Home /News /west-bardhaman /
Paschim Bardhaman: দুর্গাপুরে দুর্গা পুজোর ঢাকে কাঠি, দেবী অবতীর্ণ হবেন জীবন যুদ্ধে 

Paschim Bardhaman: দুর্গাপুরে দুর্গা পুজোর ঢাকে কাঠি, দেবী অবতীর্ণ হবেন জীবন যুদ্ধে 

রথের চাকা গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গেই বাংলার বিভিন্ন জায়গায় শুরু হয়ে গিয়েছে দুর্গাপুজোর প্রস্তুতি। আগমনীর আগমনের অপেক্ষায় বাঙালি কাউন্টডাউন শুরু করে দিয়েছে।

  • Share this:

    #পশ্চিম বর্ধমান : রথের চাকা গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গেই বাংলার বিভিন্ন জায়গায় শুরু হয়ে গিয়েছে দুর্গাপুজোর প্রস্তুতি। আগমনীর আগমনের অপেক্ষায় বাঙালি কাউন্টডাউন শুরু করে দিয়েছে। আর পুজো উদ্যোক্তারা শুরু করে দিয়েছেন খুঁটি পুজো। রথযাত্রার দিনে খুঁটি পুজো অত্যন্ত শুভ বলে মনে করেন পুজোর উদ্যোক্তারা। সেজন্যই এই দিনটাকে দুর্গাপুজোর শুভারম্ভের জন্য অনেক বড় বড় উদ্যোক্তারা বেছে নেন। তেমনি রথযাত্রার দিনে খুঁটি পুজো সম্পন্ন হয়েছে দুর্গাপুরের সি জোন বৌদ্ধবিহার সার্বজনীন কমিটির দুর্গাপুজোর। চলতি বছর তাদের থিম 'জীবন যুদ্ধে মা'। প্রতিবছরই সি জোনের বৌদ্ধবিহার ক্লাবের প্রতিমা এবং মণ্ডপে নানারকম থিম ফুটে ওঠে। দুর্গা পুজোর মন্ডপের থিমের মধ্যে দিয়ে ফুটে ওঠে নানা রকম সামাজিক বার্তা। এ বছরও তেমনি এক বার্তা নিয়ে হাজির হতে চলেছে এই ক্লাবের পুজো। দুর্গাপুর শহরের অন্যতম পরিচিত ও জনপ্রিয় দুর্গাপুজো বৌদ্ধ বিহার কমিটির উদ্যোগে আয়োজিত হয়। চলতি বছরে তাদের থিম জীবন যুদ্ধে মা।

    যেখানে দেবী দুর্গাকে আদিবাসী মহিলা রূপে তুলে ধরা হবে। মূলত এই থিমের মধ্যে দিয়ে আদিবাসী মহিলাদের জীবন যুদ্ধ তুলে ধরা হবে। কিভাবে প্রতিনিয়ত তারা জীবনের সঙ্গে সংঘর্ষ করে এগিয়ে যান, সেই বার্তা তুলে ধরা হবে সমাজের কাছে। উল্লেখ্য, বিগত দুবছর মহামারির কারণে সেই অর্থে জাঁকজমকের সঙ্গে দুর্গা পুজোর আয়োজন করা হয়নি কোনও রকম ভাবে নমো নমো করে পার করা হয়েছে দুর্গাপুজো।

    আরও পড়ুনঃ জলেই জন্ম নেবে গাছ! হাইড্রোফোনিক পদ্ধতি সম্বন্ধে জানুন...

    তবে এবার এখনও পর্যন্ত সংক্রমণ আয়ত্তে থাকায়, উদ্যোক্তারা বড়সড়ো করে পুজোর আয়োজন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। সেজন্যই তারা রথযাত্রার দিন খুটি পুজোর মাধ্যমে দুর্গা পুজোর প্রস্তুতি শুরু করে দিতে চাইছেন। এই ক্লাবের মণ্ডপের মধ্যেই তুলে ধরা হবে আদিবাসী সমাজের জীবন যুদ্ধের নানান কাহিনী। তুলে ধরা হবে, আদিবাসী মহিলারা কিভাবে দশভূজা রূপে নানান কাজ করে প্রতিনিয়ত জীবিকা নির্বাহ করেন, ঘর সংসার সামাল দেন।

    আরও পড়ুনঃ বিধানচন্দ্র রায়ের ১৬০ তম জন্ম দিবসে আবেগ ঘন দুর্গাপুর

    মণ্ডপের সঙ্গে সামঞ্জস্যর থাকবে আলোকসজ্জায়। পাশাপাশি প্রতিমার রূপের ক্ষেত্রে বিশেষ চমক থাকবে। যা যথেষ্ট সামঞ্জস্যপূর্ণ হবে মণ্ডপের সঙ্গে, এমনটাই জানিয়েছেন উদ্যোক্তারা। যদিও তারা বিষয়টি নিয়ে এখনই খোলসা করতে চাননি।

    Nayan Ghosh
    Published by:Soumabrata Ghosh
    First published:

    Tags: Durga Puja 2022, Durgapur, Paschim bardhaman

    পরবর্তী খবর