্থ রাখার সম্পর্ক রয়েছে। ঘুম পর্যাপ্ত না হলে শরীর সুস্থ থাকে না। এমনকী কাজ করার ক্ষেত্রেও কোনও কোনও ইচ্ছা থাকে না। শরীরচর্চার ফলে শরীরের ক্যালোরি খরচ হয়। এতে শরীর দুর্বল হয়ে পড়ে। এর ফলে রাতে অত্যন্ত তাড়াতাড়ি ঘুম হয়। এবং অত্যন্ত ভাল ঘুম হয়। যা শরীরের জন্য অত্যন্ত জরুরি। এর পাশাপাশি ঘুমের ফলে অন্য কাজ করার ক্ষেত্রেও এনার্জি পাওয়া যায়। পর্যাপ্ত ঘুম না হলে যে শুধু কাজের ইচ্ছা থাকে না এমনটা নয়, শরীরের বিভিন্ন হরমোনেরর কার্যকারিতার উপরেও প্রভাব পড়ে। ওজন বৃদ্ধি, মানসিক স্বাস্থ্যের সমস্যা সহ একাধিক সমস্যা দেখা দেয়।

আরও পড়ুন : টিকার সম্পূর্ণ ডোজ নিয়েও কোভিডে আক্রান্ত, কাদের সংক্রমণের সম্ভাবনা সব চেয়ে বেশি?

রক্তের শর্করার মাত্রার তারতম্য ঘটে-

ভারতে অধিকাংশ জনই টাইপ ২ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত। তাই রক্তে সর্করার মাত্রার সঠিক রাখা অন্যতম বড় চ্যালেঞ্জ। রক্তে শর্করার মাত্রা সঠিক রাখতে অন্যতম উপায় শরীরচর্চা। কারণ বিভিন্ন ব্যায়ামের ফলে শরীরে কার্বোহাইড্রেট সহ একাধিক মাত্রা সঠিক মাত্রায় বজায় থাকে।

মানসিক সমস্যা দূর করে-

বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গিয়েছে শরীরচর্চার ফলে একাধিক হরমোনের ক্ষরণ সঠিক মাত্রায় হয়। যা মানসিক চাপ দূর করতে সাহায্য করে। শুধু তাই নয়, বিভিন্ন হরমোনের নিঃসরণের ফলে মানসিক স্বাস্থ্যও ভাল থাকে। বর্তমান পরিস্থিতিতে অনেক মানুষ বিভিন্ন কারণে মানসিক চাপে জর্জরিত। এবং বিশেষজ্ঞদের একাংশের মত যেভাবে মানসিক চাপ বাড়ছে তাতে রীতিমতো আশঙ্কার। তাই মানসিক চাপ নিয়ন্ত্রণে রাখার বিভিন্ন পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। কিন্তু এক্ষেত্রেও শরীরচর্চার ভূমিকা রয়েছে বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। তাঁদের বক্তব্য প্রতিনিয়ত ৩০ থেকে ৪০ মিনিট শরীরচর্চা করলে মানসিক চাপ নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব।

এছড়াও বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে একাধিক সমস্যা দেখা যায়। কিডনির সমস্যা, লিভারের সমস্যা সহ পেশি, হাড় ও বিভিন্ন হাঁটু, কনুই সহ বিভিন্ন স্থানের একাধিক সমস্যা দেখা যায়। ফলে বসা, ওঠার ক্ষেত্রেও সমস্যা দেখা দেয়। বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ নিয়মিত শরীরচর্চার ফলে এই সমস্যা থেকে মুক্তি লাভ সম্ভব। এমন অনেক ক্ষেত্রে দেখা গিয়েছে শুধুমাত্র যোগব্যায়াম করে শরীরের বিভিন্ন অংশের ব্যথা সারানো সম্ভব হয়েছে।

এবিষয়ে অনেকেই প্রশ্ন করেন, শরীর চর্চার জন্য কি জিম বা কোনও যোগ ব্যায়াম সেন্টারে যাওয়া বাধ্যতামূলক? যদিও এবিষয়ে বিশেষজ্ঞদের মত, এই ধরনের কোনও বাধ্যবাধকতা নেই। বাড়িতেই ফ্রি হ্যান্ড অনুশীলন করা যেতে পারে। কারণ শরীরচর্চার শুরুতেই যদি ভারী সামগ্রী তোলা হয় তাহলে তার উল্টো প্রতিক্রিয়া তৈরি হতে পারে। সেই কারণে ফ্রি হ্যান্ড অনুশীলনে জোর দেওয়ার কথা জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

Published by:Arpita Roy Chowdhury
First published: