Home /News /education-career /
Madhyamik 2022: বাংলায় কোন গদ্য-কবিতায় জোর দেবে পড়ুয়ারা? মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের পরামর্শ দিলেন 'পাঠভবন'-এর শিক্ষক শৌভিক উপাধ্যায়

Madhyamik 2022: বাংলায় কোন গদ্য-কবিতায় জোর দেবে পড়ুয়ারা? মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের পরামর্শ দিলেন 'পাঠভবন'-এর শিক্ষক শৌভিক উপাধ্যায়

পাঠভবন স্কুলের বাংলার শিক্ষক শৌভিক উপাধ্যায়।

পাঠভবন স্কুলের বাংলার শিক্ষক শৌভিক উপাধ্যায়।

Madhyamik 2022: মাধ্যমিকে প্রথম বিষয় হল বাংলা। শেষ মুহূর্তের সাজেশন দিলেন পাঠভবন স্কুলের বাংলার শিক্ষক শৌভিক উপাধ্যায়।

  • Share this:

#কলকাতা: করোনার কোপ থেকে কিছুটা নিস্তার মিলেছে। সমস্ত ক্ষেত্রেই করোনা বিধি শিথিল হচ্ছে। খুলেছে স্কুল কলেজও। এবার অফলাইনেই হচ্ছে মাধ্যমিক পরীক্ষা। আগামী ৭ মার্চ থেকে শুরু হচ্ছে মাধ্যমিক। চলবে ১৬ মার্চ পর্যন্ত। করোনার প্রকোপে পড়ুয়ারা অধিকাংশই অনলাইনে পড়াশোনা করেছেন। এছাড়া মহামারীর মধ্যে পড়াশোনায় ব্যাঘাতও হয়েছে। তাই অফলাইন পরীক্ষায় বসার আগে প্রয়োজন কিছু জিনিস মাথায় রাখা। মাধ্যমিকে (Madhyamik 2022) প্রথম বিষয় হল বাংলা। শেষ মুহূর্তের সাজেশন দিলেন পাঠভবন স্কুলের বাংলার শিক্ষক শৌভিক উপাধ্যায়।

১) জীবনের প্রথম বড় পরীক্ষা। পরীক্ষায় বসার আগে কোন কোন বিষয়গুলির দিকে বিশেষ লক্ষ্য রাখা উচিত?

উত্তর: এটি প্রথম বড় পরীক্ষা। কারণ নিজের স্কুল ছেড়ে সম্পূর্ণ অন্য একটি স্কুলে অপরিচিত পরীক্ষকদের মাঝে গিয়ে পড়ুয়ারা পরীক্ষায় বসবে। এছাড়াও ক্লাসের রোল নম্বর নয়। খাতায় লিখতে হবে নির্দিষ্ট রেজিস্ট্রেশন নম্বর ও রোল নম্বর। প্রশ্নপত্রে ছাপার ভুল থাকলে চটজলদি কোনও সমাধান নেই। অপেক্ষা করতে হবে পর্ষদের নির্দেশের জন্য অথবা তাকে ব্যতিরেকে গোটা কাজটা করতে হবে। চাপা উত্তেজনা থাকেই কারণ সম্পূর্ণ ভিন্ন পরিবেষে পরীক্ষা দেবে পড়ুয়ারা। কয়েকটি বিষয়ে নজর দেওয়া উচিত। যেমন কোনও বিষয়ে প্যানিক করা যাবে না। তাড়াহুড়ো বা দুশ্চিন্তা করা যাবে না। খাতা পাওয়ার পরে ঠান্ডা মাথায় পরিষ্কার করে তথ্য অর্থাৎ নাম, বিষয়ের নাম, রোল নম্বর, রেজিস্ট্রেশন নম্বর লিখতে হবে। এগুলি লিখতে গেলে ভুল করা চলবে না। কোনও সংশয় থাকলে পরীক্ষককে জিজ্ঞাসা করতে হবে। ভুল হলে খাতা বাতিল পর্যন্ত হতে পারে। মাধ্যমিক পরীক্ষায় সব বিষয়কেই সমান গুরুত্ব দিতে হবে। মনে রাখতে হবে, এই একই প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছেন আরও ১০-১১ লক্ষ ছাত্রছাত্রী। তাই নিজের উত্তরকে সঠিক ভাবে তুলে ধরতে হবে। যা জানতে চাওয়া হয়েছে তার বাইরে কিছু লেখা যাবে না।

২) এতদিন অনলাইনে ক্লাস হয়েছে। সেই জায়গায় দাঁড়িয়ে অফলাইন পরীক্ষা। এই বিষয়ে পড়ুয়াদের কী পরামর্শ দেবেন?

উত্তর: অনলাইন ও অফলাইনের সবচেয়ে বড় তফাৎ হল, অনলাইনে আমরা সরাসরি শিক্ষককে দেখতে পাই না। অনলাইন পরীক্ষা যখন হয়েছে তখন শিক্ষককে না পেয়ে হয়তো অভিভাবককে জিজ্ঞাসা করেছি। কিন্তু সেই জিজ্ঞাসা করার ভঙ্গিমা অনেকটাই ভিন্ন। অনলাইন পরীক্ষার ক্ষেত্রে একটু গা ছাড়া ভাব এসে যায়। সময় শেষ হওয়ার পরেও হয়তো তারা দু-এক লাইন লিখে ফেলেছে। কিন্তু অফলাইনে এই সুযোগ তারা কোনও ভাবেই পাবে না। ফলত সময় ধরে নির্দিষ্ট সময়ে পরীক্ষা শেষ করতে হবে। এটিই এই মুহূর্তে অফলাইন পরীক্ষা (Madhyamik 2022) দেওয়ার সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ সময়ের মধ্যে সমস্ত উত্তর হবে। এখনও হাতে যেটুকু সময় বাকি আছে বার বার লেখার অভ্যেস করো।

৩) পরীক্ষা একেবারে দোরগোড়ায়। যেহেতু আপনি বাংলার শিক্ষক, এই বিষয়ে কী কী সম্ভাব্য প্রশ্ন আসতে পারে যদি বলেন।

উত্তর: বাংলা প্রথন পরীক্ষা। এই পরীক্ষাই বাকি পরীক্ষাগুলির দিক নির্দেশ করবে। অর্থাৎ প্রথম পরীক্ষা কেমন হল, তা-ই পরবর্তী পরীক্ষার আত্মবিশ্বাস বাড়াতে সাহায্য করবে। যদি পরীক্ষা একটু গন্ডগোল হয়, তাহলে তার প্রভাব পরের পরীক্ষাগুলিতে পড়বে। ফলত এই মাতৃভাষা বা প্রথম ভাষার পরীক্ষা সচেতন ভাবে দিতে হবে। বাংলার বিষয়ে বলতে হলে, প্রথমেই বলব নিশ্চয়ই তোমরা এতদিন পর্ষদের বা অন্যান্য টেস্ট পেপার চর্চা করেছ। পরীক্ষার আগে একদম শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতির জন্য কবিতার মধ্যে বিশেষ ভাবে দেখতে পারো 'প্রলয়োল্লাস', 'অসুখী একজন'। এইগুলি একটু ভালো করে পড়ো।

'প্রলয়োল্লাস' কবিতায় প্রলয়কে আহ্বান জানানোর ক্ষেত্রে কবির ভূমিকা এবং সেখানে শিবের প্রসঙ্গ ভালো করে দেখতে হবে। 'অসুখী একজন' কবিতায় এক দেশপ্রেমিকের দেশ ছেড়ে, প্রেমিকাকে ছেড়ে যাওয়া এবং প্রেমিকার তাঁর জন্য অপেক্ষা, এই বিষয়টি দেখতে হবে।

গদ্যের ক্ষেত্রে 'জ্ঞানচক্ষু'-র তপনের জ্ঞানচক্ষুর উন্মিলন কী ভাবে ঘটেছে। 'বহুরূপী' গল্প থেকে হরিদার জীবনের নাটকীয় বেশের বিষয়টি লক্ষ্য রাখব। 'পথের দাবী' থেকে আমরা লক্ষ্য রাখব অপূর্ব-চরিত্র ও গিরিশ মহাপাত্র-র চরিত্র এবং তার পোশাক পরিচ্ছদ। স্বাধীনতা সংগ্রামীদের আন্দোলন সম্পর্কে যে মনোভাব ছিল অপূর্বর তা নিজের ব্যক্তিজীবনের অভিজ্ঞতা দিয়ে বদলে গেল কীভাবে, এই বিষয়টি পড়ার সময় খেয়াল রাখতে হবে। MCQ এর জন্য প্রতিটি গদ্য ও কবিতা খুঁটিয়ে পড়তে হবে।

প্রবন্ধের মধ্যে হারিয়ে যাওয়া কালি কলম, যেখানে কালি কী ভাবে তৈরি করা হয় এবং ফাউন্টেন পেন কে আবিষ্কার করেন এবং কোন পরিস্থিতিতে আবিষ্কার করেন এই দুটি বিষয়ে বিশেষ ভাবে জোর দিতে হবে।

আরও পড়ুন- ভবিষ্যতে এই ৯ পেশা বিরাট আকার নিতে চলেছে! সময় থাকতে প্রস্তুত হোন

৪) এই বিষয়ে প্রশ্নের উত্তর করার সময়ে পড়ুয়াদের কোন দিক গুলির উপর বিশেষ জোর দেওয়া উচিত?

উত্তর: সামগ্রিক ভাবে তোমরা যখন প্রশ্ন গুলোর উত্তর লিখবে, তখন বইয়ে দেওয়া তথ্য তো অবশ্যই লিখবে। কিন্তু ২-৩টি বিষয় মনে রেখো। যেমন প্রশ্নে কোনও উর্দ্ধৃতি থাকলে সেটি কোথা থেকে নেওয়া হয়েছে, কার লেখা সেটি অবশ্যই লিখবে। প্রসঙ্গ না জানতে চাইলেও, এক লাইনের মধ্যে কী প্রসঙ্গে উর্দ্ধৃতিটি করা হয়েছে তাও লেখা হয়। এতে পরীক্ষকের কাছেও পরিষ্কার হয়ে যায় যে উত্তরটি কী হতে চলেছে। যদি গিরিশ মহাপাত্রের চরিত্র লিখতে বলা হয় এবং তুমি উল্লেখ করে দাও যে শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের লেখা পথের দাবী উপন্যাসের পাঠ্যাংশ থেকে নিয়েছি। উত্তর লেখার সময়ে শুধুমাত্র গিরিশ মহাপাত্রের পোশাক নিয়ে না লিখে বরং উল্লেখ করে দেওয়া দরকার যে গিরিশ মহাপাত্র যাকে সবাই সব্যসাচী বলে অনুমান করছে অনেকে। তার ছদ্মবেশ সম্পর্কে কিছু কথা উল্লেখ করে দেওয়া উচিত।

যেমন 'জ্ঞানচক্ষু' গল্প থেকে যদি প্রশ্ন করা হয়, জ্ঞানচক্ষু কী ভাবে উন্মিলিত হল? তাকে অজস্র দেড়-দু পাতা ধরে বড় করে লেখার দরকার নেই। খুব ছোট করে দুবার যে জ্ঞানচক্ষুর উন্মিলন ঘটছে তপনের এটি উল্লেখ করে দিতে হবে।

৫) বাংলা ব্যকরণের যদি কোনও সাজেশন দেন।

উত্তর: বাংলা ব্যকরণের ক্ষেত্রে সংজ্ঞা লিখতে দিলে, উদাহরণ লেখা আবশ্যিক। শুধু উদাহরণ না লিখে, উদাহরণটিকে আরও বিশ্লেষণ করে বলে দিলে আরও সুবিধা হল। ধরা যাক জিজ্ঞাসা করা হল, কর্তৃকার কাকে বলে? সংজ্ঞা ও উদাহরণের সঙ্গে বিশ্লেষণ করে দিলে নম্বর বেশি থাকবে। অথবা অনুবাদ করতে দেওয়া হলে, প্রতিটি বাক্যের জন্য একটি করে বুলেট ব্যবহার করলে বিষয়টি সুন্দর হয়। খাতাকে সাজিয়ে তুলতে হবে। মূল উত্তরটি আন্ডারলাইন করে দিলে সুন্দর হবে। নীল কালিতে লিখে কালো কালি দিয়ে আন্ডারলাইন করে দিতে পারো। এই বিষয়গুলি খাতাকে আকর্ষণীয় করে তোলে এবং পরীক্ষার্থী কী বলতে চাইছে সেই বিষয়ে শিক্ষককে মনোযোগী করে তোলে।

আরও পড়ুন- ইন্ডিয়ান ব্যাঙ্কে প্রচুর পদে নিয়োগ! মাধ্যমিক পাশ করলেই মিলবে চাকরি

৬)প্রবন্ধ, রচনা লেখার ক্ষেত্রে এই বছর কোন বিষয়গুলি সম্ভাব্য?

উত্তর: রচনা বা প্রবন্ধের ক্ষেত্রে বিজ্ঞানভিত্তিক, সাম্প্রতিক ঘটনাবলী, ছাত্রজীবন সংক্রান্ত, কখনও আত্মকথামূলক বা কখনও বিখ্যাত মণীষী, এই বিষয়গুলি থাকে। পড়ে আসা রচনার সঙ্গে যদি প্রশ্ন মিল না খায় তাহলে ছেড়ে আসা যাবে না। হেডিং ছাড়াও রচনার ৪০০ শব্দে ভূমিকা ও উপসংহার থাকতেই হবে। বিষয় যদি বিজ্ঞান ও কুসংস্কার হয়, ভূমিকা ও উপসংহারের মাঝে দুটিরই যুক্তি ব্যাখ্যা করতে হবে এবং উপসংহারে নিজের মতামত স্পষ্ট করতে হবে।

৭) পরীক্ষার খাতার পরিচ্ছন্নতায় পড়ুয়াদের কী কী বিষয় মাথায় রাখতে হবে?

উত্তর: খাতার চারদিকে মার্জিন টানবে। সেই সময় না থাকলে দুদিকেই টানতে হবে। বড় বড় গোটা গোটা করে লিখতে হবে। বিজ্ঞান বা ভূগোলের ক্ষেত্রে ছবি আঁকতে হলে একটি বাক্সের মধ্যে আঁকলে ভালো হবে। কোনও লেখা কাটতে হলে হিজিবিজি করে না কেটে একটা পেনের দাগ দিয়ে কাটতে হবে। নীল ও কালো ছাড়া অন্য কালি ব্যবহার না করা।

৮) অভিভাবকদের উদ্দেশে কী বলবেন?

উত্তর: গত দুবছরের কঠিন পরিস্থিতিতে পড়ুয়ারা পড়াশোনা চালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছে। আপনারাও সহযোগিকা করেছেন। তাই এবারের পরীক্ষাতে সাহস জোগান। সময়ে লেখা শেষ করার ব্যপারে বিশেষ ভাবে সাগায্য করুন। সাহস জোগান যাতে ছেলে মেয়েরা কোনও কারণে দুশ্চিন্তা না করে। পরীক্ষার শেষ কটা দিন বকাবকি করবেন না। মনোবল বাড়ান। ছাত্রছাত্রীদের বলব অভিভাবকদের কথা শোনো। তাহলেই তোমাদের ভবিষ্যৎ সুন্দর হবে। পড়ুয়ারা পরীক্ষার আগে সব গুছিয়ে নিয়েছে কি না অভিভাবকরা দেখুন।

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published:

Tags: Board Exams 2022, Madhyamik 2022

পরবর্তী খবর