Irrfan Khan: সবকিছু ছেড়ে মাছের চাষ করতে চান ইরফান পুত্র বাবিল! কিন্তু হঠাৎ এমন ইচ্ছে কেন হল তাঁর

যে ছবিটি বাবিল খান শেয়ার করেছেন তাতে দেখা যাচ্ছে পাহাড়ে ঘেরা একটি লেক।

যে ছবিটি বাবিল খান শেয়ার করেছেন তাতে দেখা যাচ্ছে পাহাড়ে ঘেরা একটি লেক।

  • Share this:

#মুম্বই: নিজের Instagram প্রোফাইলে একটি লেকের ছবি শেয়ার করলেন প্রয়াত অভিনেতা ইরফান খানের (Irrfan Khan) ছেলে বাবিল খান (Babil Khan)। বাবার মৃত্যুর পর ইরফানের উত্তরাধীকার হিসেবে ওই লেকটি পেয়েছেন তিনি। ওই লেকের মধ্যে একটি নৌকা করে ঘুরছেন তিনি। লেকটি দেখতেও খুব সুন্দর দেখাচ্ছে। সবুজ গাছগাছালিতে ভরা এবং পাহাড়ি এলাকার মাঝখানে ওই লেকটি অবস্থিত। ছবিতে এমনই দেখাচ্ছে।

যে ছবিটি বাবিল খান শেয়ার করেছেন তাতে দেখা যাচ্ছে পাহাড়ে ঘেরা একটি লেক। সেই লেকে একটি নৌকার উপর শুয়ে রয়েছেন তিনি। এবং অবসর সময় কাটাচ্ছেন। ওই ছবিটিতে তিনি ক্যাপশন হিসেবে লিখেছেন, “লেক বাবিল (Lake babil)।”

ওই ছবির নিচে কমেন্ট করেছেন চিত্র পরিচালক তুষার ত্যাগী। তিনি জানতে চেয়েছেন কোন জায়গা সেটি। লিখেছেন, “বাবলি এটা কোথায়? খুব সুন্দর।” ওই কমন্টে জবাবও দিয়েছেন বাবলি। তিনি লিখেছেন, “অনুমান করুন কোথায়? আমি আমার উত্তরাধীকার হিসেবে সবকিছু আমার মা কে লিখে দিয়েছি। কারণ সেটাই সঠিক। কিন্তু বাবা আমাকে এটা ছেড়ে দিয়েছে। তাই আমার একটা ব্যক্তিগত লেক আছে। তাই আমার ইচ্ছা এখানে বিলুপ্ত হতে যাওয়া কিছু প্রজাতির মাছ রাখা।”

বাবিলের অনেক ফ্যানও ওই ছবিতে কমেন্ট করেছেন এবং রিঅ্যাক্ট করেছে। একজন লিখেছেন, “আপনি অত্যন্ত ভাগ্যবান।” অন্য একজন কমেন্ট করেছেন, “ফটোটি দুর্দান্ত।” অন্য একজন লিখেছেন, দুর্দান্ত লাগছে ছবিতে।”

instagram-এ নিয়মিত ছবি পোস্ট করেন বাবিল খান। প্রয়াত বাবা ইরফান খান ও তাঁর মা সুতপা সিকদারের পোস্টও নিয়মিত সোশাল মিডিয়ায় পোস্টে করেন তিনি। গত মঙ্গলবার তিনি একটি ভিডিয়ো পোস্ট করেছিলেন। যেখানে দেখা যাচ্ছিল তাঁর মা, সুতপা সিকদার (Sutapa Sikdar) গ্যাংটকের একটি দোকান থেকে জুতো কিনছেন। ওই ভিডিয়োতে ইশা শর্বানিকেও (Isha Sharvani) দেখা গেছে। ওই ভিডিয়ো পোস্ট করে বাবিল লিখেছেন, “গ্যাংটকের দোকানে বার্গেনিং কীভাবে করতে হয় তা আমার মায়ের কাছ থেকে শিখছিলাম আমি ও শর্বানি।” সঙ্গে তাঁর মা-কেও ট্যাগ করেছেন তিনি।

গতমাসে ইরফান খানের বেশ কয়েকটি ছবি শেয়ার করেছিলেন বাবিল। সেখানে তিনি লিখেছিলেন, “বাবা আমি কঠোর পরিশ্রম করছি। তুমি থাকলে খুব ভালো লাগত।”

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published: