এইচআইভি আক্রান্ত, একথা জানার পরই রোগিনীর অপারেশন করতে নারাজ চিকিৎসক !

এইচআইভি আক্রান্ত, একথা জানার পরই রোগিনীর অপারেশন করতে নারাজ চিকিৎসক!

এইচআইভি আক্রান্ত, একথা জানার পরই রোগিনীর অপারেশন করতে নারাজ চিকিৎসক !

  • Share this:

     #মুর্শিদাবাদ: বহুদিন ধরে ভুগছেন। জরায়ুতে টিউমারের অপারেশনের জন্য ভরতি হন মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজে। প্রায় তিন সপ্তাহ পরও হয়নি অপারেশন। রোগী এইচআইভি আক্রান্ত, একথা জানার পরই বদলে গিয়েছে চিকিৎসকদের আচরণ। ঘটনা জানার পর ব্যবস্থার আশ্বাস জেলাশাসকের। তারপর বিশ্ব এইডস দিবসেই সুখবর এল রোগীনির জন্য।

    দু-সপ্তাহ আগেই জরায়ুতে টিউমার অপারেশন হওয়ার কথা ছিল। ১৭ দিন কেটে গেলেও এখন আর অপারেশনের প্রসঙ্গই তুলছেন না চিকিৎসকরা। মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজে স্রেফ ফেলে রাখা হয়েছে ৪৬ বছরের মহিলাকে। রোগী এইচআইভি পজিটিভ। একথা জানার পরই কি অপারেশনে অনীহা? হাসপাতালের আচরণে অন্তত তেমনটাই স্পষ্ট।

    ২০০৬ সালে এইডসে আক্রান্ত হয়েছিলেন ওই মহিলা। তখন থেকেই নিয়মিত চিকিৎসা চলছে। তবে জরায়ুর টিউমার ধরা পড়ার পর সমস্যা বাড়ে। স্ত্রী-রোগের প্রবণতাও ধরা পড়ে। বহরমপুরে চিকিৎসা না হওয়ায় কলকাতায় চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসে পরিবার।

    হতদরিদ্র পরিবার। স্বামীর আয় বলতে দিনমজুর। এক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন পাশে দাঁড়ানোয় ফিমেল ওয়ার্ডে ভরতি করা রোগিনীকে। যদিও অপারেশন বারবার পিছিয়ে যাওয়ার ব্যাখ্যা পাচ্ছেন না তাঁরাও।

    এইচআইভি নিয়ে চিকিৎসকরা অন্তত সচেতন হবেন, এই আশাটুকু তো করাই যায়। বিশেষত দীর্ঘদিন ধরে এত প্রচারের পর। ইটিভি নিউজ বাংলার কাছে ঘটনা শুনে অবশ্য অবাক রোগী কল্যাণ সমিতির চেয়ারম্যান তথা জেলাশাসক। দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তিনি।

    চাপ পড়তেই সুর বদলেছে মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজও। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের আশ্বাস, বিষয়টি জটিল হওয়ায় বিভিন্ন পরীক্ষা হচ্ছে। খুব তাড়াতাড়িই অপারেশন হবে।

    First published: