corona virus btn
corona virus btn
Loading

নদী সাঁতরে পেরিয়ে অসমে এসে বাংলাদেশির করুণ আবেদন ‘আমার করোনার চিকিৎসা করুন’

নদী সাঁতরে পেরিয়ে অসমে এসে বাংলাদেশির করুণ আবেদন ‘আমার করোনার চিকিৎসা করুন’
Photo- Representive

গায়ে জ্বর ছিল ক'দিন তাই এভাবে মরিয়া হয়েছিলেন তিনি

  • Share this:

#করিমগঞ্জ : সারা দুনিয়ায় করোনা ভাইরাসের সংক্রমণে প্রায় টালমাটাল ৷ একাধিক প্রথম বিশ্বের দেশ করোনা ভাইরাসের দাপটের সামনে কার্যত মাথা হেঁট করে নতি স্বীকার করে নিয়েছে ৷ ভারতও নিজের মতো করে এই অতিমারির বিরুদ্ধে লড়াই করছে ৷ অনেক উন্নত দেশের চেয়েও এই মুহূর্তে ভারতে করোনা সংক্রমণের ওপর অনেকটা নিয়ন্ত্রণ রাখতে পেরেছে ৷ আর ভারতের এই খবরের ওপর আস্থা রেখেই এক বাংলাদেশি যুবক প্রায় মরণপণ করে ভারতে চলে এল ৷

বাংলাদেশি ওই যুবক কুশিয়ারি নদী সাঁতরে অসমের সীমা দিয়ে ভারতে প্রবেশ করেন ৷ সেখান থেকে করিমপুর জেলার মুবারকপুরে পৌঁছন ৷

সেখানে গ্রামবাসীদের জানান যে ওঁর করোনা হয়েছে ওঁকে সাহায্য করুন ৷ এই কথা শুনে গোটা গ্রাম ভয়ে কাঁপতে থাকে ৷ এই ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে বিএসএফ পৌঁছয় ৷ যুবককে গ্রেফতার করা হয়েছে ৷ তারপর অবশ্য বাংলাদেশি সেনা ডেকে যুবককে তাঁদের হাতে প্রত্যার্পণ করা হয় ৷

আরও পড়ুন - করোনা যুদ্ধে শরিক জামাতিরাও , প্লাজমা দেবেন ২০০ জন

যুবকের নাম আব্দুল হক - সে বাংলাদেশের সুনামগঞ্জ জেলার বাসিন্দা ৷ যেটা অসমের মুবারকপুর থেকে মাত্র চার কিলোমিটার দূরে ৷ বিএসএফের পক্ষ থেকে ডিআইজি জেসি নায়েক বলেছেন যুবকটি কুশিয়ারি নদী পেরিয়ে রবিবার সকাল সাড়ে সাতটা নাগাদ ভারতের সীমায় দাখিল হয় ৷ গ্রামের মানুষ তাঁকে অচেনা দেখে আটকায় ৷ তখন সে জানায় সে বাংলাদেশের নাগরিক ৷

এরমধ্যেই গ্রামবাসীরা সেনাদের খবর দিয়ে দেয় ৷  সে তখন জানায় তার করোনা হয়েছে আর তার চিকিৎসা করাতে সে ভারতে এসেছে ৷ সেনা অবশ্য জানায়নি সত্যি সত্যিই সে করোনা আক্রান্ত কিনা ৷ এরপরেই বাংলাদেশের সেনার হাতে তাঁকে তুলে দেওয়া হয় ৷

নদীর জলস্তর এই সময় কুশিয়ারি নদীতে খুবই কম থাকে এমনটাই জানিয়েছেন ডিজি নায়েক ৷ বর্ষার সময় বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এই নদী বানভাসি হয় ৷ তাঁরা জানিয়েছেন যুবক যেখান দিয়ে ঢুকেছে সেখানে সীমান্তে কাঁটাতার দিয়ে ঘেরা নেই ৷

 
First published: April 27, 2020, 10:04 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर