• Home
  • »
  • News
  • »
  • uncategorized
  • »
  • সেন্সর বোর্ডকে তুলোধনা, দূর হোক পাকিস্তানি অভিনেতা ! দুই ছবি নিয়ে বলিউডে বিতর্কের ঝড়

সেন্সর বোর্ডকে তুলোধনা, দূর হোক পাকিস্তানি অভিনেতা ! দুই ছবি নিয়ে বলিউডে বিতর্কের ঝড়

প্রত্যেক বছরের মতো এ বছরও বলিউডে মুক্তি পেয়েছে প্রচুর ছবি ৷ কোনও ছবি ধোপে টেকেনি ৷ তো কোনও ছবি বক্স অফিসে তুমু ঝড় তুলেছে

প্রত্যেক বছরের মতো এ বছরও বলিউডে মুক্তি পেয়েছে প্রচুর ছবি ৷ কোনও ছবি ধোপে টেকেনি ৷ তো কোনও ছবি বক্স অফিসে তুমু ঝড় তুলেছে

প্রত্যেক বছরের মতো এ বছরও বলিউডে মুক্তি পেয়েছে প্রচুর ছবি ৷ কোনও ছবি ধোপে টেকেনি ৷ তো কোনও ছবি বক্স অফিসে তুমু ঝড় তুলেছে

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #মুম্বই: প্রত্যেক বছরের মতো এ বছরও বলিউডে মুক্তি পেয়েছে প্রচুর ছবি ৷ কোনও ছবি ধোপে টেকেনি ৷ তো কোনও ছবি বক্স অফিসে তুমু ঝড় তুলেছে ৷ তবে ট্রেন্ড ঘাঁটলে যা দেখা যাচ্ছে, বক্স অফিসের রিপোর্ট কম, বরং দেশ জোড়া বিতর্কই যেন এবার বলিউডে ছিল একমাত্র প্রাপ্য ৷

    সেরা বিতর্কে ফাঁসা ছবির যদি নাম করতে হয়, তাহলে প্রথমেই চলে আসে করণ জোহর পরিচালিত অ্যায় দিল মুশকিল ৷ তবে বিতর্কের শুরুটা হয়েছিল ছবির কোনও উপাদান থেকে নয়, বরং ছবিতে থাকা পাকিস্তানি অভিনেতা ফাওয়াদ খানকে নিয়েই ৷ পাকিস্তনি জঙ্গিরা হামলা করে বসল কাশ্মীরের ভারতীয় সেনার ক্যাম্প উরিতে ৷ আর এই হামলার ছাপ গিয়ে পড়ল করণ জোহরের ছবি অ্যায় দিল হ্যায় মুশকিলে !

    ‘অ্যায় দিল হ্যায় মুশকিল’ স্ক্রিনিং নিয়ে কোনও ধরণের বিবাদ হলে, তা সামলে নেবে পুলিশ ৷ এইভাবে দর্শকদের আশ্বাস দিয়েছিল মুম্বই পুলিশ ৷ কিন্তু বুধবার ফের করণ জোহরের এই ছবি নিয়ে প্রতিবাদী হয়ে উঠল মহারাষ্ট্র নব নির্মাণ সেনা ৷

    নব নির্মাণ সেনার মুখপাত্র অময় খোপকার CNN-News18-কে জানাল, ‘এই ছবি নিয়ে আমাদের প্রতিবাদ চলতেই থাকবে ৷ কেউ যদি আমাদের বাধা দিতে চেষ্টা করে, দরকার পড়লে তাদের ওপর মারধরও করা হবে !’

    মহারাষ্ট্র নব নির্মাণ সেনার নেতৃত্ব শালিনী ঠাকরের CNN-News18-কে জানান, ছবির নির্মাতারা জানেন, ছবি মহারাষ্ট্রে মুক্তি পেলে মহারাষ্ট্র নব নির্মাণ সেনারা কী করতে পারে!

    ‘অ্যায় দিল হ্যায় মুশকিল’ বিতর্ক নিয়ে বেশ কিছুদিন চুপই ছিলেন ছবির পরিচালক করণ জোহর ৷ মঙ্গলবার এক ভিডিও মেসেজের মধ্যে দিয়ে গোটা দেশকে তিনি জানালেন নিজের মনের কথা ৷ ভিডিও মেসেজে করণ জানালেন, ‘অ্যায় দিল হ্যায় মুশকিল নিয়ে যে বিতর্ক তৈরি হয়েছে, তা নিয়ে আমি চুপ ছিলাম ৷ কিছিু সপ্তাহ ধরে আমার চুপ থাকার পিছনে রয়েছে কিছু বিশেষ কারণ ৷ আজকে আমি পুরো বিষয়টি সামনে আনতে চাই ৷ আমি চুপ ছিলাম, কারণ আমার ছবি নিয়ে যা শুরু হয়েছে, তা নিয়ে আমি খুবই দুঃখিত, মর্মাহত ৷ কিছু মানুষ মনে করে আমি জাতীয়তাবাদের বিরোধী ৷ এই মনোভাবের উত্তর দিতে চাই ৷ খুব দৃঢ়ভাবেই এই ধরণের মনোভাবকে সমালোচনা করতে চাই ৷ আমার কাছে আমার দেশই প্রথম ৷ আমার কাজের মধ্যে দিয়ে সব সময়ই দেশের প্রতি প্রেমকে গোটা দুনিয়ার কাছে ছড়িয়ে দিয়েছি৷’

    করণ জোহর আরও বলেন, ‘যখন আমি অ্যায় দিল হ্যায় মুশকিল শ্যুট করছিলাম, অর্থাৎ গত বছরের সেপ্টেম্বর থেকে ডিসেম্বর মাসে ৷ তখন দেশের পরিবেশটা একেবারেই অন্যরকম ছিল ৷ বরং পাকিস্তান ও ভারতের মধ্যে সু-সম্পর্ক স্থাপন করার এক প্রচেষ্টা দেখা গিয়েছিল ৷ আমি সেই প্রচেষ্টাকেও সাধুবাদ জানাই ৷ আর এখন যে দু’দেশের সম্পর্কের টানাপোড়েন সেই বিষয়টি সম্পর্কেও সম্যক ধারণা রয়েছে ৷ এই পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখেই, তাই আমি ঠিক করেছি ভবিষ্যতে পাকিস্তানি ট্যালেন্ট নিয়ে কাজ করা থেকে বিরত থাকব ৷ কিন্তু আমি বলতে চাই ৷ এই ছবির সঙ্গে প্রায় ৩০০ ভারতীয় জড়িত ৷ যারা কঠোর পরিশ্রমের মধ্যে দিয়ে ছবিটা তৈরি করেছে ৷ আমার মনে হয় এই ছবি নিয়ে যে সমালোচনার ঝড় উঠেছে, তা হওয়া উচিত নয় ৷’

    করণ জোহর জানান, ‘আমি ভারতীয় সেনাদের সম্মান করি ৷ জঙ্গি হামলার সমালোচনা করি ৷ তীব্র নিন্দা করি ৷ আমার মনে হয় আমি আমার মনোভাবকে সবার কাছে পৌঁছতে পারলাম ৷ আমি আমার দেশকে ভালোবাসি ৷ এটাই স্পষ্ট করতে চাই !’

    বিতর্কের তালিকায় এবার যে সিনেমার নাম আসে তা হল অনুরাগ কাশ্যপের ‘উড়তা পঞ্জাব’ ! তবে এবার গোটা দোষটাই সেন্সর বোর্ডের ৷ ছবির একটি গান, আপত্তিকর কিছু দৃশ্য ও সংলাপের জন্য ছবির মুক্তিকে রীতিমতো আটকে দিতে চেয়েছিলেন সেন্সর বোর্ড চেয়ারম্যান পহেলাজ নিহালনি ৷ ‘উড়তা পঞ্জাব’ ছবির মুক্তি নিয়ে গোটা দেশে উঠেছিল ঝড় !

    বলিউডের কড়া নজরে ফের সেন্সর বোর্ড ও চেয়ারম্যান পহেলাজ নিহালনি ৷ গত এক সপ্তাহ ধরে শাহিদ-করিনা-আলিয়ার ‘উড়তা পঞ্জাব’ ছবি নিয়েই বিতর্ক তুঙ্গে গোটা বলিউডে ৷ সেন্সর বোর্ডের সমালোচনা করে প্রায় গোটা বলিউড পাশে এসে দাঁড়িয়েছে ছবির প্রযোজক অনুরাগ কাশ্যপ ৷ এমনকী, সেন্সর বোর্ডের বিরুদ্ধে মুম্বই হাইকোর্টে মামলাও দায়ের করেছে ‘উড়তা পাঞ্জাব’-এর প্রযোজক ও পরিচালক ৷

    বুধবার এই বিতর্ক ঘিরে এক বিশেষ সাংবাদিক বৈঠক আয়োজন করে বলিউডের তাবড়রা ৷ সাংবাদিক বৈঠকে সেন্সর বোর্ডের আচরণকে সমালোচনা করে পরিচালক মহেশ ভাট বলে, ‘উড়তা পঞ্জাব’ ছবিতে আমি পরিচালকের কাজের প্রশংসা করছি ৷ সেন্সর বোর্ডের অরাজকতা চলতে পারে না৷’

    ‘উড়তা পঞ্জাব’ ইস্যু নিয়ে এখন একজোট বলিউড ৷ বুধবারের বৈঠকে পরিচালক জোয়া আখতার বলেন, ‘সেন্সর বোর্ড স্কুল প্রিন্সিপালের মত করছে ৷ যতই বাধা আসুক সিনেমা মুক্তি পাবেই ৷ ইন্টারনেটেও দর্শক দেখতে পাবে ৷ ’

    শাহিদের এই ছবি নিয়ে বিতর্ক ওঠে ছবির নামে ‘পঞ্জাব’ ব্যবহার করাতেই ৷ ছবির গল্প পঞ্জাবে নেশা ও মাদকের ব্যবহার নিয়ে, পঞ্জাবের ইয়ং জেনারেশনে মাদকাসক্তি নিয়ে ৷ পরিচালক ও প্রযোজকের কথায়, ‘উড়তা পঞ্জাব’ থেকে পঞ্জাব সরিয়ে নিলে বিষয়টিই স্পষ্ট হবে না ৷ অন্যদিকে সেন্সর বোর্ডের চেয়ারম্যান পহেলাজ নিহালনি আপত্তি তুলেছে এই ‘পঞ্জাব’ শব্দ নিয়েই ৷ শুধু তাই নয়, পহেলাজ নিহালনি ‘ঘুষ’ খাওয়ার অভিযোগ তুলেছেন অনুরাগের বিরুদ্ধে ৷

    বুধবার বৈঠকে অনুরাগ কাশ্যপ জানিয়েছেন, ‘বিভিন্ন ধরণের সিনেমা তৈরি হচ্ছে ৷ তিনি একা দেশের নীতিবোধ তৈরি করতে পারেন না ৷ আমি শেষ পর্যন্ত লড়ব ৷ দর্শকদের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করা অপরাধ ৷ একনায়কতন্ত্র চালাচ্ছেন নিহালনি ৷ সেন্সর বোর্ডের অরাজকতা কয়েক বছর ধরে চলছে ৷ আমি অনেকদিন ধরে এর প্রতিবাদ করছি ৷ এই সিনেমা নিয়ে অযথা রাজনীতি হচ্ছে ৷ আমি বাস্তব ঘটনা নিয়ে সিনেমা করি ৷ রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে সিনেমা আজ পর্যন্ত করিনি ৷ সাধারণের জন্য সিনেমা করি ৷ আমি এভাবে সাংবাদিক বৈঠকে বসব ভাবিনি ৷ আমি রাজনীতি করি না, সিনেমা তৈরি করি ৷ ’

    First published: