• Home
  • »
  • News
  • »
  • entertainment
  • »
  • Aryan Khan | Mumbai Drug case: আরিয়ানের সঙ্গে সেলফি তুলে ভাইরাল হন! জীবনের ঝুঁকির আশঙ্কা আছে বলে দাবি গোসাভির

Aryan Khan | Mumbai Drug case: আরিয়ানের সঙ্গে সেলফি তুলে ভাইরাল হন! জীবনের ঝুঁকির আশঙ্কা আছে বলে দাবি গোসাভির

আরিয়ানের সঙ্গে সেলফি তুলে ভাইরাল হন! জীবনের ঝুঁকির আশঙ্কা আছে বলে দাবি গোসাভির

আরিয়ানের সঙ্গে সেলফি তুলে ভাইরাল হন! জীবনের ঝুঁকির আশঙ্কা আছে বলে দাবি গোসাভির

Aryan Khan | Mumbai Drug case: কেপি গোসাভি (KP Gosavi) একজন প্রাইভেট গোয়েন্দা। মুম্বই মাদককাণ্ডে নয় জন সাক্ষীর মধ্যে তিনি একজন।

  • Share this:

    #মুম্বই: আরিয়ান খানের (Aryan Khan) সঙ্গে মুম্বইয়ের মাদককাণ্ডের সাক্ষী কেপি গোসাভির (KP Gosavi) এক‌টি সেলফি ভাইরাল হয়। সোমবার CNN-News18-কে গোসাভি জানিয়েছেন যে তিনি আত্মসমর্পণ করবেন কারণ তাঁর জীবনের ঝুঁকি রয়েছে। কেপি গোসাভির গাড়ির চালক প্রভাকর সাইল রবিবার অভিযোগ করেন যে, শাহরুখ (Shah Rukh Khan)পুত্র আরিয়ানের বিরুদ্ধে মুখ খোলার জন্য ২৫ কোটি টাকার ডিল করে নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরো (এনসিবি)। যদিও তদন্তকারী সংস্থা (NCB) এই অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছে। প্রভাকর নিজেও এই ঘটনার একজন সাক্ষী।

    কেপি গোসাভি একজন প্রাইভেট গোয়েন্দা। মুম্বই মাদককাণ্ডে নয় জন সাক্ষীর মধ্যে তিনি একজন। ২০১৮তে গোসাভির বিরুদ্ধে হওয়া একটি মামলা নিয়েও নতুন করে তদন্ত শুরু হয়েছে। প্রভাকর সইল নিজেরে গোসাভির দেহরক্ষী বলে পরিচয় দিয়েছেন। গোসাভির সঙ্গে এনসিবি আধিকারিকের আর্থিক লেনদেন বিষয়টির অভিযোগ আনেন প্রভাকরই। যদিও গোসাভি সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

    প্রভাকর জানিয়েছেন, তিনি সমীর ওয়াংখেড়েকে ভয় পাচ্ছেন। এবং তাঁর জীবনেরও ঝুঁকি আছে। প্রভাকর আরও অভিযোগ করেন যে এনসিবি আধিকারিকরা তাঁকে দিয়ে বেশ কয়েকটি সাদা কাগজে সই করিয়েছেন। এনসিবি আধিকারিক সমীর ওয়াংখেড়ের সঙ্গে ঘুষ নিয়েও আলোচনা হয়েছে বলে তিনি জানান। প্রভাকরের কথায়, "আমি নগদ ৫০ লক্ষ টাকা হাতে পাই।"

    গত ৩ অক্টোবর প্রমোদতরীতে এনসিবির তল্লাসি অভিযানের নেতৃত্বে ছিলেন সমীর ওয়াংখেড়ে। তাঁর নেতৃত্বেই শাহরুখ পুত্র আরিয়ান সহ বেশ কয়েকজনকে গ্ৰেফতার করা হয়। অন্যদিকে গোসাভি জানিয়েছেন, তিনি আত্মসমর্পণ করতে প্রস্তুত কারণ তিনি আর সহ্য করতে পারছেন না এসব। পাশাপাশি এও বলেছেন যে, তিনি কখনওই শাহরুখের ম্যানেজার পূজা দাদলানির সঙ্গে দেখা করেননি এবং ট্রিডেন্ট হোটেল টাকা নিতেও যাননি। আরিয়ানের সঙ্গে ভাইরাল হওয়া সেলফিটি প্রমোদতরীর টার্মিনালে তোলা বলেও দাবি করেন তিনি। এক সূত্রের থেকে প্রমোদতরীতে মাদকচক্রের খোঁজ পান এবং তার পরে এনসিবিকে জানান গোসাভি। এই ঘটনার পর থেকে এমন কিছু ফোন এসেছে যাতে রাজনীতি জড়িয়ে আছে এবং তাঁর জীবনের ঝুঁকি আছেও বলে দাবি প্রাইভে‌ট গোয়েন্দার।

    আরও পড়ুন- সৃজিতের 'গুমনামী' সেরা বাংলা ছবি! কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায়ের 'জ্যেষ্ঠপুত্র'ও ভূষিত জাতীয় পুরস্কারে

    প্রভাকর সাইল জানিয়েছেন, গোসাভিকে স্যাম ডিসুজার কাছে ২৫ কোটি টাকা লেনদেনের কথা বলতে তিনি শোনেন যাতে ১৮ কোটি টাকার লেনদেন করা যায়। গোসাভি বলছিলেন, ৮ কোটি টাকা দিতে হবে সমীর ওয়াংখেড়েকে। প্রমোদতরীতে তল্লাসি চালানোর পরে আরিয়ানকে সাদা ইনোভাতে করে এনসিবি অফিসে নিয়ে আসেন আধিকারিকরা। সঙ্গে তখন গোসাভিও ছিলেন বলে জানান প্রভাকর। সেই গাড়িটি স্যাম ডিসুজা অনুসরণ করছিলেন বলে তিনি জানান। পরে তাঁরা পূজা দাদলানির সঙ্গে দেখা করেন গোসাভি।

    প্রভাকর দাবি করেছেন, পূজা দাদলানি গোসাভির সঙ্গে একটি গাড়ির মধ্যে বসে ১৫ মিনিট কথা বলে বেরিয়ে আসেন। পরে গোসাভির কাছে ৫০ লক্ষ টাকা পাঠানো হয় যার মধ্যে থেকে ৩৮ লক্ষ টাকা ফিরিয়ে দেন তিনি পরে। তবে এনসিবি ও গোসাভি দুই পক্ষ থেকেই সমস্ত অভিযোগ অস্বীকরা করা হয়েছে। ওয়াংখেড়ে জানিয়েছেন, তিনি সঠিক সময়ে এর জবাব দেবেন।

    Marya Shakil 
    Published by:Swaralipi Dasgupta
    First published: