অস্বাভাবিক দ্রুতগতিতে পরিণত বয়সে পৌঁছে যায় ছায়াপথ, জানতে পেরে থ' বিজ্ঞানীরা

অস্বাভাবিক দ্রুতগতিতে পরিণত বয়সে পৌঁছে যায় ছায়াপথ,  জানতে পেরে থ' বিজ্ঞানীরা
এত দিন পর্যন্ত মহাকাশবিদরা ভাবতেন যে ছায়াপথের বিবর্তন হয় বেশ ধীর গতিতে

এত দিন পর্যন্ত মহাকাশবিদরা ভাবতেন যে ছায়াপথের বিবর্তন হয় বেশ ধীর গতিতে

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: জন্ম, বৃদ্ধি এবং ক্ষয়- এই তিন পর্যায় ধরে এই ব্রহ্মাণ্ডের যে কোনও কিছুর স্থায়িত্ব নির্ধারণ করা হয়। আর এক্ষেত্রে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি ভূমিকা পালন করে বয়সের হিসেব। এটাই বুঝিয়ে দেয় যে সময়ের কোন ধাপে কী ভাবে বিবর্তিত হবে একটি প্রাণ বা বস্তু। ছায়াপথও এর ব্যতিক্রম নয়। বিশেষ করে তার ক্ষেত্রে এই বয়সের পরিমাপ খুব জটিল একটি বিষয়। কেন না, তা নিত্য পরিবর্তনশীল, তৈরি হয়ে চলেছে একটু একটু করে।

এত দিন পর্যন্ত মহাকাশবিদরা ভাবতেন যে ছায়াপথের বিবর্তন হয় বেশ ধীর গতিতে। কেন তাঁরা এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছিলেন, তা জানার আগে একবার ছায়াপথে কী কী থাকে এবং তা কী ভাবে তৈরি হয়, সেই কথাটাও না বললেই নয়! মোটামুটি ভাবে বলা যায় যে ব্রহ্মাণ্ড সৃষ্টি হওয়ার প্রাথমিক পর্যায়ে যে ক্যাওস বা মহাজাগতিক বিশৃঙ্খলা জন্ম নিয়েছিল, তার পরিপ্রেক্ষিতে মহাশূন্যে নানা রকমের গ্যাস জমাট বাঁধে, নক্ষত্রমণ্ডলী জন্ম নেয় এবং গ্যাস নিঃসরণ হতে থাকে। এর পরের ধাপে তৈরি হয় ছায়াপথ।

তৈরি তো হল, কিন্তু একটি ছায়াপথে সাধারণত কী কী থাকে?


নানা রকমের ঘুরন্ত চাকতি, সর্পিলাকার বাহু এবং নক্ষত্রমণ্ডলী- এই তিন হল কোনও ছায়াপথের খুব পরিচিত সাধারণ বৈশিষ্ট্য। বেশিরভাগ সময়েই সাধারণত পরস্পরের সঙ্গে সংকর্ষিত অবস্থায় এই নক্ষত্রমণ্ডলী ছায়াপথের কেন্দ্রে বিরাজ করে থাকে। এত দিন পর্যন্ত বিজ্ঞানীরা ভাবতেন যে এই সব লক্ষণগুলো একটি পূর্ণবয়স্ক, অর্থাৎ সম্পূর্ণরূপে তৈরি হয়ে যাওয়া ছায়াপথের লক্ষণ। কিন্তু আতাকামার লার্জ মিলিমিটার/সাবমিলিমিটার অ্যারে-র মাধ্যমে বিজ্ঞানীরা যখন ALESS 073.1 নামের ছায়াপথেও এই সব বৈশিষ্ট্য খুঁজে পেলেন, তখন তাঁদের চমকে উঠতে হল!

কেন না, এই ছায়াপথটির বয়স খুব একটা বেশি নয়! অন্তত তেমনটাই দাবি করেছেন কার্ডিফ ইউনিভার্সিটির জ্যোতির্বিদ ডক্টর ফেদেরিকো লেলি। তিনি জানিয়েছেন যে এই ছায়াপথটি এখনও রয়েছে পরিবর্তনশীল অবস্থায়, তা একটু একটু করে তৈরি হচ্ছে। অতএব, ছায়াপথের বিকাশ এবং সেই সংক্রান্ত গতি সম্পর্কে এত দিন পর্যন্ত যে সব তথ্য প্রচলিত ছিল, তা নিয়ে নতুন করে চিন্তাভাবনার প্রয়োজন রয়েছে। ALESS 073.1 ছায়াপথের নানা রকমের ঘুরন্ত চাকতি, সর্পিলাকার বাহু এবং নক্ষত্রমণ্ডলী অবস্থান প্রমাণ করে দিয়েছে যে আদতে ছায়াপথের বিকাশ ঘটছে খুব তাড়াতাড়ি! সেই জন্যই মন্তব্য করেছেন লেলি- এই পর্যবেক্ষণ মহাকাশ নিয়ে ভবিষ্যতের গবেষণায় সুদূরপ্রসারী প্রভাব ফেলতে চলেছে!

Published by:Ananya Chakraborty
First published: