হোম /খবর /প্রযুক্তি /
মারুতি স্যুইফটের থেকেও কম দাম! শহরে ক্রমশ জনপ্রিয় হচ্ছে বিলাসী এই গাড়ি

Citroen C3: মারুতি স্যুইফটের থেকেও কম দাম! শহরে ক্রমশ জনপ্রিয় হচ্ছে বিলাসী এই গাড়ি

মারুতি স্যুইফটের থেকেও কম দাম! শহরে ক্রমশ জনপ্রিয় হচ্ছে বিলাসী এই গাড়ি

মারুতি স্যুইফটের থেকেও কম দাম! শহরে ক্রমশ জনপ্রিয় হচ্ছে বিলাসী এই গাড়ি

হ্যাচব্যাক বা সেডানের চেয়ে SUV-কে অগ্রাধিকার দিচ্ছেন বেশির ভাগ মানুষ, তবে বিবেচনা করা হচ্ছে তার কর্মক্ষমতা এবং বসার আসন সংখ্যা।

  • Share this:

কলকাতা: এক সময় SUV সেগমেন্টের গাড়িগুলি অ্যাডভেঞ্চার ভেহিকল হিসেবে পরিচিতি পেত। এখন তারা ফ্যামিলি ভেহিকল হিসেবে অনেক বেশি জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। হ্যাচব্যাক বা সেডানের চেয়ে SUV-কে অগ্রাধিকার দিচ্ছেন বেশির ভাগ মানুষ, তবে বিবেচনা করা হচ্ছে তার কর্মক্ষমতা এবং বসার আসন সংখ্যা।

এমনকী, SUV-গুলির মধ্যে মাইক্রো এবং মাঝারি আকারের SUV-এর বিক্রি ক্রমাগত বাড়ছে৷ এর মধ্যে টাটা পাঞ্চ এবং নিসান ম্যাগনাইট-এর চাহিদা তুঙ্গে।

তবে এই মুহূর্তে এই সেগমেন্টের অন্য একটি গাড়ি বাজার মাত করে রেখেছে। দু’বছর আগে এদেশে লঞ্চ হওয়া Citroen C3-এর বিক্রি যে ক্রমশ বাড়ছে তা স্পষ্ট দেখিয়ে দিচ্ছে গ্রাফ।

আরও পড়ুন- চকচক করবে নতুনের মতো ! রান্নাঘরের তেলচিটে এক্সজস্ট ফ্যান নিমেষে সাফ করে নিন এভাবে

Citroen C3-এর অনন্য চেহারা, নতুন ডিজাইন এবং কম দামে সেরা ফিচারগুলি একে প্রবল জনপ্রিয় করে তুলছে। তবে এই SUV বড় শহরগুলিতে ভাল বিক্রি হচ্ছে। কারণ, কোম্পানির নেটওয়ার্ক শুধুমাত্র কয়েকটি শহরে সীমাবদ্ধ। Citroën C3 সম্প্রতি ২০২৩ সালের ওয়ার্ল্ড আরবান কার পুরস্কার পেয়েছে। সামগ্রিক ভাবে, এটি একটি সস্তা গাড়িতেই বিলাসবহুল অনুভূতি দিয়ে থাকে।

মূল্য এবং প্রতিযোগী

গত বছর ২০ জুলাই ভারতে Citroen C3 লঞ্চ করা হয়েছিল। গাড়িটির এক্স-শো-রুম দাম ৫.৯৮ লক্ষ টাকা থেকে শুরু হয় এবং টপ মডেলের দাম এক্স-শোরুমে ৮.২৫ লক্ষ টাকা হতে পারে৷

নতুন C3 ‘লাইভ’ এবং ‘ফিল’— এই দু’টি ভ্যারিয়েন্টে পাওয়া যায়। Citroen C3-তে পাঁচ জনের বসার ক্ষমতা জায়গা রয়েছে। গাড়িটি ভারতের বাজারে টাটা পাঞ্চ এবং মারুতি সুজুকি সুইফটের প্রতিদ্বন্দ্বী।

ডিজাইন ও ফিচার

গাড়ির ভিতরের অংশে ১০ ইঞ্চি টাচস্ক্রিন ইনফোটেনমেন্ট সিস্টেম, ওয়্যারলেস অ্যাপল কারপ্লে এবং অ্যান্ড্রয়েড অটো কানেক্ট, হাইট-অ্যাডজাস্টেবল ড্রাইভার সিট, রিমোট কিলেস এন্ট্রি, চারটি স্পিকার, স্টিয়ারিং-মাউন্টেড কন্ট্রোল এবং টিল্ট-অ্যাডজাস্টেবল স্টিয়ারিংয়ের মতো ফিচার রয়েছে।

আরও পড়ুন- এই গ্রামে গিয়ে থাকলে বিনামূল্যে পাওয়া যাবে বাড়ি, গাড়ি: যাবেন না কি?

বাইরে স্প্লিট হেডল্যাম্প ডিজাইন, সিগনেচার ডুয়াল-স্ল্যাট ক্রোম গ্রিল, ফগ লাইট, সিলভার স্কিড প্লেট, কভার-সহ ১৫ ইঞ্চি স্টিলের চাকা, স্কোয়ারড টেইল লাইট এবং ব্যাক-বাম্পার মাউন্ট করা নম্বর প্লেট রিসেস রয়েছে।

ইঞ্জিন এবং পাওয়ার

গাড়িটি ১.২-লিটার ন্যাচরালি অ্যাসপিরেটেড পেট্রোল ইঞ্জিন দ্বারা চালিত। এটি ফাইভ-স্পিড ম্যানুয়াল ইউনিটের সঙ্গে যুক্ত থাকে।

এছাড়া, ১.২-লিটার টার্বো-পেট্রোল ইঞ্জিন সিক্স-স্পিড ম্যানুয়াল ইউনিটের সঙ্গে যুক্ত। টার্বো ইঞ্জিন ১০৯ bhp শক্তি এবং ১৯০ Nm টর্ক উৎপন্ন করে, ন্যাচারালি অ্যাস্পিরেটেড ইঞ্জিন ৮১ bhp শক্তি এবং ১১৫ Nm টর্ক উৎপন্ন করে।

Published by:Siddhartha Sarkar
First published:

Tags: Maruti, Maruti Suzuki