Home /News /south-bengal /
Asansol: নৃশংস! চায়ের দাম চাওয়ায় এক কেটলি ফুটন্ত চা ঢেলে দেওয়া হল চা-বিক্রেতার গায়ে

Asansol: নৃশংস! চায়ের দাম চাওয়ায় এক কেটলি ফুটন্ত চা ঢেলে দেওয়া হল চা-বিক্রেতার গায়ে

সোমবার এহেন বর্বর ঘটনাটি ঘটেছে আসানসোল দক্ষিণ থানার অন্তর্গত সিটি বাসস্ট্যান্ডের অদূরে রেলওয়ে কলোনীর পার্কিংয়ের কাছে একটি চায়ের দোকানে

  • Share this:

    #আসানসোল: চায়ের দাম চাওয়ায় গরম চা ঢেলে দেওয়া হল চা-বিক্রেতার গায়ে! সোমবার এহেন বর্বর ঘটনাটি ঘটেছে আসানসোল দক্ষিণ থানার অন্তর্গত সিটি বাসস্ট্যান্ডের অদূরে রেলওয়ে কলোনীর পার্কিংয়ের কাছে একটি চায়ের দোকানে। অভিযোগ, চায়ের দাম চাইতেই এক ক্রেতা চা-বিক্রেতার গায়ে এক কেটলি গরম চা ঢেলে দেয়! দগ্ধ অবস্থায় চা- বিক্রেতা দেবেন্দ্র মোদিকে জেলা হাসপাতালের বার্ন ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে। জানা যায়, তিনি রেলপাড়ের কয়রি মহল্লার বাসিন্দা। ঘটনায় থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। প্রকাশ্যে এ'ধরনের নৃশংস কার্যকলাপে শহরবাসীর মধ্যে ক্ষোভ জমা হয়েছে! হামলাকারীর দ্রুত গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছে আসানসোলবাসী।

    আরও পড়ুন: মায়ের শ্রাদ্ধানুষ্ঠানে নিমন্ত্রিতদের চারাগাছ দিলেন বহরমপুরের পরিবেশপ্রেমী

    ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন INTTUC নেতা রাজু আহলুওয়ালিয়া। তিনি জানিয়েছেন, পুলিশ-প্রশাসনকে দোষীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বলবেন। আহত চা-বিক্রেতা দেবেন্দ্র মোদি জানান, সোমবার তিনি রোজের মতই দোকানে চা বিক্রি করছিলেন। এক ক্রেতার থেকে চায়ের দাম চাইতেই সে গালিগালাজ শুরু করে। এরপর পরিস্থিতি চরমে পোঁছায়! ক্রেতা চায়ের দোকান থেকেই এক কেটলি গরম চা নিয়ে চা-বিক্রেতার গায়ে ঢেলে দেয়। চা-বিক্রেতার বয়ান অনুযায়ী, ক্রেতা হাটন রোডের মোড়ের এক ডাব বিক্রেতা। ঘটনার পরই সে পলাতক। স্থানীয়দের সাহায্যে চা-বিক্রেতাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

    আরও পড়ুন: বিয়ে সেরে বাড়ি ফিরেছিলেন মেয়ে-জামাই, আচমকা কী করলেন শ্বশুরমশাই? তুমুল শোরগোল...

    অন্যদিকে, বাংলার পাচঁ পরিযায়ী শ্রমিকের মৃত্যু হল দক্ষিণ কর্ণাটকে (West Bengal News)। প্রত্যেকের বাড়ি উত্তর ২৪ পরগনার দেগঙ্গা এলাকায়। স্বাভাবিকভাবেই দেগঙ্গা এলাকার পাঁচ যুবকের মৃত্যুতে গোটা এলাকাজুড়ে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। জানা গিয়েছে, দক্ষিণ কর্নাটকের বাজপাই থানা এলাকায় শ্রী উল্কা লিমিটেড নামের এক মাছের কোম্পানিতে কাজে গিয়েছিলেন দেগঙ্গা থেকে প্রায় ত্রিশ-পয়ত্রিশ জনের একটি দল। রবিবার বিকেলে সেই মাছের কোম্পানির একটি চেম্বারে একজন শ্রমিক নামেন, তারপর পরপর ৭ জন শ্রমিক সেই চেম্বারে নামেন। পরে সেই চেম্বার থেকেই কর্তৃপক্ষ এক -এক করে পাঁচ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করে। বাকি দু'জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

    Nayan Ghosh

    Published by:Rukmini Mazumder
    First published:

    Tags: Asansol

    পরবর্তী খবর