কী কান্ড! দিনের আলোয় রাস্তায় কলেজ ছাত্রীর পেটে ছুরি চালিয়ে দিল যুবক

মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ওই যুবক এই ঘটনা ঘটিয়েছে বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের পর ধারণা মেমারি থানার পুলিশের

মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ওই যুবক এই ঘটনা ঘটিয়েছে বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের পর ধারণা মেমারি থানার পুলিশের

  • Share this:

#বর্ধমান: রাস্তায় মানসিক ভারসাম্যহীন যুবকের পাল্লায় পড়ে ছুরিতে আহত হতে হল মেমারির কলেজ ছাত্রীকে! এই ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে সত্যম দে নামে স্থানীয় এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে মেমারি থানার পুলিশ। তবে সে কেন ওই ছাত্রীকে রাস্তায় ছুরি দিয়ে আঘাত করে তার নির্দিষ্ট কোনও কারণ জানাতে পারেনি। মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ওই যুবক এই ঘটনা ঘটিয়েছে বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের পর ধারণা মেমারি থানার পুলিশের। ধৃতকে আজ বর্ধমান আদালতে পাঠানো হয়।

পূর্ব বর্ধমান জেলার মেমারি থানার দেবীপুর বেলতলা বাজারে মঙ্গলবারওই ঘটনা ঘটে। এক কলেজ ছাত্রী অনলাইনে পরীক্ষা শেষ করে মাকে আনতে স্কুটিতে দেবীপুর যাচ্ছিল। সেই সময় স্কুটির  ওপর বসে থাকা অবস্থায় অপরিচিত এক ব্যক্তি আচমকা এসে তার পেটে ছুরি মেরে পালিয়ে যায়।সেই মুহূর্তে আশেপাশে কোনও লোকজন না থাকায় অভিযুক্ত পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। ওই কলেজছাত্রী তার সহপাঠীকে ফোন করে ঘটনার কথা জানায় এবং তৎক্ষণাৎ তার সহপাঠী ও সহপাঠীর ভাই ঘটনাস্থলে আসে।এলাকার মানুষের সহযোগিতায় গুরুতর জখম ওই কলেজ ছাত্রীকে মেমারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।জখম গুরুতর হওয়ায় চিকিৎসার জন্য মেমারি হাসপাতাল থেকে ওই আহত কলেজ ছাত্রীকে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়।

ধৃত প্রকৃতই মানসিক ভারসাম্যহীন নাকি পাগলের নাটক করছে তা খতিয়ে দেখতে মনোরোগ বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ নেওয়া হবে বলে পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে। পাশাপাশি তার ব্যাপারে এলাকাতেও বিস্তারিত খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে।

ওই ছাত্রী এখন বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এলাকার বাসিন্দারা জানিয়েছেন, ঘটনার পর হত চকিত হয়ে যায় ওই ছাত্রী। রক্তে পোশাক ভেসে যাচ্ছিল। কোনও রকমে কাপড় দিয়ে বেঁধে তাকে হাসপাতালে নিয় যাওয়া হয়। মেমারি হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসার পর তাকে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়। সম্পূর্ণ অপরিচিত একজন এসে এভাবে কোনও কারণ ছাড়াই এক তরুণীকে এভাবে খুনের চেষ্টা করবে তা ভাবাই যাচ্ছে না। এ ঘটনায় উদ্বিগ্ন এলাকার মহিলারা।

Published by:Ananya Chakraborty
First published: