Home /News /business /
ভুল নয়, বিচক্ষণতাই কাম্য! উইল তৈরির সময় যে ৫ গুরুত্বপূর্ণ বিষয় মাথায় রাখতেই হবে!

ভুল নয়, বিচক্ষণতাই কাম্য! উইল তৈরির সময় যে ৫ গুরুত্বপূর্ণ বিষয় মাথায় রাখতেই হবে!

উইলের খসড়া তৈরির সময় যে ৫টি বিষয় মনে রাখতে হবে, তা বিশ্লেষণ করে বুঝিয়ে দিয়েছেন Bankbazaar.com-এর CEO আদিল শেঠি (Adhil Shetty)।

  • Share this:

#কলকাতা: পরিবারের কর্তা বা অভিভাবকের মৃত্যুর পর সম্পত্তি নিয়ে বাকি সদস্যদের মধ্যে দ্বন্দ্ব খুব সাধারণ ব্যাপার। ভারতের মতো দেশে একান্নবর্তী পরিবার অনেক, তাই একাধিক উত্তরাধিকার থাকাটাও স্বাভাবিক। কর্তা বা অভিভাবকের মৃত্যুর পর উত্তরাধিকারদের মধ্যে সম্পত্তির শান্তিপূর্ণ বণ্টন নাও হতে পারে। কিন্তু উইল করা থাকলে সেই ঝুঁকি কমে।

উইল হল একটা আইনি উপকরণ। পরিবারের সদস্য কিংবা কর্তা তাঁর সম্পত্তির ভাগ যখন দিতে চান তখন সেই সম্পত্তি বণ্টন পরিকল্পনার রূপরেখা হিসাবে উইল কাজ করে। এটা সম্পত্তি নিয়ে পরিবারের সদস্যদের মধ্যে ঝামেলা এবং বিবাদ এড়াতে সাহায্য করে।

শুধু তাই নয়, কষ্টার্জিত অর্থ এবং সম্পত্তি- গয়না, ব্যাঙ্ক ব্যালেন্স এবং অন্যান্য যা কিছু আছে, তা ইচ্ছা অনুযায়ী সঠিক হাতে থাকবে জেনে মনেও শান্তি আসে।

আরও পড়ুন: ব্যক্তিগত ঋণ এবং ক্রেডিট লাইনের ফারাক কোথায়? ঋণ নেওয়ার আগে ঠান্ডা মাথায় ভাবুন

অতএব উইল করে যাওয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং প্রত্যেকেরই এর প্রয়োজনীয়তা বোঝা উচিত। এই কারণে প্রায়ই বলা হয়, উইল শুধুই ধনীদের জন্য নয়, সকলের জন্য। উইল লেখা খুবই সহজ যদি সঠিক পদ্ধতিতে করা যায়। এ জন্য বিশদ, পরিষ্কার চিন্তাভাবনা, দূরদর্শিতা এবং আবেগকে একপাশে সরিয়ে রাখার ক্ষমতা থাকাও প্রয়োজন।

উইলের খসড়া তৈরির সময় যে ৫টি বিষয় মনে রাখতে হবে, তা বিশ্লেষণ করে বুঝিয়ে দিয়েছেন Bankbazaar.com-এর CEO আদিল শেঠি (Adhil Shetty)।

ঘোষণাপত্র

শুরুতে উইল লেখককে নিজের ব্যক্তিগত বিবরণ দিতে হয়, যেমন নাম, বয়স, আবাসিক ঠিকানা এবং পিতামাতার নাম। কোনও সংক্ষিপ্ত রূপ ব্যবহার না করাই উচিত। বরং উইল লেখার সময় বিশদ বিবরণ সম্পূর্ণ রূপে প্রকাশ করতে হয় যাতে নিশ্চিত হওয়া যায় উইল লেখক কারও প্রভাবে নয় বরং স্বাধীন আছেন। এ থেকে স্পষ্ট হয়ে যায় ব্যক্তিগত বিবরণ দেওয়ার সময় উইল লেখক নিজের নিয়ন্ত্রণে আছেন।

আরও পড়ুন: ৫০ শতাংশ কর্মী কাজ করবেন বাড়ি থেকে! নতুন নিয়ম ঘোষণা করল কেন্দ্র

সম্পদ সনাক্তকরণ

নিজের সম্পদের বিশদ মূল্যায়ন করতে হবে- আর্থিক এবং শারীরিক। এ জন্য সম্পদের সম্পূর্ণ তালিকা করতে হবে। এর মধ্যে আপনার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট, লকার, বিমা পলিসি, শেয়ারে বিনিয়োগ, মিউচুয়াল ফান্ড বা বন্ড এবং পিপিএফ এবং ইপিএফের মতো অবসর তহবিল অন্তর্ভুক্ত করা উচিত।

অছি

উইল লেখকের মৃত্যুর পরই তাঁর ইচ্ছা কার্যকর হবে। সেই ইচ্ছে সফলভাবে কার্যকর হচ্ছে কি না তা দেখার জন্য উইল লেখক থাকবেন না। তাই একজন ব্যক্তি বা অছি নিযুক্ত করতে হবে যিনি উইল লেখকের মৃত্যুর পর তাঁর ইচ্ছা এবং নির্দেশাবলী বাস্তবায়িত করবেন। উইল লেখকের মৃত্যুর পর তাঁর নির্দেশ কার্যকর করার দায়িত্বে থাকবেন অছি। বিভ্রান্তি এড়াতে উইল লেখককে অছির সম্পূর্ণ বিবরণ উল্লেখ করতে হবে, যেমন তাঁর নাম, ঠিকানা এবং উইল লেখকের সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক। এছাড়া একজন বিকল্প অছি বা নির্বাহক নিয়োগ করার পরামর্শও দেওয়া হয় যাতে মূল নির্বাহক যদি নির্দেশ অনুযায়ী উইল সম্পাদন করতে না চান বা অক্ষম হন তাহলে এক্ষেত্রে এই দ্বিতীয় ব্যক্তি উইল লেখকের ইচ্ছা বা নির্দেশ বাস্তবায়িত করবেন।

সুবিধেভোগী

উইলের সুবিধে যাঁরা পাবেন সেই সব পরিবারের সদস্য বা ব্যক্তিদের নামের তালিকা করতে হবে। এটা একটা চতুর প্রস্তাব মনে হতে পারে কারণ এর জন্য উইল লেখককে সম্পর্ক, অর্থ এবং নিজের আবেগগুলোকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে। সুবিধেভোগীদের নামের তালিকা করার সময় কখনওই ডাক নাম নয়, তাঁদের পুরো নাম ব্যবহার করার পরামর্শ দেওয়া হয়। নামের পাশাপাশি তাঁদের ঠিকানা, সরকারি জন্ম তারিখ এবং সুবিধেভোগীর সঙ্গে উইল লেখকের সম্পর্কের বিবরণ নথিভুক্ত করতে হবে। যে অনুপাতে ইচ্ছা, ভেবেচিন্তে সেই মতো সম্পদ বরাদ্দ করতে হবে। এটা করার সময় নির্দেশাবলী যেন পরিষ্কার হয়, তাতে যেন অস্পষ্টতার কোনও জায়গা না থাকে যাতে পরে ভুল ব্যাখ্যা করা যায় সেটা নিশ্চিত করতে হবে। প্রয়োজনে পেশাদার আর্থিক এবংআইন বিশেষজ্ঞদের সাহায্য নেওয়া যায়।

আরও পড়ুন: হোয়াটসঅ্যাপে চলে আসবে ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের নানা তথ্য! নয়া উদ্যোগ এসবিআই-এর

সাক্ষী

উইল প্রস্তুত হয়ে গেলে তাতে তারিখ, সঠিকভাবে সাক্ষর করতে হবে। সঙ্গে নিশ্চিত করতে হবে যেন কমপক্ষে ২ জন সাক্ষী থাকেন যাঁরা সুবিধেভোগী হতে পারবেন না। মনে রাখতে হবে, উইল লেখকের ইচ্ছে পড়া বা বিষয়বস্তু জানার কোনও প্রয়োজন সাক্ষীদের নেই। যখন উইললেখক স্বাক্ষর করেন তখন তাঁদের একটি আইনি প্রয়োজনীয়তা হিসাবে উপস্থিত থাকতে হয় যাতে এর সত্যতা পরবর্তীতে প্রশ্নবিদ্ধ না হয় এবং নির্বাহক বা অন্য কোনও কর্তৃপক্ষের কাছে উইলের সাক্ষী হওয়ার প্রস্তুত প্রমাণ থাকে। যদিও উইলের প্রতিটি পৃষ্ঠায় সাক্ষর এবং তারিখ দিতে হবে তবুও শেষ পৃষ্ঠার প্রতি বিশেষ যত্ন নেওয়া উচিত। সেখানে কেবল উইল লেখকের সাক্ষরই নয়, সাক্ষীদের নাম, ঠিকানাও থাকতে হবে।

সময়ে সময়ে উইলের পর্যালোচনা করা গুরুত্বপূর্ণ। উইল লেখকের সম্পত্তি এবং তারিখের সর্বশেষ আপডেটের সঙ্গে উইল লেখকের ইচ্ছা বা নির্দেশের আপডেটও নিশ্চিত করতে হয়। তবে এটা করার সময় উইলের আগের সংস্করণটি বাতিল করতে হবে, নাহলে বিভ্রান্তি তৈরি হতে পারে। উইল হল আর্থিক এবং উত্তরাধিকার পরিকল্পনার একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। এটা মৃত্যুর পরেই কার্যকর হবে, প্রিয়জন, বিশেষ করে নির্ভরশীল এবং অপ্রাপ্তবয়স্করা, পরিবারের কর্তার মৃত্যুর ফলে উদ্ভূত সম্ভাব্য ঝুঁকি থেকে রক্ষা পেতে উইল লেখকের দিকেই তাকিয়ে রয়েছেন ভুললে চলবে না।

Published by:Dolon Chattopadhyay
First published:

Tags: Property Will

পরবর্তী খবর