'মুকুল রায় অন্তত জানে', শুভেন্দুকে প্যাঁচে ফেলতে মমতার মুখে প্রাক্তন সঙ্গীর নাম

শুভেন্দুকে কোণঠাসা করতে নতুন কৌশল মমতার৷

এ দিন মুখ্যমন্ত্রী একের পর এক পুরনো ঘটনার উল্লেখ করে অধিকারী পরিবারের অস্বস্তি বাড়ানোর চেষ্টা করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷

  • Share this:

    #নন্দীগ্রাম: নন্দীগ্রামে অপারেশন সূর্যোদয়ের সময় ১৫ দিন বাড়ি থেকে বেরোননি শুভেন্দু অধিকারী- শিশির অধিকারীরা৷ এ দিন নন্দীগ্রামে গিয়ে এমনই চাঞ্চল্যকর অভিযোগ করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ তাঁর এই দাবি যে সত্যি, বিজেপি নেতা মুকুল রায় তার সাক্ষী বলেও দাবি করেন মমতা৷ তৃণমূল ত্যাগের পর শেষ কবে মমতা মুকুল রায়ের নাম নিয়েছেন, তা স্মরণকালের মধ্যে মনে করা যাচ্ছে না৷

    নন্দীগ্রামে গিয়ে এ দিন গোটা অধিকারী পরিবারকেই তীব্র আক্রমণ করেন মুখ্যমন্ত্রী৷ বিশেষত তাঁর নিশানায় ছিলেন শুভেন্দু এবং শিশির অধিকারী৷ প্রাক্তন দুই তৃণমূল নেতার বিরুদ্ধে একের পর এক বিস্ফোরক অভিযোগ করতে থাকেন তৃণমূলনেত্রী৷ মমতা এ দিন দাবি করেন, শিশির- শুভেন্দুর সহযোগিতাতেই ২০০৭ সালে পুলিশ ঢুকেছিল নন্দীগ্রামে৷ এই প্রসঙ্গেই মমতা দাবি করেন, নন্দীগ্রামে জমি বিরোধী আন্দোলন যখন চলছিল, তখন ১৫ দিন বাড়ি থেকে বেরোননি শিশির এবং শুভেন্দু অধিকারী৷

    ১৪ বছর আগে নন্দীগ্রামের ঘটনার কথা উল্লেখ করে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, 'সেদিন কোনও বাপও ছিল না, ব্যাটাও ছিল না, জ্যাঠাও ছিল না৷ আমি আমার মায়ের নাম নিয়ে বলছি, সেদিন ওরা কেউ ছিল না৷ কেউ বেরোয়নি৷ এর পর আমি কল্যাণকে বলে হাইকোর্টে মামলা করালাম৷ যাতে সিবিআই ঢুকলে নন্দীগ্রামের মানুষগুলো বাঁচে৷'

    মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আরও বলেন, 'সূর্যোদয় হলো মনে আছে আপনাদের কালীপুজোর পরে৷ সেদিন আমি কালীপুজোয়া বাড়ি যেতে পারিনি৷ আমার মা আমার উপরে খুব রাগ করল৷ নন্দীগ্রাম থেকে তখন সুফিয়ান, মহাদেবরা ফোন করে গুলির আওয়াজ শোনাচ্ছে৷ তার পর যেই শুনলাম অত গুলো লোককে মেরে ফেলেছে, আমি মারপিট, ঝগড়া করতে করতে নন্দীগ্রামে এসে ঢুকেছিলাম৷ তাই সেদিন নন্দীগ্রাম বেঁচেছিল৷ লক্ষ্মণ শেঠ আর বিজেপি-র হার্মাদরা, তখন সব সিপিএম করত, রাস্তাঘাট সব দখল করে রেখে দিয়েছিল৷ এর পরে যদি আমাকে কেউ বলে আমি বহিরাগত আর তারা ভূমিপুত্র! জিজ্ঞেস করুন, জমি আন্দোলন- অপারেশন সূর্যোদয়ের সময় কোথায় ছিলে? ১৫ দিন বাড়ি থেকে বেরোওনি৷ আজকে আমাকে ভুলে যান, বিজেপি নেতা মুকুল রায়কে গিয়ে জিজ্ঞেস করুন৷ সে অন্তত জানে, যদি সত্যি কথা বলে৷ '

    এ দিন মুখ্যমন্ত্রী একের পর এক পুরনো ঘটনার উল্লেখ করে অধিকারী পরিবারের অস্বস্তি বাড়ানোর চেষ্টা করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ চাঞ্চল্যকর দাবি করে বলেছেন, শিশির অধিকারীকে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী করায় ক্ষোভে তাঁর শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে যাননি শুভেন্দু৷ আর পুরনো কথা টেনে এনে মুকুল রায়কে সাক্ষী রেখে বিজেপি-র অস্বস্তিও বাড়িয়ে দিলেন মমতা৷ এ দিন থেকেই নন্দীগ্রামে ঘাঁটি গাড়লেন মুখ্যমন্ত্রী৷ আগামী ১ এপ্রিল ভোট পর্যন্ত সেখানেই থাকবেন তিনি৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: