corona virus btn
corona virus btn
Loading

‘সরকার খাবার দিচ্ছে তাই ৬দিন পরে খাবার পাচ্ছি’ -আমফান বিধ্বস্ত পাথরপ্রতিমায় খাবার পাচ্ছেন ২০০০ মানুষ

‘সরকার খাবার দিচ্ছে তাই ৬দিন পরে খাবার পাচ্ছি’ -আমফান বিধ্বস্ত পাথরপ্রতিমায় খাবার পাচ্ছেন ২০০০ মানুষ

পাথরপ্রতিমায় শুরু হল কমিউনিটি কিচেন

  • Share this:

#পাথরপ্রতিমা: ঘূর্ণিঝড় আমফানের প্রভাবে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে সুন্দরবনের একাংশের। ক্ষতির প্রভাব পড়েছে দক্ষিণ ২৪ পরগণার বিস্তীর্ণ অংশে। ঝড়ের রেশ থেকে বাদ যায়নি পাথরপ্রতিমা। নদী, সমুদ্র ঘেরা এই জনপদে ফসল নষ্ট হয়েছে। বাঁধ ভেঙে ঢুকেছে জল। এই এলাকার বিপন্ন মানুষের কাছে অবশেষে সুন্দরবন পুলিশ খাবার তুলে দিল। আপাতত তৈরি করা হয়েছে একটি কমিউনিটি কিচেন। সেখান থেকেই দু'বেলা খাবার তুলে দেওয়া হবে সব হারানো মানুষের কাছে।

 পাথরপ্রতিমার জি প্লট, এখানের ক্ষতি হয়েছে সব চেয়ে বেশি বলে জানাচ্ছে দক্ষিণ ২৪ জেলা প্রশাসন। এখানের প্রায় ২০০০ মানুষকে আগামী এক মাস রান্না করা খাবার দেওয়া হবে। জাতীয় এবং রাজ্য সড়ক থেকে কাটা গাছ সরিয়ে ফেলার ফলে কলকাতা থেকে ইতিমধ্যেই ত্রাণ সামগ্রী এসে পৌচ্ছছে কাকদ্বীপ, নামখানা সহ বিস্তীর্ণ এলাকায়।গত কয়েকদিন ধরে চেষ্টা চলছিল, এই সমস্ত জায়গায় খাবার পাঠানোর। কিন্তু একাধিক জায়গায় গাছ পড়ে ও বিদ্যুতের খুঁটি পড়ে রাস্তা বন্ধ। এছাড়া বিভিন্ন জায়গায় নদী পেরিয়ে যাওয়ার মতো আবহাওয়া পরিস্থিতি ছিল না। এই সমস্ত এলাকার মানুষের পাশে থাকার জন্য অবশেষে প্রশাসনের মাধ্যমে খাবার দেওয়ার কাজ শুরু হয়েছে।

মুখ্যমন্ত্রী তার দক্ষিণ ২৪ পরগণা প্রশাসনিক বৈঠকে জানিয়ে দিয়েছিলেন রেশন ও খাবারের প্রতি নজর দিতে। সেই অনুযায়ী এই কমিউনিটি কিচেন খোলা হল। খাবার পেয়ে খুশি গ্রামবাসীরা। এদিন কমিউনিটি কিচেনে থাকা এক মহিলা রুপা দাস জানান, "বাড়ি ভেঙে পড়েছে। চালের ওপরে বড় গাছ ভেঙে পড়ে আছে। ঘরের আর কিছুই অবশিষ্ট নেই। এই অবস্থায় পেট চালাব কি করে তা জানিনা। সরকার খাবার দিচ্ছে তাই ৬দিন পরে খাবার পাচ্ছি।" করুণ অবস্থা বিভাবরী মন্ডলের। সত্তর পেরনো এই মহিলার কেউ নেই। মাথা গোঁজার যে ঠাঁই ছিল সেটিও আমফান নিয়েছে কেড়ে। ফলে বেঁচে থাকতে ভরসা এই সরকার থেকে পাওয়া খাবার। কমিউনিটি কিচেনে এদিন হাজির ছিলেন সুন্দরবন জেলা পুলিশ সুপার বৈভব তিওয়ারি। তিনি জানিয়েছেন, "পুলিশ সবাইকে সাহায্য করবে। এই সময় আমাদের প্রধান কাজ হল সবাইয়ের মুখে অন্ন জোগানো।

ABIR GHOSHAL

Published by: Debalina Datta
First published: May 27, 2020, 4:30 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर