• Home
  • »
  • News
  • »
  • entertainment
  • »
  • বার্গারের ওপর ভর্তি ফাঙ্গাস! সাবওয়ের অর্ডার দেখে রাগে ফুঁসছেন মিমি, পুরসভায় অভিযোগ দায়ের

বার্গারের ওপর ভর্তি ফাঙ্গাস! সাবওয়ের অর্ডার দেখে রাগে ফুঁসছেন মিমি, পুরসভায় অভিযোগ দায়ের

১৬ সেপ্টেম্বর তিনি নিউটাউনের কাছে ইকো স্পেসে শ্যুটিং করতে গিয়েছিলেন। সেখানকার সাবওয়ে আউটলেট থেকে একটি সাব অর্ডার করেন। কিন্তু খাবার হাতে পেয়ে রীতিমত চমকে ওঠেন অভিনেত্রী।

১৬ সেপ্টেম্বর তিনি নিউটাউনের কাছে ইকো স্পেসে শ্যুটিং করতে গিয়েছিলেন। সেখানকার সাবওয়ে আউটলেট থেকে একটি সাব অর্ডার করেন। কিন্তু খাবার হাতে পেয়ে রীতিমত চমকে ওঠেন অভিনেত্রী।

১৬ সেপ্টেম্বর তিনি নিউটাউনের কাছে ইকো স্পেসে শ্যুটিং করতে গিয়েছিলেন। সেখানকার সাবওয়ে আউটলেট থেকে একটি সাব অর্ডার করেন। কিন্তু খাবার হাতে পেয়ে রীতিমত চমকে ওঠেন অভিনেত্রী।

  • Share this:

    #কলকাতা: অন্যায়ের প্রতিবাদ করতে কখনই পিছু হটেন না সাংসদ অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তী। সম্প্রতি রাতের কলকাতায় জিম থেকে ফেরার পথে এক ট্যাক্সিচালক তাঁকে হেনস্থা করে। অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি করে। বালিগঞ্জ ফাঁড়ি-গড়িয়াহাটের সংযোগস্থলে ঘটা ঘটনার প্রতিবাদ করেন মিমি। কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই গ্রেফতার হন ট্যাক্সিচালক। শুক্রবার আদালতে গোপন জবানবন্দি দিয়ে এসেছেন সাংসদ অভিনেত্রী।

    ফের একবার প্রতিবাদে মুখর মিমি। এবার তাঁর নিশানায় জনপ্রিয় মার্কিন ফুড চেন সংস্থা সাবওয়ে। মিমির অভিযোগ, ১৬ সেপ্টেম্বর তিনি নিউটাউনের কাছে ইকো স্পেসে শ্যুটিং করতে গিয়েছিলেন। সেখানকার সাবওয়ে আউটলেট থেকে একটি সাব অর্ডার করেন। কিন্তু খাবার হাতে পেয়ে রীতিমত চমকে ওঠেন অভিনেত্রী। সাংসদের দাবি, যে সাব বার্গার তাঁকে ডেলিভারি দেওয়া হয়েছিল, তার ওপর পুরু হয়ে  ছত্রাক জন্মেছিল। প্রবল ক্ষোভে সেই  বার্গারের ছবি সাবওয়ে ইন্ডিয়াকে ট্যাগ করে নিজের ট্যুইটার হ্যান্ডেলে পোস্ট করেন তিনি। পাশাপাশি কলকাতা পুরসভার খাদ্য বিভাগেও অভিযোগ দায়ের করেছেন।

    মিমি তাঁর ট্যুইটে লিখেছেন, 'যাঁরা সাবওয়ে থেকে খাবার অর্ডার করেন, এবার অর্ডার করার আগে দুবার ভাববেন। ১৬ সেপ্টেম্বর শ্যুটিং করতে গিয়ে ইকো স্পেসের সাবওয়ে থেকে খাবার অর্ডার করেছিলাম। দেখুন কী খাবার দেওয়া হয়েছে।'

    এখানেই শেষ হয়নি অভিনেত্রী সাংসদের প্রতিবাদের। তিনি ট্যুইটে সাবওয়ের দিকে আঙুল তুলে তাঁদের কর্তব্যে গাফিলতির বিষয়টি সকলের সামনে তুলে ধরেছেন। এ দিকে ইতিমধ্যে পুরসভার খাদ্য বিভাগে পৌঁছে গিয়েছে মিমির অভিযোগ। এ দিন মিমির প্রতিবাদকে সমর্থন করেছেন নেটিজেনরাও। অনেকেই সংস্থার লাইসেন্স বাতিলের দাবি তুলেছেন।

    Published by:Shubhagata Dey
    First published: