corona virus btn
corona virus btn
Loading

EXCLUSIVE: ZOOM ব্যবহার করেছেন? হ্যাকারদের থেকে বাঁচতে এবার আপনাকে যা করতে হবে

EXCLUSIVE: ZOOM ব্যবহার করেছেন? হ্যাকারদের থেকে বাঁচতে এবার আপনাকে যা করতে হবে

প্রত্যেকে মিটিং 'এন্ড' করবেন , শুধুমাত্র 'লিভ' করবেন না, এটা নিশ্চিত করুন। এইসব পরামর্শগুলো মেনে চললেই আপনি থাকবেন সুরক্ষিত অন্তত এমনটাই বলছেন তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা।

  • Share this:

#কলকাতা: লকডাউনের  জেরে অনেকেই আজ  ওয়ার্ক ফ্রম হোমের  মাধ্যমে অফিস সামলাচ্ছেন। আবার দীর্ঘদিন যাবৎ স্কুল-কলেজ ছুটি থাকায় সঠিক সময়ে সিলেবাস শেষ করতে পড়ুয়াদের সুবিধার্থে অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান অনলাইনে ক্লাস শুরু করেছে। আর এই সুযোগে মোবাইল, ল্যাপটপে সিঁধ  কাটছে হ্যাকাররা।

তাজ্জব হচ্ছেন? না অন্তত কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের তরফে এক নির্দেশিকা জারি করার পর রীতিমত ঘুম ছুটেছে অনেকেরই। অসুরক্ষিত  'জুম' অ্যাপের  মাধ্যমে আমার গুরুত্বপূর্ণ তথ্য হ্যাকারদের কাছে পৌঁছে যায়নি তো ? আজ এই প্রশ্ন জন্ম নিয়েছে অনেকের মনেই। হাতে স্মার্টফোন, ল্যাপটপে মুশকিল আসান। বর্তমানে লকডাউনের  সময়ে কাজে-অকাজে ঘরবন্দি মানুষ বিভিন্ন অ্যাপের মাধ্যমে চুটিয়ে ভিডিও কল করে যাচ্ছেন। কিন্তু জানেন কী এই ভিডিও কলের সুযোগ নিয়ে মোবাইল বা ল্যাপটপের  ব্যক্তিগত তথ্য, ছবি ফাঁস করে দেওয়া হ্যাকারদের কাছে এখন কার্যত বায়ে হাত কা খেল?

বিশেষত যদি আপনি 'জুম' কলে অভ্যস্ত হয়ে থাকেন তাহলে আপনি বিপদ সীমায় রয়েছেন। ইতিমধ্যেই 'জুম' অ্যাপ নিয়ে সতর্ক করে নির্দেশিকা জারি করেছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। ঘরে ঘরে দেদার চলছে 'জুম' কল। একটি সমীক্ষা বলছে, লকডাউন চলাকালীন জুমের গ্রাহক সংখ্যা দ্বিগুণ হয়েছে। বিশ্বজুড়েই ভিডিও কলে কেন হঠাৎ জনপ্রিয় হল জুম? হোয়াটসঅ্যাপ ভিডিও কলে চারজনের বেশি ভিডিও কলে যুক্ত করা যায় না। কিন্তু জুমে সর্বোচ্চ একশ জনকে যুক্ত করা যায়।

বহু অ্যাপেই ' End To End Encryption' অপশন নেই। ফলে গ্রাহকদের ফোন কিংবা ল্যাপটপে সিঁধ কেটে ঢুকে পড়ছে হ্যাকাররা। আর এখানেই লুকিয়ে চরম বিপদ। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের নির্দেশিকা বলছে, নিরাপদ নয় 'জুম' অ্যাপ। ব্যক্তিগতভাবে কেউ এই  অ্যাপ ব্যবহার করলে নির্দেশিকা অনুযায়ী তবেই  এই অ্যাপ ব্যবহার করা উচিত। তবে সরকারি কাজে ব্যবহার না করার কথা আগেই স্পষ্ট করে জানিয়ে দিয়েছে কেন্দ্র।

এই অ্যাপ ব্যবহারকারীদের সতর্ক করে  কলকাতার তথ্যপ্রযুক্তি তথা সাইবার বিশেষজ্ঞ সুশোভন মুখোপাধ্যায় News18 Bangla-কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, 'ব্যক্তিগত কাজে 'জুম' ব্যবহার করলে কোনও অচেনা নাম্বারকে কনফারেন্সে ঢুকতে অনুমতি না দিলে গ্রাহকরা তথ্য ফাঁসের প্রশ্নে সুরক্ষিত থাকবেন'।

তবে তাঁর কথায়, এই মুহূর্তে জুম অ্যাপ ব্যবহার থেকে দূরে থাকাই নিরাপদ। সুশোভনবাবু যাঁরা এখনও এই অ্যাপ ব্যবহার করে চলেছেন তাঁদের জন্য বেশ কয়েকটি পরামর্শ দিয়েছেন। যেমন ,                                                                   ১ : প্রতি ভিডিও মিটিংয়ের  জন্যে আলাদা আলাদা ইউজারনেম ও পাসওয়ার্ড ব্যবহার করুন। ২ : ওয়েটিং রুম ফিচার এনেবল করে নিন, যাতে কোনও মিটিংয়ের  হোস্ট অ্যালাউ করলেই অন্যান্য সদস্যরা ভিডিও কনফারেন্সিংয়ে  যোগদান করতে পারবেন। ৩:  'জয়েন বিফোর হোস্ট' ফিচার' ডিজবল  করে দিন । ৪:  স্ক্রিন শেয়ারিং কেবলমাত্র হোস্টই করতে পারবে, এই অপশন চালু করুন। ৫ : যে-সমস্ত যোগদানকারীকে 'রিমুভ' করা হচ্ছে তাঁরা আবার যোগদান করতে পারবে, এই ফিচারটা ডিজবল  করে দিন। ৬ : ফাইল ট্রান্সফার অপশন রেস্ট্রিক্ট করে দিন (মানে কেউ করতে পারবেন না।) ৭ : ভিডিও রেকর্ডিং ফিচার রেস্ট্রিক্ট করে দিন (মানে কেউ করতে পারবেন না।) ৮ : প্রত্যেকে মিটিং 'এন্ড' করবেন , শুধুমাত্র 'লিভ' করবেন না, এটা নিশ্চিত করুন। এইসব পরামর্শগুলো মেনে চললেই আপনি থাকবেন সুরক্ষিত অন্তত এমনটাই বলছেন তথ্যপ্রযুক্তি  বিশেষজ্ঞরা। নচেৎ যে কোনও  মুহূর্তে আপনার যাবতীয় তথ্য এমনকি ক্যামেরাবন্দি ছবিও আপনার অজান্তেই চলে যেতে পারে হ্যাকারদের কাছে। কলকাতা সহ এরাজ্যের অনেকেই বর্তমানে 'জুম' অ্যাপ ব্যবহার করছেন। লকডাউনের  সময়ে যেহেতু অনেককেই বাড়িতে বসেই অফিসের কাজকর্ম করতে হচ্ছে তাই অনবরত ভিডিও কল মারফত প্রয়োজনীয় কাজকর্ম মেটাচ্ছেন । এমনই একজন অটোমোবাইল বিভাগের আধিকারিক অমিত রায়। বেসরকারি সংস্থার কর্মী অমিতবাবু  'জুম' অ্যাপ ব্যবহারের মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন প্রান্তের সহকর্মীদের সঙ্গে প্রতিদিন অফিসের কাজ সামাল দেন।

তবে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের নির্দেশিকা জারি হওয়ার পর আতঙ্কের জায়গা থেকে  এখন অনেকটাই সাবধানে   সেই কাজ করছেন তিনি। তাঁর কথায়, 'যেহেতু আমাদের অধিকাংশ কর্মীই  'জুম' অ্যাপের  উপর নির্ভরশীল তাই আমাদের অফিস কর্তৃপক্ষের তরফেও এই অ্যাপ ব্যবহারের ক্ষেত্রে বেশকিছু নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে। আমরা সেই সমস্ত নির্দেশিকা মেনেই এখন  ভিডিও কলে সামিল হচ্ছি'।একই কথা শোনা গেল সল্টলেক সেক্টর ফাইভের তথ্যপ্রযুক্তি কর্মী সায়ন নন্দীর গলাতেও। তবে তিনি ভীত একটাই প্রশ্নে, এতদিন এই অ্যাপের মাধ্যমে তিনি যে সমস্ত তথ্য বা ছবি সরবরাহ করেছেন তা হ্যাকারদের হাতে চলে যায়নি তো? 'জুম' অ্যাপ নিয়ে চিন্তিত গোটা বিশ্ব। ভারত সরকারের পক্ষ থেকে সরকারি অফিস কাছারিতে  ইতিমধ্যেই এই অ্যাপ না ব্যবহার করার কথা জানানোর পাশাপাশি সতর্কতামূলক দীর্ঘ তালিকা প্রকাশ করে  সতর্ক থাকার কথা বলা হয়েছে সাধারণ গ্রাহকদের। 'জুম' অ্যাপ নিয়ে আতঙ্কের তালিকায় কলকাতা সহ গোটা রাজ্যজুড়েই অফিসকর্মী থেকে শুরু করে  স্কুল কর্তৃপক্ষ কিম্বা পড়ুয়া ব্যবহারকারীরা শঙ্কিত। চিন্তিত। অনেক

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানই এই অ্যাপের মাধ্যমে অনলাইনে ক্লাস নেওয়া বন্ধ করেছে। বেহালার এক স্কুল পড়ুয়া অদ্বিতীয়া রায়ের অভিভাবক ব্রততী রায় শুধু জানান ,' চিন্তায় আছি । স্কুল কর্তৃপক্ষ যেভাবে বলবে  সেভাবেই চলব'। খুব প্রয়োজন ছাড়া এই অ্যাপের  দিকে আর ঝুঁকছেন না সাধারণ গ্রাহকরাও। লকডাউনে  ঘরবন্দী জীবনে দীর্ঘদিন যাবৎ অনেকেরই প্রত্যক্ষভাবে দেখা সাক্ষাৎ হচ্ছে না। তারা দিনের একটা সময় এক ঝাঁক  অফিসের বন্ধু-বান্ধব , অথবা  অন্য কেউ কেউ  সবাই মিলে  'একঘেয়েমি জীবন'  থেকে কিছুটা দূরে সরে এসে 'জুম'  অ্যাপের  মাধ্যমেই কাটাচ্ছিলেন বেশ কিছুটা  অন্য সময়। বিপদের কথা জেনে আজ ওরাঁও সাবধান। সতর্ক।   VENKATESWAR  LAHIRI

Published by: Arindam Gupta
First published: April 20, 2020, 2:43 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर