• Home
  • »
  • News
  • »
  • business
  • »
  • Cryptocurrency: নতুন বছরে ক্রিপ্টোকারেন্সিতে বিনিয়োগ করতে চান? দেখে নিন কোন মুদ্রা পকেট ভরাবে!

Cryptocurrency: নতুন বছরে ক্রিপ্টোকারেন্সিতে বিনিয়োগ করতে চান? দেখে নিন কোন মুদ্রা পকেট ভরাবে!

Cryptocurrency: গত এক বছরে ৫২ শতাংশ মূল্যবৃদ্ধি হয়েছে বিটকয়েনের।

Cryptocurrency: গত এক বছরে ৫২ শতাংশ মূল্যবৃদ্ধি হয়েছে বিটকয়েনের।

Cryptocurrency: গত এক বছরে ৫২ শতাংশ মূল্যবৃদ্ধি হয়েছে বিটকয়েনের।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: ক্রমশই জনপ্রিয় হচ্ছে ক্রিপ্টোকারেন্সি। এই ডিজিটাল মুদ্রায় ব্যাপক আগ্রহ দেখাচ্ছেন বিনিয়োগকারীরা। ইতিমধ্যেই বেশ কিছু দেশ ক্রিপ্টোকারেন্সিকে আইনি ডিজিটাল মুদ্রা হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে। আবার কয়েকটি দেশ ক্রিপ্টোকে অবৈধ ঘোষণা করেছে।

চিন, বাংলাদেশ, রাশিয়া, মিশর, মরক্কো, নাইজেরিয়া, কাতার, তুর্কির মতো দেশগুলি ইতিমধ্যেই ক্রিপ্টোকারেন্সিকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে। তবে ভারত এখনও ক্রিপ্টোকে ব্যান না করলেও আইনি স্বীকৃতিও দেয়নি। তবে ক্রিপ্টোর বাজার মূলধন ইতিমধ্যেই বিলিয়ন থেকে ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলারে উন্নীত হয়েছে।

আরও পড়ুন: SIP-তে বিনিয়োগে আগ্রহী? ফলো করুন এই ৫টি স্টেপ!

বাজারে বিভিন্ন রকমের ক্রিপ্টোকারেন্সির আছে। আবার ক্রিপ্টোকারেন্সির বিভিন্ন বিভাগ রয়েছে। পারফর্ম্যান্স এবং মার্কেট ক্যাপের উপর ভিত্তি করে পলিগন (Polygon), ইথেরিয়াম (Ethereum), ক্লাসিক (Classic), ডজকয়েন (Dogecoin) ক্রিপ্টো জগতে সাড়া ফেলে দিয়েছে। ২০২০-২১ অর্থবর্ষে দারুণ রিটার্ন দিয়েছে বিটকয়েনও। ২০২২ সালে বিনিয়োগের জন্য কয়েকটি সেরা ক্রিপ্টোকারেন্সির সুলুক সন্ধান দেওয়া হল এখানে।

বিটকয়েন (Bitcoin) এটিই প্রথম ক্রিপ্টোকারেন্সি যা সারা বিশ্বে ক্রিপ্টো আন্দোলন শুরু করেছিল। কম প্রসেসিং ফি, বিশ্বব্যাপী আদানপ্রদান এবং খুব দ্রুত পিয়ার-টু-পিয়ার লেনদেনের কারণে অন্যান্য ক্রিপ্টোর তুলনায় জনপ্রিয়তায় কয়েক গুণ এগিয়ে বিটকয়েন। পরিসংখ্যান বলছে, গত এক বছরে ৫২ শতাংশ মূল্যবৃদ্ধি হয়েছে বিটকয়েনের। যা ক্রিপ্টো জগতে রেকর্ড। ২০২০ সালের শেষে একটি বিটকয়েন ২০ হাজার ডলারে লেনদেন হয়েছিল। ২০২১ সালের গোড়ায় তা পৌঁছয় ৩২ হাজার ডলারে। আর বছরের শেষে তা দাঁড়ায় ৬০ হাজার ডলারে। তবে ক্রিপ্টোর জগত ওঠানামায় ভরা। তাই বিটকয়েনের ভবিষ্যত মূল্য বা লাভ ক্ষতির আগাম মূল্যায়ন করতে যাওয়া বোকামি।

আরও পড়ুন: আধার কার্ডের সাহায্যে আবেদন করে কী ভাবে সঙ্গে সঙ্গে প্যান কার্ড পাওয়া যায়?

ইথেরিয়াম এটা স্মার্ট, বিকেন্দ্রীকৃত, ওপেন সোর্স ক্রিপ্টো। ফলে ইথেরিয়ামের লেনদেন বিটকয়েনের চেয়েও দ্রুত হয়। রাশিয়ান প্রোগ্রামার ভিটালিক বুটেরিন এই কয়েন তৈরি করেন। ২০১৫ সালে প্রথম তা বাজারে ছাড়া হয়। বিটয়েনের পর সর্বাধিক জনপ্রিয় এবং ব্যবহৃত ক্রিপ্টোকারেন্সি হল ইথেরিয়াম। বর্তমানে এর বাজার মূল্য ৩ হাজার ৮০০ ডলারের কাছাকাছি। বিশেষজ্ঞদের অনুমান, আগামী দিনে ইথেরিয়ামের সম্ভাবনা আরও বাড়তে চলেছে। শুধু তাই নয়, অনেকের মতে বিটকয়েনকেও পিছনে ফেলে দিতে পারে ইথেরিয়াম।

বিনান্স কয়েন (Binance Coin) দৈনন্দিন ব্যবসায় সবচেয়ে বেশি লেনদেন করা ক্রিপ্টোকারেন্সি হিসেবে ধরা হয় বিনান্স কয়েনকে। অনেক ট্রেডিং প্ল্যাটফর্ম বিনান্স কয়েন গ্রহণ করে। এটি ফি প্রদানের জন্য একটি টোকেন হিসাবে ব্যবহৃত হয়। ২০১৭ সাল থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত বিনান্স কয়েনের বাজার মূল্যে ব্যাপক পরিবর্তন হয়েছে। বাজারে আসা থেকেই এর দর উর্ধ্বমুখী। আগামী বছরগুলিতেও এই ধারা বজায় থাকবে বলে অনুমান বিষেষজ্ঞদের।

আরও পড়ুন: মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগেও কোটি টাকা আয় করা যায়, জেনে নিন ৫ বড় সুবিধা!

টিথার (Tether) অন্যান্য ক্রিপ্টোকারেন্সির তুলনায় টিথার কিছুটা আলাদা। এটা স্থিতিশীল। অন্যান্য ক্রিপ্টোকারেন্সির মতো এর দর ওঠানামা করে না। বর্তমানে বিশ্বের তৃতীয় দামি ক্রিপ্টোকারেন্সি হিসেবে এই ক্রিপ্টো প্রসিদ্ধ।

সোলানা (Solana) একে ইথেরাম কিলারও (Ethereum Killer) বলা হয়৷ ডিজিটাল লেনদেনের জন্য বিকেন্দ্রীভূত একটি অ্যাপ তৈরি করে এটি। ২০২১ সালে এর দাম বেড়েছে ১০,১১৮ শতাংশ। এই মুহূর্তে ভারতে এর দাম ১৫ হাজার ৫৩০ টাকা।

কার্ডানো (Cardano) ফ্লেক্সিবল নেটওয়ার্ক এবং দ্রুত লেনদেন হওয়ায় এই কয়েনের জনপ্রিয়তা ক্রমশ ঊর্দ্ধমুখী। বিকেন্দ্রীভূত এই কয়েনের লেনদেন ফি অনেক কম। স্মার্ট কন্ট্রাক্ট প্রজেক্টের দৌলতে ব্লকচেন মার্কেটে বেশ সাড়া ফেলেছে কার্ডানো। এই ক্রিপ্টোকারেন্সি প্রসিদ্ধ কম এনার্জি লেভেল ব্যবহারের জন্য। এর বর্তমান মূল্য ১.৪ ডলারের কাছাকাছি। ভবিষ্যতে এই ক্রিপ্টোকারেন্সির মূল্য যে আরও বাড়বে তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না!

Published by:Dolon Chattopadhyay
First published: