Home /News /siliguri-wb /
Siliguri: প্লাস্টিক নিষিদ্ধ হতে বাড়ল কাগজের ঠোঙার চাহিদা

Siliguri: প্লাস্টিক নিষিদ্ধ হতে বাড়ল কাগজের ঠোঙার চাহিদা

title=

প্লাস্টিক ক্যারি ব্যাগ নিষিদ্ধ হতে বাড়লো কাগজের ঠোঙার চাহিদা, স্বনির্ভর হচ্ছে ২৫ টি পরিবার। দেশব্যাপী প্লাস্টিক ক্যারিব্যাগ নিষিদ্ধ হতেই নতুন করে স্বনির্ভর হচ্ছে শিলিগুড়ি লাগোয়া ফুলবাড়ী ১ নং গ্রাম পঞ্চায়েতের মাইকেল মধুসূদন কলোনির ২৫ টি পরিবার।

আরও পড়ুন...
  • Share this:

    #ফুলবাড়ি : প্লাস্টিক ক্যারি ব্যাগ নিষিদ্ধ হতে বাড়লো কাগজের ঠোঙার চাহিদা, স্বনির্ভর হচ্ছে ২৫ টি পরিবার। দেশব্যাপী প্লাস্টিক ক্যারিব্যাগ নিষিদ্ধ হতেই নতুন করে স্বনির্ভর হচ্ছে শিলিগুড়ি লাগোয়া ফুলবাড়ী নং গ্রাম পঞ্চায়েতের মাইকেল মধুসূদন কলোনির ২৫ টি পরিবার। প্লাস্টিক বন্ধ হওয়ায় গত কয়েক সপ্তাহের এক ধাক্কায় বেড়েছে কাগজের ঠোঙার চাহিদা। তবে মহিলাদের আক্ষেপ যে পরিমাণ পরিশ্রম করতে হয় তাতে সেই তুলনায় টাকা পাওয়া যায় না। চলতি মাসের লা জুলাই থেকে গোটা দেশব্যাপী প্লাস্টিক ক্যারিব্যাগের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে সরকার। প্লাস্টিক ক্যারিব্যাগ সম্পূর্ণভাবে বন্ধ করতে প্রতিনিয়ত বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালানো হচ্ছে। তবে প্লাস্টিক বন্ধ হতেই অভাব অনটনের সংসারে নতুন করে আশার আলো দেখাচ্ছে কাগজের তৈরি ঠোঙা। শিলিগুড়ির ফুলবাড়ি নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের মাইকেল মধুসূদন কলোনি এলাকায় ২৫ টি পরিবারের বিশেষত মহিলারা গত কয়েক মাস থেকে এই পেশায় যুক্ত। শুধু মহিলারা নয় বাড়ির অন্যান্য সদস্যরাও মহিলাদের এই কাজে অবসর সময় হাতে হাত মিলিয়ে কাগজের ঠোঙা তৈরির কাজ করে।

    জানা গিয়েছে পাইকারের দেওয়া কাগজ অন্যান্য সরঞ্জাম দিয়ে ঠোঙা তৈরি করার পর এক কিলো ঠোঙা বিক্রি করলে মহিলারা পান ১৩ থেকে ১৫ টাকা। তবে এই টাকা পরিশ্রমের চেয়ে অনেকটাই কম বলে আক্ষেপ মহিলাদের। প্রথমে বাজার থেকে কাগজ নিয়ে এসে সেই কাগজকে মাপ করে কেটে আটা দিয়ে তৈরি করে তারপরে কাগজ মুড়ে ঠোঙা তৈরি করতে হয়।

    আরও পড়ুনঃ বেহাল দশা রাস্তার! ক্ষোভে ফুঁসছেন এলাকাবাসী

    এরপর তৈরি ঠোঙ্গাকে বেশ কিছুটা সময় রোদে শুকনো করতে হয়। এরপরই তৈরি ঠোঙা পাইকাররা এসে টাকা দিয়ে বাজারে বিক্রি করতে নিয়ে যায়। প্রসঙ্গত এর আগেও কাগজের ঠোঙার প্রচলন থাকলেও বাজারজুড়ে প্লাস্টিকের ক্যারিব্যাগ ছেয়ে যাওয়ায় এর চাহিদা অনেকটাই কম ছিল। আগে সপ্তাহে মাত্র কয়েক কিলো তৈরি করার বায়না পেত ওই মহিলারা।

    আরও পড়ুনঃ খাবার পৌঁছানোর কাজ বন্ধ করল ডেলিভারি বয়-রা! কী দাবি তাঁদের?

    তবে চলতি মাস থেকে প্লাস্টিক ক্যারিব্যাগ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় এখন প্রতিদিন কয়েক কেজি করে এই কাগজের ঠোঙ্গা তৈরি করছেন তারা। ঠোঙা প্রস্তুতকারক মহিলাদের আবেদন প্লাস্টিককে বর্জন করে কাগজের ঠোঙা ব্যবহার করুন এতে পরিবেশ যেমন বাচঁবে তেমনি তাদের অভাবের সংসারেও জুটবে আসবে হাসি।

     

     

     

    Anirban Roy

    Published by:Soumabrata Ghosh
    First published:

    Tags: Siliguri

    পরবর্তী খবর