Home /News /sports /
Umpire Ahsan Raza: এলোপাথাড়ি ফায়ারিং, শরীরে গেঁথে ছিল দুটো বুলেট, সেই মাঠেই ফিরলেন আম্পায়ার!

Umpire Ahsan Raza: এলোপাথাড়ি ফায়ারিং, শরীরে গেঁথে ছিল দুটো বুলেট, সেই মাঠেই ফিরলেন আম্পায়ার!

Umpire Ahsan Raza: এই মাঠে সেদিন দুটো গুলি গেঁথে গিয়েছিল তাঁর শরীরে। আবার সেই মাঠে এলেন! সাহস আছে এই আম্পায়ারের।

  • Share this:

    নয়াদিল্লি: ক্রিকেট ভক্তদের মনে এখনও ৩ মার্চ, ২০০৯-এর স্মৃতি টাটকা আছে নিশ্চয়ই! তারিখটি ভুলবেন না তাঁরা। গোটা বিশ্বের ক্রীড়া ইতিহাসে ওই দিনটিকে একটি অন্ধকার দিন হিসেবে দেখা হয়। ওই দিন শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট টিম গাদ্দাফি স্টেডিয়ামের দিকে যাচ্ছিল। সেই সময় সন্ত্রাসবাদীরা তাঁদের বাসে নির্বিচারে গুলি চালাতে শুরু করে।

    ওই গুলিতে কোনো ক্রিকেটারের প্রাণহানি হয়নি। তবে অনেক ক্রিকেটার আহত হয়েছিলেন। সেদিন বাসে একজন পাকিস্তানি আম্পায়ারও উপস্থিত ছিলেন। তিনি ওই হামলায় গুলিবিদ্ধ হয়েছিলেন।

    আরও পড়ুন- ভারতীয় মেয়েদের আগুনে বোলিং, বাংলাদেশের বিরুদ্ধে জয়ে সেমির স্বপ্ন

    ২০০৯ সালে যখন পাকিস্তানের লাহোরে শ্রীলঙ্কা দলের উপর হামলা হয়, তখন পাকিস্তানি আম্পায়ার আহসান রাজাও গুরুতর আহত হন। আহসান রাজার দুটি গুলি লেগেছিল। পরে তার শরীরে ৮৬টি সেলাই পড়ে। লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে ১৩ বছর পর ফিরেছেন সেই আহসান রাজা। বর্তমানে লাহোরের এই স্টেডিয়ামে আবার আন্তর্জাতিক ম্যাচের আম্পায়ারিং করছেন রাজা।

    ২০০৯ সালের পর প্রথমবারের মতো লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে আন্তর্জাতিক টেস্ট ম্যাচ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। লাহোরে পাকিস্তান ও অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে এটি সিরিজের তৃতীয় ও শেষ টেস্ট ম্যাচ। এই ম্যাচে দায়িত্ব পালন করছেন আহসান রাজা।

    ২০০৯ সালে সন্ত্রাসী হামলার পর এই প্রথম আহসান রাজা এই মাঠে আন্তর্জাতিক ম্যাচ পরিচালনা করছেন। ৪৭ বছর বয়সী আহসান রাজা পাকিস্তানের লাহোরের বাসিন্দা। তিনি এখনও পর্যন্ত ১৩৩টি ম্যাচে আম্পায়ারিং করেছেন।

    শ্রীলঙ্কার টিম বাসে হামলার খবর ছড়িয়ে পড়ে সারা বিশ্বে। পাকিস্তানের কয়েকটি চ্যানেলে এই হামলায় আহসান রাজার মৃত্যু হয়েছে বলে খবর প্রচার শুরু হয়। আহসান রাজা বলেন, তার মোবাইল ফোন একটানা বাজছিল।

    আরও পড়ুন- IPL 2022: কোন মাঠে সবচেয়ে বেশি দর্শক থাকছেন এবারের আইপিএলে

    তিনিও বুঝতে পারছিলেন, বারবার ফোন আসছে বাড়ি থেকে। কিন্তু চোট এত গুরুতর ছিল যে ফোনটা তুলতে পারেননি। সেই সময় লাহোরে ম্যাচের রেফারি ক্রিস ব্রডও তাঁর সঙ্গে ছিলেন।

    পাকিস্তান ও অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে খেলা প্রথম টেস্টে রাওয়ালপিন্ডি ক্রিকেট স্টেডিয়ামে হয়। পিচ সম্পূর্ণ ব্যাটারদের জন্য তৈরি করা হয়েছিল। ম্যাচটি ড্র হয়। করাচির ন্যাশনাল স্টেডিয়ামে ১২ মার্চ থেকে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচ খেলা হয়েছিল। ওই ম্যাচটিও ড্র হয়েছিল। এখন টেস্ট সিরিজের শেষ ম্যাচটি হচ্ছে লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে।

    Published by:Suman Majumder
    First published:

    Tags: Lahore, Pakistan Cricket, Terrorist Attack

    পরবর্তী খবর