Home /News /business /
ব্যাঙ্ক ডিপোজিটের থেকে রেকারিং ডিপোজিট লাভজনক কেন? জেনে নিন...

ব্যাঙ্ক ডিপোজিটের থেকে রেকারিং ডিপোজিট লাভজনক কেন? জেনে নিন...

এতে নির্দিষ্ট মেয়াদে মাসিক কিস্তিতে টাকা জমা দিতে হয়।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: ব্যাঙ্ক ডিপোজিটের সঙ্গে সকলেই কম বেশি পরিচিত। বিনিয়োগের সবচেয়ে নিরাপদ মাধ্যম এটাই। অধিকাংশ মানুষই দীর্ঘকাল ধরে ব্যাঙ্ক ডিপোজিট করে আসছেন। ব্যাঙ্ক একটি নির্দিষ্ট সময়ের জন্য গ্রাহকের সঞ্চয় বা বর্তমান অ্যাকাউন্টে উপলব্ধ পরিমাণের উপর একটি নির্দিষ্ট হারে সুদ দেয়। সেটা মাসিক বা ত্রৈমাসিক হতে পারে।

অন্য দিকে আছে রেকারিং ডিপোজিট। এটাও সমান জনপ্রিয়। তবে ব্যাঙ্ক ডিপোজিটের থেকে একটু আলাদা। এতে নির্দিষ্ট মেয়াদে মাসিক কিস্তিতে টাকা জমা দিতে হয়। তার উপর ত্রৈমাসিক বা বার্ষিক সুদ দেয় ব্যাঙ্ক। মেয়াদ শেষে মেলে নিশ্চিত রিটার্ন। সাধারণত চাকরিজীবীদের জন্য উপযুক্ত বিনিয়োগ মাধ্যম হল রেকারিং ডিপোজিট।

আরও পড়ুন: দেশের ৪টি বড় ব্যাঙ্ক বদলাল তাদের বেশ কিছু নিয়ম, জেনে নিন না হলে পড়তে হবে সমস্যায়

ব্যাঙ্ক ডিপোজিটের থেকে রেকারিং ডিপোজিট লাভজনক কেন?

১। অল্প অঙ্কের টাকা রাখার সুযোগ: বেশিরভাগ ব্যাঙ্কেই মাসিক কিস্তিতে টাকা রাখা যায়। অবশ্য কিছু ব্যাঙ্কে ত্রৈমাসিক বা ষাণ্মাসিক কিস্তিতে টাকা জমা দেওয়া যায়। অর্থাৎ এটা নিশ্চিত যে যাদের আর্থিক সংস্থান কম, তাঁরাও রেকারিং ডিপোজিটের সুবিধা পেতে পারেন।

২। নির্দিষ্ট লক্ষ্যের জন্য সঞ্চয়: মাসিক কিস্তিতে টাকা এবং মেয়াদ শেষে রিটার্ন। এটাই রেকারিং ডিপোজিটের মূল সুর। এই মাসিক কিস্তি দেওয়ার জন্য সঞ্চয়ের অভ্যাস তৈরি হয়। মেয়াদ শেষে মোটা অঙ্কের রিটার্ন মেলে। ফলে বিনিয়োগকারী উদ্দেশ্য স্থির করে বিনিয়োগ করতে পারেন।

৩। পদ্ধতিগত বিনিয়োগ: রেকারিং ডিপোজিট মানে শৃঙ্খলা। প্রত্যেক মাসে একটা নির্দিষ্ট অঙ্কের টাকা মাসিক কিস্তি হিসেবে দিতে হয়। তাই সেই টাকা আগেই সরিয়ে রাখতে হয়। এটা একটা অভ্যাসের মতো। তাছাড়া বিনিয়োগের সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকার একটা স্মার্ট উপায় রেকারিং ডিপোজিট।

৪। নাবালকরাও পারেন: দশ বছরের বেশি বয়সী যে কোনও ব্যক্তি ব্যাঙ্কে রেকারিং ডিপোজিট অ্যাকাউন্ট খুলতে পারেন। বেশিরভাগ ব্যাঙ্কই পিতা-মাতার বা আইনি অভিভাবকের যৌথ অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে নিয়মিত আমানত তৈরি করার অনুমতি দেয়। এতে নাবালকরাও বিনিয়োগের গুরুত্ব বুঝতে পারে।

আরও পড়ুন: জারি আজকের পেট্রোল-ডিজেলের দাম, দেখে নিন আপনার শহরে কত

৫। উচ্চ সুদের হার: রেকারিং ডিপোজিট এবং ফিক্সড ডিপোজিটের সুদের হার প্রায় একই। বর্তমানে অধিকাংশ ব্যাঙ্কেই রেকারিং ডিপোজিটে বার্ষিক সুদের হার ৬ শতাংশের কম। ফিক্সড ডিপোজিটের মতো রেকারিং ডিপোজিটের অ্যাকাউন্টেও ব্যাঙ্ক কম্পাউন্ড হারে সুদ দেয়। সাধারণত ডিপোজিটের মেয়াদের উপর নির্ভর করে এই সুদের হার নির্ধারিত হয়। তবে প্রবীণ নাগরিকদের জন্য এই সুদের হার কিছুটা বেশি।

আরও পড়ুন: মেট্রোর জন্য কমল বরাদ্দ, নির্মলার বাজেট থেকে কী পেল বাংলার রেল?

৬। ঋণ মেলে: রেকারিং ডিপোজিট থাকলে ঋণের সুবিধা মেলে। সাধারণত আরডি-র মূল বিনিয়োগের ৯৫ শতাংশ ঋণ পাওয়া যায়। সব ব্যাঙ্কই এই সুবিধা দেয়।

Published by:Dolon Chattopadhyay
First published:

Tags: Fixed Deposit, Recurring Deposit

পরবর্তী খবর