• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • MIDNAPORE DIBYENDU ADHIKARI DECIDED TO TAKE HIS COMPLAIN ON BABAKE BOLO CAMPAIGN TO COURT SANJ

Dibyendu Adhikari - Sisir Adhikari: 'মানসিক যন্ত্রনায় অশীতিপর শিশির'! 'বাবাকে বলো' প্রচারের বিরুদ্ধে আদালতের পথে দিব্যেন্দু!

এমনই লোগো ছড়ানো হচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়ায়৷

দিব্যেন্দুর অভিযোগ পুলিশ এখনও 'বাবাকে বলো' নিয়ে যথেষ্ট পদক্ষেপ নেয়নি। তাই এই নিয়ে এবার আদালতে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন দিব্যেন্দু অধিকারী (Dibyendu Adhikari)।

  • Share this:

    #কাঁথি: কয়েকদিন আগেই বিধানসভায় বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীকে (Suvendu Adhikari) উদ্দেশ্য করে 'বাবাকে বলো' বলে কটাক্ষ ছুড়ে দিয়েছিলেন নৈহাটির তৃণমূল বিধায়ক পার্থ ভৌমিক৷ তার পর থেকেই কাঁথির প্রবীণ সাংসদ শিশির অধিকারীর(Sisir Adhikari) ছবি ও ফোন নম্বর দিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় 'বাবাকে বলো' নিয়ে মিম ছড়িয়ে পড়েছিল৷ এরপরেই ফেসবুকে এমন প্রচার নিয়ে পুলিশে অভিযোগ দায়ের করেন শিশির বাবুর ছেলে এবং তমলুকের সাংসদ দিব্যেন্দু অধিকারী (Dibyendu Adhikari)৷ কিন্তু দিব্যেন্দুর অভিযোগ পুলিশ এখনও এই নিয়ে যথেষ্ট পদক্ষেপ নেয়নি। তাই এই নিয়ে এবার আদালতে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন দিব্যেন্দু অধিকারী (Dibyendu Adhikari)।

    তমলুকের সাংসদ দিব্যেন্দুর (Dibyendu Adhikari) অভিযোগ, তাঁর বাবা শিশির অধিকারীর(Sisir Adhikari)  ছবি দিয়ে ফেসবুকে বাবাকে বলো লেখা একটি লোগো ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে৷ দিব্যেন্দুর(Dibyendu Adhikari)  দাবি কেউ ইচ্ছাকৃতভাবে বিরক্ত করার জন্যই তাঁর ৮৩ বছর বয়সি পিতার ছবি ও মোবাইল নম্বর দিয়ে এই ধরণের পোস্ট করেছেন। ফলে ওই নম্বরে অনেকেই প্রবীণ সাংসদকে ফোন করছেন৷ ফেসবুকে এই প্রচার দেখে যে ফোনগুলি শিশিরবাবুর কাছে আসছে, অধিকাংশ ক্ষেত্রেই তা কাঁথির সাংসদকে বিরক্ত করার উদ্দেশ্যেই করা হচ্ছে, এই মর্মে কাঁথি থানায় অভিযোগ দায়ের করেন দিব্যেন্দু৷ কিন্তু তাঁর অভিযোগ পুলিশ বিষয়টি নিয়ে কোনও পদক্ষেপ নেয়নি। এমনকি এফ আই আর-ও করেনি।

    তাই এই নিয়ে এবার আদালতের দ্বারস্থ হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন দিব্যেন্দু। তাঁর কথায়, "এই কাজ অত্যন্ত অপরাধমূলক কাজ। আমার ৮৩ বছর বয়সি পিতা এর ফলে অত্যন্ত মানসিক যন্ত্রণার মধ্যে রয়েছেন। একজন বৃদ্ধ মানুষকে এভাবে উত্যক্ত করার জন্য দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া জরুরী।" পুলিশ যথেষ্ট আমল না দেওয়ায় এবার আদালতের পথেই যাবেন বলেই শনিবার স্পষ্ট জানিয়েছেন দিব্যেন্দু অধিকারী।

    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published: