• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • Haldia Fire Incident: হলদিয়া তেল শোধনাগারে ভয়ংকর অগ্নিকাণ্ডে গাফিলতি কার? সামনে এলেই  FIR!

Haldia Fire Incident: হলদিয়া তেল শোধনাগারে ভয়ংকর অগ্নিকাণ্ডে গাফিলতি কার? সামনে এলেই  FIR!

ভয়ংকর ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন ৩ জন

ভয়ংকর ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন ৩ জন

Haldia Fire Incident: কারও গাফিলতি সামনে এলেই তাঁর বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করা হবে। হলদিয়া আইওসি অগ্নিকাণ্ডের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এমনটাই জানিয়েছেন জেলা পুলিশ সুপার অমরনাথ কে।

  • Share this:

#হলদিয়া: হলদিয়া তেল শোধনাগারে অগ্নিকাণ্ডে বুধবার থেকে তদন্ত করছে ফরেন্সিক দল। দিল্লি থেকে  কারখানার উচ্চপর্যায়ের একটি দলও এসে তদন্ত চালাচ্ছে। এর পাশাপাশি জেলা পুলিশের তরফেও আলাদা ভাবে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। কারও গাফিলতি সামনে এলেই তাঁর বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করা হবে। হলদিয়া আইওসি অগ্নিকাণ্ডের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এমনটাই জানিয়েছেন জেলা পুলিশ সুপার অমরনাথ কে।

মঙ্গলবার হলদিয়া তেল শোধনাগারের msq ইউনিট আচমকা আগুনের গ্রাসে চলে যায়। মৃত্যু হয় তিন শ্রমিকের। আহত হন বহু শ্রমিক। প্রতি বছরই শাটডাউন করে রক্ষণাবেক্ষণের কাজ করা  হয়। আর সেই সময়েই বিধ্বংসী অগ্নিকান্ড। ঘটনায় মৃত্যু ও আহত শ্রমিকদের ক্ষতিপূরণের দাবিতে সরব হন শ্রমিকরা। হলদিয়ার আইওসি কর্তাদের সঙ্গে প্রশাসনিক ভবনে রাজ্যের দুই মন্ত্রী সৌমেন মহাপাত্র ও অখিল গিরি দীর্ঘ বৈঠক করেন। ঘুরে দেখেন ঘটনাস্থল।

আরও পড়ুন: আগ্নেয়াস্ত্র-ব্যাগ উধাও, অসম ফেরত মুখ্যমন্ত্রীর নিরাপত্তারক্ষীর সঙ্গে যা ঘটল ট্রেনে! তুমুল আলোড়ন

শ্রমিকদের ক্ষতিপূরণ ও চাকরির বিষয়ে হলদিয়া রিফাইনারি কর্তৃপক্ষ যেন প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেয় সেই বিষয়টিও দুই মন্ত্রীর তরফে কর্তৃপক্ষের কাছে তুলে ধরা হয়। তবে সুরক্ষা ব্যবস্থায় গলদ ছিল বলেই এই ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা বলে শ্রমিকদের একাংশ থেকে প্রত্যেকেই সরব হন। যদিও আইওসি কর্তৃপক্ষ সুরক্ষা ব্যবস্থায় কোনও গাফিলতির অভিযোগ মানতে চায়নি।

আরও পড়ুন: কলকাতার ফলের পরই কেন অমিত শাহের কাছে রাজ্যপাল? হতাশা আর ব্যর্থতা খুঁজছে তৃণমূল!

তাদের বক্তব্য, ঘটনার নেপথ্যে আসল কারণ কী তার সঠিক অনুসন্ধানে দিল্লি থেকে একটি উচ্চপর্যায়ের তদন্তকারী দল ঘটনাস্থলে পৌঁছে সমস্ত দিক খতিয়ে দেখছে। পাশাপাশি নিহত ও আহত শ্রমিকদের পরিবারের পাশে থাকার কথাও জানিয়েছে আইওসি কর্তৃপক্ষ। রাজ্যের মন্ত্রী সৌমেন মহাপাত্র কর্তৃপক্ষের গাফিলতির প্রসঙ্গ টেনে বলেন, ''গাফিলতি তো নিশ্চয়ই ছিল। তেল কোম্পানির নিজস্ব হাসপাতাল থাকলেও সেখানে কোনও বার্ন ইউনিট না থাকাটাই তো আশ্চর্যের বিষয়।'' স্থানীয় তৃণমূল নেতা আজগর আলির কথায়, ''স্থানীয় অনেক শ্রমিকই দক্ষ। অথচ ঠিকাদারি সংস্থা কম পয়সায় ভিন রাজ্য থেকে সুরক্ষার বিষয়টিকে গুরুত্ব না দিয়ে এই রিফাইনারিতে শ্রমিকদের কাজ দিচ্ছে।'' রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী বলেন, ''কর্মী শ্রমিকদের সুরক্ষার কথা ভেবে আপতকালীন পরিস্থিতি সামাল দিতে স্থানীয় স্তরে একটি আধুনিক হাসপাতাল তৈরীর পরিকল্পনা বাস্তবায়িত হয়নি রাজ্য সরকারের উদাসীনতাতেই। আমরা মৃত ও আহত শ্রমিকদের পরিবারের পাশে আছি।''

Published by:Suman Biswas
First published: