Home /News /explained /
Covid 19 | Explained : শুধু শ্বাসকষ্টই নয়, কোভিড সংক্রমণের ফলে দেখা দেয় পেট ব্যথার মতো উপসর্গও, জানুন বিশদে!

Covid 19 | Explained : শুধু শ্বাসকষ্টই নয়, কোভিড সংক্রমণের ফলে দেখা দেয় পেট ব্যথার মতো উপসর্গও, জানুন বিশদে!

File photo

File photo

Covid 19 | Explained : কয়েকটি উপসর্গ রয়েছে যা ব্যক্তিভেদে ভিন্ন। এরকমই একটি উপসর্গ হল পেট ব্যথা (Stomach Ache)।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: মানুষের শরীরে এমন কোনও অঙ্গ নেই যেখানে করোনাভাইরাস (Coronavirus) প্রভাব ফেলে না। ২০১৯ সালে চিনের (China) উহানে (Wuhan) প্রথম করোনাভাইরাসের অস্তিত্ব পাওয়া গিয়েছিল, এখনও পর্যন্ত এই ভাইরাসের বেশ কয়েকটি প্রজাতি (Variants) ও রূপের (Strain) উদ্ভব হয়েছে। যার মধ্যে ৫টির প্রকৃতি আক্রমণাত্মক এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO) দ্বারা উদ্বেগের প্রজাতি হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছে। শুধু তাৎক্ষণিক সংক্রমণ নয়, করোনাভাইরাসের প্রভাব সুস্থ হওয়ার কয়েক মাস পরেও মানুষের মধ্যে দেখা যায়।

শরীরে করোনাভাইরাস আক্রমণের উপসর্গ নির্ভর করে হোস্টের ইমিউন সিস্টেম (Immune System) প্যাথোজেনের (Pathogen) প্রতি যেভাবে প্রতিক্রিয়া দেখায় তার উপর। যদিও জ্বর, গলাব্যথা, সর্দি কোভিড সংক্রমণের কয়েকটি সাধারণ উপসর্গ, তবে আরও কয়েকটি উপসর্গ রয়েছে যা ব্যক্তিভেদে ভিন্ন। এরকমই একটি উপসর্গ হল পেট ব্যথা (Stomach Ache)।

কোভিড ও পেটে ব্যথা: পেটে ব্যথা কোভিডের আরকটি উপসর্গ। একটি সাম্প্রতিক সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে যে ৫ জন কোভিড আক্রান্তের মধ্যে ১ জনের অন্তত একটি গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল উপসর্গ ছিল, যেমন ডায়রিয়া, বমি বা পেটে ব্যথা। হাসপাতালে ভর্তি হওয়াদের মধ্যে ২৫.৯ শতাংশের গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল সমস্যা ছিল। ২০২০ সালের মার্চ মাসে, যখন কোভিড রোগকে বিশ্বব্যাপী অতিমারী ঘোষণা করা হয়েছিল, তখন ফোর্বস-এর একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল যে পেটে ব্যথা এবং ডায়রিয়া কোভিড সংক্রমণের প্রথম উপসর্গ হতে পারে। প্রতিবেদনে আমেরিকান জার্নাল অফ গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজিতে প্রকাশিত একটি গবেষণারও উল্লেখ করা হয়। তাতে বলা হয়েছে, "যে কোভিড রোগীদের গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল উপসর্গগুলি ধরা পড়ছিল তাদের মৃত্যুহার উপসর্গহীন রোগীদের তুলনায় বেশি ছিল। শ্বাসকষ্টের সমস্যার আগে বমি বমি ভাব, বমি বা ডায়রিয়া কোভিড হওয়ার প্রাথমিক লক্ষণ।" ২৫ হাজার ২৫২ জন ব্যক্তির উপর আরেকটি গবেষণায় দেখা গিয়েছে যে কোভিডের সাধারণ গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল উপসর্গগুলি (Gastrointestinal Symptoms) হল খিদে না পাওয়া (Lack Of Appetite), গন্ধ ও স্বাদ কম পাওয়া বা না পাওয়া (Loss Of Smell And Taste), ডায়রিয়া (Diarrhoea), বমি বমি ভাব (Nausea), পেটে ব্যথা এবং রক্ত বমি (Blood Vomiting)।

পেটে ব্যথা কেমন হয়?

ZOE কোভিড স্টাডি বলছে, কোভিডের কারণে পেটের মাঝখানে ব্যথা হয়। পেটের চারপাশেও ব্যথা অনুভব হয়। পেটে ব্যথা (Abdominal Pains) সাধারণত অসুস্থতার প্রথম কয়েক দিনে দেখা দেয়। তবে, বেশিরভাগ লোকের মধ্যে খুব দ্রুত (এক বা দুই দিনের মধ্যে) চলে যাওয়ার প্রবণতা থাকে। এটিকে মোটামুটি বিরল উপসর্গ হিসাবে উল্লেখ করা হয়। গবেষণায় বলা হয়েছে যে এটি যদি ডায়রিয়া এবং শ্বাসকষ্টের মতো অন্যান্য উপসর্গগুলির সঙ্গে দেখা যায় তবে একজনের অবশ্যই টেস্ট করা উচিত। হালকা সংক্রমণের ক্ষেত্রে পেটে ব্যথা সাধারণত মাথাব্যথা এবং ক্লান্তির সঙ্গে দেখা দেয়। প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে গন্ধ না পাওয়া এবং অস্বাভাবিক পেশী ব্যথাও হতে পারে। জ্বর, গলা ব্যথার পাশাপাশি পেটে ব্যথাও হতে পারে।

করোনাভাইরাস কীভাবে পেটকে প্রভাবিত করে?

২০২০ সালের নভেম্বরের একটি গবেষণায় দেখা গিয়েছে যে করোনাভাইরাসের এনজিওটেনসিন রূপান্তরকারী এনজাইম ২ (ACE2)-র কার্যকলাপকে ব্যাহত করে এবং সাইটোটক্সিসিটি প্ররোচিত করে অন্ত্রের এপিথেলিয়ামকে সংক্রামিত করে। তারপরে এটি মলের মধ্যে পড়ে, ফলে গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল উপসর্গ দেখা যায়। করোনাভাইরাস রিসেপ্টর হিসাবে ACE-2 প্রোটিন ব্যবহার করে অন্ত্র এবং শ্বাসযন্ত্রের কোষে প্রবেশ করে। যখন ভাইরাসের কণাগুলি একটি সংক্রমিত কোষ ছেড়ে যায়, তখন এটি সাইটোকাইন, ছোট প্রোটিন নিঃসরণ করে। এই প্রক্রিয়াটি গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল উপসর্গের কারণ হতে পারে। গবেষণায় আরও বলা হয়েছে যে যদিও কোভিড শ্বাসতন্ত্রের উপসর্গের মাধ্যমে চিহ্নিত করা হয়, তবে গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল উপসর্গগুলি অস্বাভাবিক নয়। অনেক ক্ষেত্রে গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল উপসর্গগুলি প্রথম দেখা যায়, পরে শ্বাসকষ্টের উপসর্গ দেখা যায়।

স্টেলথ ওমিক্রন: ওমিক্রনের (Omicron) নতুন সাব-ভ্যারিয়েন্ট হিসেবে পরিচিত স্টেলথ ওমিক্রন (Stealth Omicron) আবির্ভূত হয়েছে। চিকিৎসকদের বক্তব্য, ওমিক্রনের সাম্প্রতিকতম রূপটি মূল ভাইরাসের চেয়ে আরও বেশি সংক্রামক। সাধারণত, ওমিক্রন প্রজাতিতে সংক্রমণ হলে সাধারণ-ঠান্ডা লাগার মতো উপসর্গ (Common-Cold Like Symptoms) দেখা দেয়। যা কয়েক দিনের মধ্যে চলেও যায়। তবে স্টিলথ ওমিক্রনে আক্রান্ত অনেকেই অন্ত্রের সঙ্গে সম্পর্কিত (Gut-Related Symptoms) অর্থাৎ পেটের সমস্যার কথা জানিয়েছে।

কেন স্টেলথ ওমিক্রনে অন্ত্র-সম্পর্কিত উপসর্গ দেখা দেয়?

ZOE কোভিড সিম্পটম স্টাডির (ZOE Covid Symptom Study) একজন প্রধান অধ্যাপক ব্রিটেনের ট্যাবলয়েডকে বলেছেন, স্টেলথ ওমিক্রনের ক্ষেত্রে পেটের সমস্যা দেখা দিতে পারে। কারণ, ভাইরাসটি নাকের পরিবর্তে অন্ত্রকে প্রভাবিত করে। সুতরাং, স্টেলথ ওমিক্রনের বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই শ্বাসকষ্টের পরিবর্তে পেটের সমস্যা দেখা দেয়। যদিও অনেকেই তা বুঝতে পারেন না। তাই তারা সংক্রমিত কি না তাও জানতে পারে না। যার কারণে অন্যরা ঝুঁকিতে থাকে। নাকে বা মুখে ওমিক্রন সংক্রমণের কোনও চিহ্ন না থাকার কারণে ভুল নেগেটিভ রিপোর্টও আসতে পারে।

স্টেলথ ওমিক্রনে সাধারণত যে যে উপসর্গ দেখা যায়: শুধুমাত্র স্টেলথ ওমিক্রনের ক্ষেত্রেই নয়, অন্যান্য ভ্যারিয়েন্টের ক্ষেত্রেও পেটের সমস্যা দেখা দিতে পারে। শুধুমাত্র পার্থক্য হল এই নতুন সাব-ভ্যারিয়েন্টের ক্ষেত্রে সমস্যাটি প্রাধান্য পেয়েছে। ছয়টি সাধারণ অন্ত্র-সম্পর্কিত উপসর্গগুলির মধ্যে রয়েছে-বমি বমি ভাব, ডায়রিয়া, বমি, পেটে ব্যথা, অম্বল, পেট ফাঁপা।

স্টেলথ ওমিক্রন কীভাবে অন্ত্রে সংক্রামিত হয়: গবেষকের মতে, এটি এখন পর্যন্ত ভালভাবে প্রমাণিত যে ভাইরাস মুখ বা নাক দিয়ে প্রবেশ করে এবং শ্বাসযন্ত্র বা ফুসফুসে সংখ্যাবৃদ্ধি শুরু করে। কিছু ক্ষেত্রে, এটি অন্ত্রে স্থানান্তরিত হয় এবং দীর্ঘ কোভিড হতে পারে। সোয়াব টেস্টে ভাইরাস সনাক্ত করা যায় না, যা জটিলতার ঝুঁকি বাড়ায়।

স্টেলথ ওমিক্রনের অন্যান্য সাধারণ উপসর্গ: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO) বলেছে যে ওমিক্রন প্রধানত উপরের শ্বাসযন্ত্রের ট্র্যাক্টকে প্রভাবিত করে (আগের প্রজাতিগুলিতে ফুসফুসের পরিবর্তে), তাই করোনাভাইরাসটির এই রূপের উপসর্গগুলি আগেরগুলির থেকে আলাদা। ওমিক্রন ভাইরাসের একটি সাব ভ্যারিয়েন্ট হওয়ায় স্টেলথ ওমিক্রনের সঙ্গেও একই জিনিস প্রত্যক্ষ করা হয়। এর মানে এই যে এই প্রজাতির সংক্রমণে গন্ধ বা স্বাদ না পাওয়া এবং শ্বাসকষ্টের মতো উপসর্গ দেখা যায় না। স্টেলথ ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের দু'টি প্রাথমিক উপসর্গ হল মাথা ঘোরা এবং ক্লান্তি। এগুলি ছাড়াও অন্যান্য উপসর্গগুলির মধ্যে রয়েছে- জ্বর (Fever), চরম ক্লান্তি (Extreme Fatigue), কাশি (Coughing), গলা ব্যথা (Sore Throat), পেশির ক্লান্তি (Sore Head), উচ্চ হৃদস্পন্দন (Muscular Fatigue) ইত্যাদি।

আরও পড়ুন- কোভিড ভাইরাস সনাক্তকরণে নতুন প্রযুক্তি প্ল্যাটফর্ম তৈরি করেছেন ভারতীয় বিজ্ঞানীরা, জানুন বিশদে!

নতুন সাব ভ্যারিয়েন্ট কতটা সংক্রামক?

যদিও বিএ.২ (BA.2) বা স্টেলথ ওমিক্রন ওমিক্রনের একটি রূপ, তবে এর ভাইরোলজিক্যাল বৈশিষ্ট্যগুলি মূল স্ট্রেনের থেকে আলাদা। গবেষকদের মতে, স্টেলথ ভ্যারিয়েন্টে প্রায় ২০টি মিউটেশন রয়েছে, যা মূল স্ট্রেনের থেকে আলাদা। ভাইরাসটি কীভাবে প্রতিক্রিয়া দেখাবে এবং কীভাবে এটি মানুষকে প্রভাবিত করতে পারে তা নির্ধারণ করা এটিকে চ্যালেঞ্জিং করে তোলে। এর দীর্ঘমেয়াদী লক্ষণ এবং টিকার কার্যকারিতা এখনও মূল্যায়ন করা যায়নি। আপাতত, আমরা যা করতে পারি তা হল টিকা নেওয়া, মাস্ক পরা, হাতের পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখা এবং ভিড় এড়ানোর মতো সমস্ত কোভিড সংক্রান্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা।

করোনাভাইরাসের উদ্বেগের অন্যান্য রূপগুলি কী কী? এদের কোনওটির সঙ্গে কি দেখা যায় পেট ব্যথার উপসর্গ?

এখনও পর্যন্ত করোনাভাইরাসের পাঁচটি প্রজাতিকে উদ্বেগের প্রজাতি (Variants Of Concern) হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে। সেগুলি হল-আলফা (Alpha), বিটা (Beta), গামা (Gamma), ডেল্টা (Delta) এবং ওমিক্রন (Omicron)। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, আলফা প্রজাতি (B.1.1.7) প্রথম ব্রিটেনে ২০২০ সালের সেপ্টেম্বরে পাওয়া গিয়েছিল। বিটা প্রজাতি (B.1.351) ২০২০ সালের মে মাসে দক্ষিণ আফ্রিকায় পাওয়া গিয়েছিল। পরবর্তী অত্যন্ত সংক্রমণযোগ্য প্রজাতি গামা (P.1) ২০২০ সালের নভেম্বরে ব্রাজিলে পাওয়া গিয়েছিল। এই তিনটি প্রজাতির মিউটেশনে কিছুটা মিল রয়েছে। বিশেষ করে স্পাইক প্রোটিনের মূল অঞ্চলে। SARS-CoV-2-তেও স্পাইক প্রোটিন একই মিউটেশনগুলি বহন করে।

করোনাভাইরাসের চতুর্থ প্রজাতি ডেল্টা (B.1.617.2) বা সুপার-আলফা ২০২০ সালের অক্টোবরে ভারতে সনাক্ত করা হয়েছিল। বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে এটি আলফা প্রজাতির তুলনায় ৬০ শতাংশ বেশি সংক্রমণযোগ্য ছিল৷ ডেল্টা সংক্রমিত ব্যক্তিদের শ্বাসনালীতে দ্রুত এবং উচ্চ স্তরে বৃদ্ধি পায়, ভাইরাসের বিরুদ্ধে প্রাথমিক প্রতিরোধ ক্ষমতাকে এড়াতে পারে।

ওমিক্রন (Omicron)-B.1.1.529 প্রজাতি ২০২১ সালের নভেম্বরে প্রথম সনাক্ত করা হয়েছিল। অন্যান্য প্রজাতির সঙ্গে তুলনা করলে ওমিক্রনে আরও বেশি মিউটেশন রয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, করোনাভাইরাসের অন্য উদ্বেগজনক প্রজাতিগুলি হল ল্যাম্বদা (Lambda) এবং মু (Mu)।

আরও পড়ুন- বুস্টার শটের পরেও কি আবার টিকার ডোজ নিতে হবে? কী বলছেন বিশেষজ্ঞরা

কয়েকটি সাধারণ উপসর্গ, যা করোনার সব প্রজাতিতেই দেখা যায়:

কোভিডের সাধারণ উপসর্গগুলি: প্রতিটি প্রজাতির সংক্রমণের উপসর্গ এবং পরবর্তীতে সংক্রমণের মাত্রা পরিবর্তিত হয়। তবে কোভিড রোগের কিছু সাধারণ উপসর্গ রয়েছে যা বিভিন্ন প্রকারের কারণে সৃষ্ট সমস্ত সংক্রমণেই দেখা গিয়েছে। জাতীয় স্বাস্থ্য সংস্থাগুলির দ্বারা প্রকাশিত তথ্য অনুসারে, কোভিডের সাধারণ উপসর্গগুলি হল জ্বর বা ঠান্ডা লাগা, কাশি, শ্বাসকষ্ট বা শ্বাস নিতে অসুবিধা, ক্লান্তি, পেশি বা শরীরে ব্যথা, মাথাব্যথা, স্বাদ বা গন্ধ না পাওয়া, গলা ব্যথা, সর্দি, বমি বমি ভাব বা বমি এবং ডায়রিয়া।

ভাইরাসের সংস্পর্শে আসার পরে মানবদেহে যে উপসর্গগুলি দেখা যায়, তা নির্ভর করে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা প্যাথোজেনের প্রতি যেভাবে প্রতিক্রিয়া দেখায় তার উপর। কোভিড সংক্রমণের ক্লাসিক উপসর্গগুলির মধ্যে রয়েছে জ্বর, কাশি, ক্লান্তি এবং গন্ধ ও স্বাদের অনুভূতি হ্রাস। এই রোগের সঙ্গে যুক্ত গুরুতর উপসর্গগুলি হল শ্বাসকষ্ট, বুকে ব্যথা, রক্তে অক্সিজেনের মাত্রা কম হওয়া এবং শ্বাস নিতে অসুবিধা। বেশিরভাগ কোভিড উপসর্গগুলি সাধারণ সর্দি এবং ফ্লু-র উপসর্গগুলির সঙ্গে ওভারল্যাপ করে এবং এটি ভাইরাসের সমস্ত প্রজাতির কারণে সৃষ্ট সংক্রমণে দেখা গিয়েছে।

আলফা প্রজাতির সংক্রমণে উপসর্গ: আলফা প্রজাতি হল করোনাভাইরাসের প্রথম প্রজাতি, যা উদ্বেগের প্রজাতির অধীনে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। B.1.1.7 ভ্যারিয়েন্ট হিসাবেও এটি পরিচিত। আলফা প্রজাতিতে সংক্রমণের সময় দেখা যাওয়া সাধারণ উপসর্গগুলি হল ঠান্ডা লাগা, খিদে কমে যাওয়া, মাথাব্যথা এবং পেশিতে ব্যথা।

বিটা প্রজাতির সংক্রমণের উপসর্গ: এই প্রজাতিটি B.1.351 নামেও পরিচিত। বিটা প্রজাতির উপসর্গগুলি অন্যান্য কোভিড প্রজাতির থেকে আলাদা নয়। এই প্রজাতিটি মূল উহান ভাইরাসের চেয়ে বেশি সংক্রমণযোগ্য বলে বিশ্বাস করা হয়। তবে এটি আরও গুরুতর রোগের দিকে নিয়ে যায় বলে মনে করা হয় না।

ডেল্টা প্রজাতির সংক্রমণের উপসর্গ: করোনাভাইরাসের সমস্ত প্রজাতিগুলির মধ্যে মারাত্মক এটি। ডেল্টা প্রজাতি ভারতে দ্বিতীয় ঢেউয়ের জন্য দায়ী। এই প্রজাতির সবচেয়ে গুরুতর জটিলতাটি ছিল অক্সিজেনের মাত্রা কমে যাওয়া। সংক্রমিত ব্যক্তিদের মধ্যে গন্ধ এবং স্বাদের ক্ষতিও খুব বেশি দেখা গিয়েছিল। ডেল্টা সংক্রমণের কারণে ভারতে গত এপ্রিল-মে মাসে স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছিল।

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published:

Tags: COVID-19

পরবর্তী খবর