Home /News /technology /
Pay By Face: আর লাগবে না টাকা পয়সা, মুখ দেখিয়েই জিনিস কেনা যাবে এই সব দোকান থেকে

Pay By Face: আর লাগবে না টাকা পয়সা, মুখ দেখিয়েই জিনিস কেনা যাবে এই সব দোকান থেকে

Facial Recognition Payment | যে ভাবে ফোনের লক খুলে যায় সে ভাবেই খুলে যাবে লেনদেনের গেটওয়ে

  • Share this:

    Pay By Face: এ বার থেকে কার্ড, নগদ এমনকী মোবাইল ফোন ছাড়াও দোকানে গিয়ে কিনে আনা যাবে জিনিসপত্র। শোনা যাচ্ছে MasterCard এক নতুন প্রযুক্তির নিয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষা চালাচ্ছে। আর তা বাস্তবায়িত হয়ে গেলে শুধু মাত্র মুখ দেখিয়েই মিলবে জিনিসপত্র। এই নতুন বায়োমেট্রিক চেকআউট প্রোগ্রাম (Biometric Checkout Program)-এ ক্রেতাকে দোকানে গিয়ে শুধু মাত্র তাঁর নিজের মুখটি স্ক্যান করাতে হবে। দোকান মালিকের ফোন অথবা অন্য যন্ত্রে আগে থেকেই ইনস্টল করা থাকতে হবে এই প্রযুক্তি। স্ক্যানিং ঠিক হলে যে ভাবে ফোনের লক খুলে যায় সে ভাবেই খুলে যাবে লেনদেনের গেটওয়ে।

    এই পাইলট Pro গ্রাম শুরু হয়েছে ব্রাজিলে। জানা গিয়েছে ব্রাজিলের সাও পাওলো শহরের একটি দোকানে সম্প্রতি চালু করা হয়েছে এই Proগ্রাম, যা নিয়ে এসেছে ব্রাজিলের একটি স্টার্ট-আপ সংস্থা পে ফেস (Payface)। মাস্টার কার্ডের সিনিয়ার ভাইস প্রেসিডেন্ট ব্লুমবার্গ নিলি ক্লেনফ (Bloomberg Nili Klenoff) জানিয়েছেন যে, ‘এই প্রযুক্তিতে আরও বেশি সংখ্যক ফিচার ব্যবহার করা যেতে পারে। যেমন বয়স নির্ধারণ করে কোনও জিনিস বিক্রি করা সম্ভব। এটি নতুন একটি পদ্ধতি যার অনেক দিক রয়েছে। নতুন এই প্রযুক্তির বিষয়ে আমরা খুবই আশাবাদী।’

    আরও পড়ুন - iPhone-এর ব্যাটারি নিঃশেষিত হচ্ছে দ্রুত? আপনার হাতেই রয়েছে সহজ উপায়

    আরও পড়ুন - WhatsApp Pay-তে এবার থেকে নতুন নিয়ম চালু! আর টাকা জালিয়াতির ভয় থাকবে না!

    অনলাইন পেমেন্টের ক্ষেত্রে নতুন এই Face Recognition পদ্ধতি চালু হলে জালিয়াতি অনেকটাই কম হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল। গত মাসেই এ ধরনের প্রযুক্তির আভাস দিতে শুরু করেছে ওয়ালটেমর (Walletmor) নামে একটি সংস্থা। এরা নিয়ার ফিল্ড কমিউনিকেশন (Near-Field Communication/NFC) ব্যবহার করে। ওই NFC প্রযুক্তি দীর্ঘদিন ধরেই স্মার্টফোনগুলিতে ব্যবহৃত হচ্ছে।

    গত মাসে এই সংস্থা দাবি করেছিল তারা একটি চিপ মানুষের হাতে বসিয়ে দেবে। তার ফলে অন্য কোনও রকম ডিভাইসেরই দরকার পড়বে না। হাত দিয়েই হবে যাবতীয় লেনদেন। ওয়ালটেমরের এই চিপের ওজন হতে পারে এক গ্রামের থেকেও কম, আকারে একটি চালের দানার থেকে কিছুটা বড়। সংস্থার CEO দাবি করেন, এই চিপ সব রকম ভাবে নিরাপদ এবং সমস্ত প্রয়োজনীয় শর্তা পূরণ করেই বানান হয়েছে।

    Published by:Ananya Chakraborty
    First published:

    Tags: Digital payments, Tech news

    পরবর্তী খবর