Home /News /south-bengal /
Babul Supriyo: স্বপ্নপূরণ বাবুলের, ৬২টি সিঁড়ি ভাঙার দিন শেষ বালি ঘাট স্টেশনে

Babul Supriyo: স্বপ্নপূরণ বাবুলের, ৬২টি সিঁড়ি ভাঙার দিন শেষ বালি ঘাট স্টেশনে

Photo Courtesy: Babul Supriyo/Twitter Handle

Photo Courtesy: Babul Supriyo/Twitter Handle

Babul Supriyo happy with Bally Ghat Station work: বাবুলের উদ্যোগেই বালি ঘাট স্টেশনে লিফট বসানোর কাজ শুরু হয়। লিফট হয়ে যাওয়ায় খুশি যাত্রীরা। 

  • Share this:

কলকাতা: স্বপ্নপূরণ হল প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়ের (Babul Supriyo)। তবে প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী হিসাবে নয়, তিনি স্বপ্নপূরণে খুশি হয়েছেন দীর্ঘদিন ধরে উত্তরপাড়া-বালি এই এলাকার সঙ্গে সম্পর্কের জন্যে। গত বছর বালি ঘাট স্টেশনের জন্যে লিফট বসানোর কাজ শুরু হয় বাবুল সুপ্রিয়ের উদ্যোগে। তখন তিনি কেন্দ্রীয় মন্ত্রী। আসানসোলের দাপুটে সাংসদ। তবে এখন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বা সাংসদ না থাকলেও বালি ঘাট স্টেশনে লিফট তৈরি হয়ে যাওয়ায় খুশি বাবুল নিজেই সেই খবর সোশ্যাল মিডিয়ায় জানিয়েছেন (Babul Supriyo happy with Bally Ghat Station work)।

আরও পড়ুন-আজও তাপমাত্রা স্বাভাবিকের নিচে, আগামী ক’দিন আবহাওয়ার কি পূর্বাভাস? জেনে নিন

৬২টা সিঁড়ি ভেঙে তবে স্টেশনে উঠতে হয়। অফিসযাত্রীদের হৃদপিণ্ডটা যেন হাতে চলে আসে। ভোগান্তি এড়াতে বালিঘাটের রুটই বদলে ফেলেছিলেন মধ্যবয়স্করা। এই অবস্থায় উত্তরপাড়া-বালির মানুষকে আক্ষরিক 'রিলিফ' দিয়েছিলেন বাবুল সুপ্রিয়। বাবুল নিজে উত্তরপাড়ার ছেলে, তাই গত বছর অনুষ্ঠান শুরুর কিছুক্ষণেই তিনি বাঁক নিয়েছিলেন নস্টালজিয়ার সরণিতে। বাবুল বলেছিলেন, ‘‘ আজ নস্টালজিক দিন। আমি উত্তরপাড়ার ছেলে। এই স্টেশন দিয়ে আমি মা-ঠাকুমা যাতায়াত করতাম। আমি আজও পাড়ার ছেলে।’’ স্মৃতি হাতড়াচ্ছিলেন বাবুল। তিনি ছোটবেলার স্মৃতি মনে করে বলেছিলেন, ‘‘এখানে আমি বড় হয়েছি। সিনেমা দেখেছি। কচুরি খেয়েছি। এখানে জামা কাপড় বানাতাম। বাবা, মা, ঠাকুমা নিয়ে এখানে আমার যাতায়াত। এই স্টেশন, ট্রেন ধরতে আসা আমার কাছে অনেক স্মৃতি।’’

অবশেষে ইচ্ছাপূরণ হল বাবুল সুপ্রিয়ের। পূর্ব রেলের এই স্টেশনে বসে গেল লিফট। ডানকুনি থেকে দমদম, বিধাননগর, শিয়ালদহ বা শিয়ালদহ ডিভিশনের বিভিন্ন স্টেশনে ট্রেনে পৌছতে ভরসা এই স্টেশন। কিন্তু বালি ব্রিজের সংযোগকারী এই স্টেশন মাটি থেকে অনেকটাই উচুঁতে। ফলে মধ্যবয়স্ক বা বয়স্ক, বিশেষ করে মহিলাদের অফিস টাইমে একাধিক সিঁড়ি ভেঙে উঠতে বেশ সমস্যা হত রেল যাত্রীদের। আপাতত সেই সমস্যার নিরসন হল।

আরও পড়ুন-Viral Video: মিনিস্কার্ট পরে স্টেজে উদ্দাম নাচে মত্ত ৬ স্কুল ছাত্রী, পরমুহূর্তেই ঘটে গেল দুর্ঘটনা!

ডানকুনিগামী ও শিয়ালদহগামী দুটি প্ল্যাটফর্মে পৌঁছানোর জন্য লিফট বসে গেল। বাবুল সুপ্রিয় জানিয়েছেন, ‘‘এটা হয়তো অনেক ছোট প্রজেক্ট৷ কিন্তু এটা আমার হৃদয়ের কাছের। ৬০টির বেশি সিঁড়ি ভেঙে উঠতে হত প্ল্যাটফর্মে  ট্রেন ধরতে। তৎকালীন রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল এক কোটি টাকা অনুমোদন করেছিলেন।’’ বাবুল চাইছেন কোনও দলমতের সমর্থক হয়ে নয়, সাধারণ মানুষ এই সুবিধে পান। লিফটে এসি থাকছে। স্টেনলেস স্টিল দিয়ে বানানো হবে। ফলে পরিষ্কার থাকবে লিফটটি। লিফটের কাজ শুরুর সময়ে গতবারই আবেগপ্রবণ হয়ে বাবুল বলছিলেন, ‘‘মা থাকলে আজ খুশি হতেন।’’ আর লিফটের ব্যবহার শুরুর পরে বাবুল লিখেছেন, ‘‘Politics is a thankless Job. Most, not all, forget to see the full Portion of the glass.’’

আবীর ঘোষাল

Published by:Siddhartha Sarkar
First published:

Tags: Babul supriyo

পরবর্তী খবর