• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • MIDNAPORE MAMATA BANERJEE ACCUSES THAT SUVENDU ADHIKARI EXPRESSED ANGER AS SISIR ADHIKARI CHOSEN MINISTER BY HIM AKD

'বাবাকে মন্ত্রী করায় ছেলেই যায়নি শপথে', অধিকারীদের ভাঙতে আসরে মমতা

নন্দীগ্রামে বিস্ফোরক মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়। ফাইল চিত্র

মমতার অভিযোগ, শিশির অধিকারী মন্ত্রী হওয়ায় সেদিন গোসাঘরে খিল দিয়েছিলেন শুভেন্দু অধিকারী।

  • Share this:

    #নন্দীগ্রাম: এপিসেন্টার নন্দীগ্রাম। লড়াইয়ের মাটিতে যুদ্ধের তিন দিন আগে পৌঁছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কার্যত মাটি কাঁপিয়ে দিলেন। বোঝা গেল বৃথা যায়নি মাঝের ১৮ দিন, প্রস্তুতি নিয়ে অঙ্ক কষে নেমেছেন ময়দানে। রেওয়াপাড়ার সভায়  অভিযোগ করেছিলেন নন্দীগ্রামে ১৪ মার্চ পুলিশ ঢোকার অনুমতি দিয়েছিলেন শুভেন্দু অধিকারীরা-শিশির অধিকারীরা। বিরুলিয়া বাজারে (এখানেই ১০ মার্চ চোট পেয়েছিলেন মমতা) পরের সভায় আরও বিস্ফোরক তিনি। লড়িয়ে দিলেন 'বাপ-ব্যাটাকেই' । মমতার অভিযোগ, শিশির অধিকারী সাংসদ হওয়ায় গোসাঘরে খিল দিয়েছিলেন শুভেন্দু অধিকারী।

    রাজনৈতিক জনসভায় শুভেন্দু অধিকারী সরাসরি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নাম নিলেও সাধারণত নাম নেন না মমতা। আজ অভিযোগ করতে গিয়ে শিশির  অধিকারীর নাম নিয়েই ফেলেন তিনি। সঙ্গে সঙ্গেই ভুল শুধরে নিয়ে মন্তব্য প্রত্যাহার করলেন। তারপর অভিযোগ করলেন। তাঁর কথায়, "কোনও একজনের বাবাকে কেন্দ্রে মন্ত্রী করলাম। বাবার শপথে ছেলে গেল না। বলল, বুড়ো ভামকে মন্ত্রী করা হয়েছে। আমি তো কোনও দিন এই ভাষায় কথাই বলতে পারব না।" বুঝতে অসুবিধে হওয়ার কথা নয়, মমতা বোঝাতে চাইলেন, শিশির অধিকারী প্রসঙ্গে এই মন্তব্য শুভেন্দুর।

    এখানেই শেষ নয়। রেওয়াপাড়ায় প্রথম বক্তব্যে যে অভিযোগ করে এসেছেন, তাঁর দ্বিতীয় ভাগটা শোনা গেল এই বিরুলিয়া বাজারে। মমতার কথায়, "যখন নন্দীগ্রামের ঘটনা ঘটল পুলিশ ঢুকল গদ্দাররা কি তা জানতেন না? অতবার তাদের বুদ্ধাবাবুর সাথে কথা হয়েছে!" এর পরেই ঘটল বেনজির কাণ্ড, যে নাম আজ বহু বছর মুখেও আননেনি, সেই নামটাই নিয়ে ফেললেন মমতা। তিনি এদিন বলেন, "যদি কেউ আমাকে বহিরাগত বলে নিজেদের ভূমিপুত্র বলে তবে জানুন, তাঁরা ১৫ দিন বাড়ি থেকে বেরোয়নি। আমার কথা বিশ্বাস না হলে যান গিয়ে জিজ্ঞাসা করুন মুকুল রায়কে। মুকুল রায় সাক্ষী।"

    শুভেন্দু-শিশিররা বারংবার বলেছেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নন্দীগ্রামে লড়তে এসেছেন শুভেন্দুর কেরিয়ার শেষ করতে।  মমতার সাফ জবাব, "আমি ওকে হারাতে আসিনি। আমার পছন্দের আসন ভবানীপুর। তাও এখানে এসেছি। কারণ আপনারা আমায় চেয়েছেন।"

    ১৮ দিন পরে এসেছেন নন্দীগ্রামে। পায়ে চোট। মমতার ঝাঁজ বুঝিয়ে দিল, হারজিৎ যাই হোক, নন্দীগ্রাম আসনে খেলা হবে।

    Published by:Arka Deb
    First published: